শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জয় দিয়ে ভারতের এশিয়া মিশন শুরু

Crikcetস্বাগতিক বংলাদেশকে ৬ উইকেটে হারিয়ে চলতি এশিয়া কাপের মিশন শুরু করেছে ভারত। বুধবার ফতুল্লার খান সাহেব ওসমানী স্টেডিয়ামে টুর্ণামেন্টের ২য় ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে মাঠে নেমে টাইগাররা। টস হেরে প্রথমে ব্যাটিং করে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম দেশের মাটিতে প্রথম ওডিআই শতক হাঁকান। এ সেঞ্চুরিতে ভর করে বাংলাদেশের সংগহ দাঁড়ায় ৭ উইকেটে ২৭৯ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৪৮ ওভার ৫ বলে মোকাবেলা করে মাত্র ৪ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় ভারত।
দুই ওপেনার শিখর ধাওয়ান ও রোহিত শর্মাকে মাত্র ৪ রানের ব্যবধানে সাজঘরে পাঠিয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেয় স্বাগতিকরা। কিন্তু বিরাট কোহলি তার ৩১তম ফিফটিকে ১৯তম শতকে পরিণত করেন ৯৫ বলে। কোহলি ১২২ বলে ১৯ চার ও ২ ছয়ে ১৩৬ রান করে যখন সাজঘরে ফেরেন তখন দলের জয় শুধু সময়ের ব্যাপার। অপর প্রান্তে অজিঙ্কা রাহানে করেন ৭৩ রান।
অবশেষে ৫০ রানের এ জুটি ভাঙতে সফল হন আব্দুর রাজ্জাক। অভিজ্ঞ স্পিনার ধাওয়ানকে ২৮ রানে এলবিডব্লুর ফাঁদে ফেলেন। পরের ওভারে জিয়াউর রহমান রোহিতকে ২১ রানে বোল্ড করেন।
এদিকে বাংলাদেশের ইনিংসে একেবারেই সামনে থেকে ব্যাটিংয়ে নেতৃত্ব দেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। দেশের মাটিতে ক্যারিয়ার সেরা ওয়ানডে পারফরমেন্স করে ভারতের বিপক্ষে দলকে এনে দিলেন লড়াই করার মতো সংগ্রহ। ফলে ৭ উইকেটে তাদের সংগ্রহ ২৭৯ রান। এশিয়া কাপে এটি বাংলাদেশের চতুর্থ দলীয় সর্বোচ্চ, আর ভারতের বিপক্ষে তৃতীয় সেরা।
১২৫টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলে মুশফিকুর রহিমের মাত্র একটি মাত্র শতক, তাও সেটা ২০১১ সালের ১৬ আগস্ট জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। অবশেষে ওয়ানডেতে অধরা শতকটি পেলেন টেস্টে দেশের একমাত্র ডাবল সেঞ্চুরিয়ান। ১০৪ বলে পাঁচ চার ও দুই ছয়ে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি পান তিনি। এর আগে ৪৯ রানের মধ্যে দুই উইকেট হারালেও এনামুল হক ও মুশফিকুর রহিমের হাফ সেঞ্চুরিতে পথে ফিরেছিল বাংলাদেশ। ৬৭ বলে প্রথম ফিফটি পাওয়া এনামুল থেমেছেন ৭৭ রানে। ১০৬ বলে পাঁচটি চার ও তিন ছয়ে সাজানো ইনিংসটি বোল্ড করে থামান বরুন অ্যারন।
এশিয়া কাপের দ্বিতীয় ম্যাচে ৫বারের চ্যাম্পিয়ন ভারত টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়। শামসুর ও এনামুলের উদ্বোধনী জুটি ভালো সূচনার ইঙ্গিত দিলেও ১৬ রানে সেটা ভেঙে যায়। ৭ রানে মোহাম্মদ সামির শর্ট বলে অফ সাইডে ফিরতি ক্যাচ তুলে দেন শামসুর। ১৩তম ওভারের প্রথম বলে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের বলটি এগিয়ে এসে মারতে গিয়ে স্ট্যাম্পিং হন মুমিনুল হক। তিনটি করে চার ও ছয়ে এনামুল অর্ধশতক করেন। আর মুশফিক ৬৫ বলে তিন চারে ৫০ রানে পৌঁছান। তারা দুজনে ১৩৩ রানের জুটি গড়েন। নাঈম ইসলাম বেশিক্ষণ ক্রিজে টিকতে পারেননি। সামির বলে অশ্বিনের তালুবন্দি হন ১৭ রানে।
এক ওভার বিরতি দিয়ে ভারতীয় পেসারের তৃতীয় শিকার হন নাসির হোসেন (১)। জিয়াউর রহমান দুটি চার ও এক ছয়ে ১৮ রানে আউট হন। এই ভারতের বিপক্ষে ২০০৮ সালে করাচিতে অলক কাপালি এশিয়া কাপের বিপক্ষে সর্বোচ্চ ১১৫ রান করেন। ছয় বছর পর সেই রেকর্ড ভেঙে দেন মুশফিক, ১১২ বলে সাত চার ও দুই ছয়ে ১১৭ রানে সামির কাছে উইকেট হারান অধিনায়ক। সোহাগ গাজী তিন ও মাশরাফি বিন মুতর্জা ১ রানে অপরাজিত খেলছিলেন।
অপরদিকে বাংলাদেশের পক্ষে ১টি করে উইকেট নেন রুবেল, রাজ্জাক, জিয়াউর ও সোহাগ গাজী। আর ভারতের পক্ষে মোহাম্মদ সামির একাই নেন ৪টি উইকেট। প্রসঙ্গত বাংলাদেশ দলে আল-আমিন হোসেনের পরিবর্তে দলে জায়গা পেয়েছেন জিয়াউর রহমান। আরাফাত সানির স্থানে দলে ঢুকেছেন আব্দুর রাজ্জাক।