রবিবার ২২ মে ২০২২ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জয় দিয়ে শ্রীলংকার শুভ সূচনা

Cricktএশিয়া কাপ ক্রিকেটের উদ্বোধনী ম্যাচে ওপেনার লাহিরু থিরিমান্নের দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি ও মালিঙ্কার ৫ উইকেটের সুবাদে জয় দিয়ে শুভ সূচনা করেছে শ্রীলংকা। ফতুল্লার খান সাহেব উসমান আলী স্টেডিয়ামের টসে জিতে ব্যাটিং নেয় লংকান অধিনায়ক এঞ্জেলো ম্যাথুস। উদ্বোধনী ম্যাচেই লাহিরু থিরিমান্নে তুলে নিলেন দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি। তার ১০২ কুমার সাঙ্গাকারার ৬৭ আর অধিনায়ক এঞ্জেলো ম্যাথুসের অপরাজিত ৫৫ রানে ভর করে ৬ উইকেট হারিয়ে পাকিস্তানকে ২৯৭ রানের টার্গেট দেয় শ্রীলঙ্কা। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১৮৪ রানেই সব উইকেট হারায় পাকিস্তান। তখনো ম্যাচের আরো ৭ বল বাকী ছিল। পাকিস্তান ইনিংসের সর্বোচ্চ রান ছিল উমর আকমল ৭৪ আর মিসবাহ-উল-হক ৭৩।
ব্যাট করতে নামার পর এক সময় মনে হচ্ছিল অনায়াসেই ৩০০ পেরোবে শ্রীলঙ্কা। ঠিকমতো ঝড় তুলতে পারলে স্কোরটা সাড়ে ৩০০র কাছাকাছিও যেতে পারে। শেষ পর্যন্ত পাকিস্তানের বোলাররা ৩০০ পেরোতে দেয়নি শ্রীলঙ্কাকে। ২৯৬ রানে থামিয়ে দিয়েছে। তাই বলে পাকিস্তানের কাজটাও কিন্তু সহজ হয়নি । পরে ব্যাট করে এর চেয়ে বেশি রান তাড়া করে জেতার মাত্র ৪টি নজির আছে এশিয়া কাপে। পাকিস্তান নিজেই একবার ২০০৮ এশিয়া কাপে ভারতের ৩০৮ রান পেরিয়ে গিয়েছিল অনায়াসে।
ওভারে ছয়ের ওপর রান তুলে ১ উইকেটে ৭৭ তুলে ফেলা পাকিস্তান আজও ভালো মতোই ছুটছিল। কিন্তু টানা দুই ওভারে আহমেদ শেহজাদ ও মোহাম্মদ হাফিজের উইকেট দুটো হারিয়ে চাপের মুখে পড়ে যায়। ৮৩ তুলতেই নেই ৩ উইকেট। চারে নামা শোহাইব মাকসুদ ১৭ রান করে ফিরে গেলে কক্ষপথ থেকে ছিটকেই পড়ে পাকিস্তান। ১২১ রানে হারায় ৪ উইকেট। পাকিস্তানকে আবার কক্ষপথে ফেরান অধিনায়ক মিসবাহ-উল হক। সঙ্গে ছিলেন উমর আকমল। দুজনের অবিচ্ছিন্ন ৮১ রানের জুটিতে ভালোমতোই ম্যাচে ফিরেছিল পাকিস্তান। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর হলো না। মালিঙ্কা একাই ধসিয়ে দেয় পাকিস্তানকে।
থিরিমান্নের প্রতিভা নিয়ে প্রশ্ন ছিল না। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের ভবিষ্যত্ তারকাদের একজনই ভাবা হয়। কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সেভাবে মেলে ধরতে পারছিলেন না। গত বছর জানুয়ারিতে প্রথম ওয়ানডে সেঞ্চুরির পর টানা ১৮ ইনিংসে মাত্র দুটো ফিফটি। অবশেষে বড় উপলক্ষ পেতেই নিজেকে মেলে ধরলেন এই বাঁ হাতি ওপেনার। আরও বড় স্কোরের পূর্বাভাসই দিচ্ছিল লঙ্কানরা। ৩৫ ওভার শেষে তাদের স্কোর ছিল ২ উইকেটে ২০৩। হাতে উইকেট রেখেও শেষ ৯০ বলে ৯৩ রানের বেশি তুলতে পারেনি শ্রীলঙ্কা। বলা ভালো তুলতে দেয়নি পাকিস্তানের বোলাররাই।
২৮ রানে ওপেনার কুশল পেরেরার উইকেটটি হারালেও দ্বিতীয় উইকেটে ১৬১ রানের জুটি গড়ে পাকিস্তানিদের ঘাম ছুটিয়ে ছাড়েন থিরিমান্নে ও কুমার সাঙ্গাকারা। সর্বশেষ ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি করে দেশে ফিরে গিয়েছিলেন। তবে সাঙ্গাকারার রানের চাকার গতিতে তাতে কোনো হেরফের হয়নি। উমর গুলের দ্বিতীয় শিকার হওয়ার আগে করেছেন ৬৭। খানিকক্ষণ পর থিরিমান্নেও ফিরে গেছেন।
১৫ রানের মধ্যেই এ দুজনকে ফিরিয়েই আসলে ব্যাটিং পাওয়ার প্লেতে লঙ্কানদের ঝড়ের বেগে রান তুলতে দেয়নি পাকিস্তান। ব্যাটিং পাওয়ার প্লের প্রথম ওভারেই থিরিমান্নেকে ফিরিয়ে উইকেটে দুই নতুন ব্যাটসম্যানকে এনে ফেলে মিসবাহর দল। ওই পাওয়ার প্লেতে ২ উইকেট হারিয়ে ২৯ রান তোলে শ্রীলঙ্কা। ৩৯তম ওভারের শেষ বল থেকে ৪৬তম ওভারের দ্বিতীয় বল পর্যন্ত মাঝখানের ৪৫ বলে একটির বেশি চার মারতে পারেনি লঙ্কানরা। তাতেই লঙ্কানদের তিন শর নিচে আটকে রাখতে সমর্থ হয় পাকিস্তান।
পাকিস্তানের পক্ষে ২টি করে উইকেট নেন আফ্রিদি ও উমর গুল। আর শ্রীলংকার পক্ষে মালিঙ্কা ৫টি ও লাকমল নেন ২টি উইকেট। ৫ উইকেট নিয়ে পাকিস্তান ধসিয়ে দেয়ার সুবাদে ম্যান অব দ্যা ম্যাচ হয়েছেন শ্রীলংকার মালিঙ্গা।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email