বৃহস্পতিবার ৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জেলা প্রশাসনের অভিযানে পঞ্চগড় থেকে উধাও নিষিদ্ধ ঘোষিত পলিথিন ব্যাগ

পঞ্চগড় প্রতিনিধি: পঞ্চগড় জেলা প্রশাসনের অভিযানে আবার হঠাৎ করেই বাজার থেকে উধাও হয়ে গেছে নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ। অনেকের কাছে পুরনো মজুদ থাকলেও ভ্রাম্যমান আদালতের ভয়ে তারাও পলিথিন ব্যাগ বিক্রয় করছেন না। খুচরা ব্যবসায়ীরা তাদের সামান্য মজুদ থাকা পলিথিন ব্যাগে পণ্য দিয়ে দিচ্ছে ক্রেতাদের, যা অনেকটা লুকিয়ে। দীর্ঘদিন চলার পর হঠাৎ করে পলিথিন ব্যাগ বাজারে না পাওয়ায় বেকায়দায় পড়েছেন ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা। কাগজের বানানো ঠোঙ্গা সহজলভ্য না হওয়ায় ছোট-খাটো পণ্য হাতে করে বা বেশী দামের ব্যাগ কিনে বাড়িতে নিতে হচ্ছে ক্রেতাদের। ভুক্তভোগীদের মতে, বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ব্যবসায়ীদের জরিমানা না করে পলিথিন ব্যাগের কারখানায় উৎপাদন বন্ধ করে দিলেই এর সমস্যা সমাধান হয়ে যায়।

নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ বন্ধ করতে গত সপ্তাহে মাঠে নামে জেলা প্রশাসন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে ভ্রাম্যমান আদালতে কয়েকজন ব্যবসায়ীকে আর্থিক জরিমানা করা হয়। এর পর থেকে বাজারে হাওয়া হয়ে যায় পলিথিন ব্যাগ। যাদের কাছে এখনো বিক্রয়ের জন্য মজুদ আছে তারাও ভয়ে তা বের করছেন না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ব্যবসায়ী জানান, আমাদের কি দোষ ? মোকাম থেকে আমরা এগুলো কিনে এনে বিক্রয় করছি। পাওয়া না গেলে আর বিক্রয় করবো না। সরকার পলিথিন তৈরীর কারখানা বন্ধ করে দিলে আমরা এসব ব্যাগ পাবোও না আর বিক্রয় করতে পারবো না। হঠাৎ করে পলিথিন ব্যাগ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আবার অল্প-বিস্তর কাগজের ঠোঙ্গার ব্যবহার শুরম্ন হয়েছে। পঞ্চগড় জেলা শহর ঘুরো দেখা গেছে, অনেক ব্যবসায়ী ক্রেপ কাগজ দিয়ে তৈরী খামে করে ক্রেতাদের জিনিস-পত্র দিচ্ছেন। আবার অনেক ক্রেতা ২ টাকা দামের জালি ব্যাগে করে পণ্য নিয়ে যাচ্ছেন। কেউবা ৫-১০ টাকা দামের ব্যাগ কিনছেন।  

‘স্কুল-কলেজ-শ্বশুরবাড়ি’ পলিথিন ব্যাগ বাজারে আসার পর থেকেই এ চাহিদা বাড়তে থাকে খুব দ্রুত। সহজলভ্য ও দামে সস্তা হওয়ায় সবার হাতে হাতে শোভা পায় এই পলিথিন ব্যাগ। প্রয়োজনীয় হলেও পরিবেশে জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর হওয়ায় সরকার পলিথিন ব্যাগ নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। নিষিদ্ধের কয়েক বছর পর্যন্ত এটির বাজারজাত বন্ধ থাকায় বাজার থেকে প্রায় হারিয়ে গিয়েছিল পলিথিন ব্যাগ। সরকার ও প্রশাসনের নজরদারী না থাকায় নিষিদ্ধের কয়েক বছরের মধ্যে আবার ফিরে আসে এটি। এক শ্রেণির ব্যবসায়ী নির্জন এলাকা বা বাড়িতে বসে তৈরী শুরু করে পলিথিন ব্যাগ। আবার বাজার সয়লাব হয়ে যায় নিষিদ্ধ ঘোষিত এই পণ্যটি।