রবিবার ১ অক্টোবর ২০২৩ ১৬ই আশ্বিন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

জয় ললিতার ৪ বছর জেল

Jay Lolitaআয় বহির্ভূত সম্পত্তি মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী ও এআইএডিএমকে নেত্রী জয় ললিতাকে ৪ বছরের কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছে বেঙ্গালুরুর একটি বিশেষ আদালত। একই সাথে তাকে ১০০ কোটি রুপি জরিমানাও করা হয়েছে। আদালতের এ রায়ে মুখ্যমন্ত্রী বিধ্যক খোয়াতে হচ্ছে আম্মাকে। অর্থাৎ মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকেও ইস্তফা দিতে হবে তাকে। আজ শনিবার বেঙ্গালুরুর একটি বিশেষ আদালতে ১৮ বছরের পুরনো এ মামলার চূড়ান্ত রায় ঘোষণা করা হয়েছে। ১৯৯৭ সালে জয়ললিতার বিরুদ্ধে ৬৬ কোটি ৬৫ লক্ষ টাকার আয়বহির্ভূত সম্পত্তি মামলাটি করেছিলেন সুব্রহ্মণ্যম স্বামী। জয়ললিতা মুখ্যমন্ত্রীর গদি হারালে রাজ্যে আইনশৃঙ্খলার অবনতি কিংবা সমর্থকদের আত্মহত্যার আশঙ্কায় রাজধানী চেন্নাইসহ বিভিন্ন্ শহরে নিরাপত্তা ব্যবস্হা জোরদার করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই বেঙ্গালুরুতে জয়ার সমর্থনে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে।
আজ সকাল ৮.৪০ মিনিট নাগাদ চেন্নাইয়ের বাসভবন থেকে বিমানবন্দরে রওনা হন জয়ললিতা। বিশেষ হেলিকপ্টারে ১১টা নাগাদ বেঙ্গালুরু আদালতে হাজির হন তিনি। এ মামলায় আরও ২ অভিযুক্ত শশিকলা নটরাজন ও ভি এন সুধাকরণও আদালতে হাজির হয়েছেন। ১৯৯১ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন জয়ললিতার সম্পত্তির পরিমাণ ৬৬ কোটি ৬৫ লাখ টাকা হয়েছিল। সে সম্পত্তি তিনি কোথা থেকে করলেন, তা নিয়েই মামলাটি করেছিলেন সুব্রহ্মণ্যম স্বামী।
আদালতের রায় জয় ললিতার বিপক্ষে গেলে গদি হারাতে পারেন তা আগে থেকেই অনুমান করেছিলেন এআইএডিএমকে নেত্রী। তাই নিজের উত্তরাধিকারীকে বেছে রেখেছেন। জয়ললিতার ঘনিষ্ঠ মহলের দাবি, সম্ভবত ও পন্নিরসেলভমের নামই তামিলনাড়ুর পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে ঘোষণা করতে পারেন জয়ললিতা। অন্যদিকে জয়ললিতার ইস্তফায় সবচেয়ে বেশি লাভবান হবে তামিলনাড়ুর বিরোধী দল ডিএমকে। কারণ সম্ভবত আগামী ছবছরের মধ্যে কোনও নির্বাচনে লড়তে পারবেন না জয়া।
ভারতভিত্তিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবরে জানা যায়, আজ শনিবার বেলা সোয় ২টা দিকে তাকে দোষী সাব্যস্ত করে বেঙ্গালুরুর ওই বিশেষ আদালত। এর পর বিকাল সওয়া ৫টার দিকে সাজার মেয়াদ ঘোষণা করা হয়। জয়ললিতার সাজা হওয়ায় তিতি আগামী ১০ বছর কোনও নির্বাচনেও লড়তে পারবেন না। তারই সাথে ৪ বছরের কারাদণ্ড হয়েছে বাকি ৩ জনের। তাদেরও জরিমানা করা হয়েছে ১০ কোটি টাকা করে। অনাদায়ে তাদের অতিরিক্ত ১ বছরের কারাবাস করতে হবে।
খবরে বলা হয়, এ রায় জয়ার রাজনৈতিক জীবনে বেশ বড়সড় একটি ধাক্কা। তামিলনাড়ুর রাজনীতিতে এ রায়ের আশু এবং সুদুরপ্রসারী ফল কী হবে সে দিকে তাকিয়ে গোটা দেশ। অন্যদিকে ৬৬ কোটি ৬৫ লক্ষ টাকার হিসাব বহির্ভূত মামলায় অপর অভিযুক্ত শশীকলার ভাইপো এবং তার পালিত পুত্র সুধাকরণ। রায় ঘোষনার সময় তার সঙ্গে ছিলেন মামলার অন্য অভিযুক্ত শশীকলা নটরাজন এবং লাভারাসি।
রায় ঘোষণার আগে পারাপ্পান্না আগ্রাহারা জেলের এক কিলোমিটার এলাকাকে ছোটখাটো দূর্গে পরিণত করা হয়েছে। ১৮ বছরের পুরনো এই মামলার রায় ঘোষণা করা হবে এখানকারই বিশেষ আদালতে। রায় ঘোষণা করবেন বিচারপতি জন মাইকেল ডি’কুনহা। মুখ্যমন্ত্রীর ‘ভবিষ্যত্’ জানতে প্রচুর আম্মা সমর্থক জড়ো হয়েছেন এই এক কিলোমিটার সীমানার বাইরে। আগেই বেঙ্গালুরু পৌঁছে গেছেন তামিল মন্ত্রিসভার একাধিক সদস্য। কোনও রকম অপ্রীতিকর পরিস্থিতি সামলাতে মোতায়েন করা হয়েছে প্রচুর পুলিশ ও র‌্যাফ।
১৯৯১ সালে তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী হন জয়া। কিন্তু ৫ বছর বাদে তাকে সরিয়ে ডিএমকে নেতা এম করুণানিধি ক্ষমতায় ফিরতেই জয়ললিতার বিরুদ্ধে হিসাব বহির্ভূত সম্পত্তির মামলা দায়ের হয়। জয়ললিতার বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে ২৮ কেজি সোনা, ৮৮০ কেজি রুপো, সাড়ে ১০ হাজার শাড়ি, ৭৫০ জোড়া জুতো, ৯১টি দামি ঘড়ি ও আরও অনেক মূল্যবান জিনিস আটক করে আয়কর দফতর। অভিযোগ প্রমাণে আয়কর দফতর তথা সরকার পক্ষ মোট ২৫৯ জন সাক্ষ্যকে হাজির করিয়েছেন এ পর্যন্ত।
এর পাল্টা জয়ললিতার তরফে পেশ করা হয়েছে ৯৯ জন সাক্ষীকে। মামলায় অভিযুক্ত কিছু বেসরকারি সংস্থা বারবার দিন পিছনোর  আর্জি জানিয়েও শ্লথ করেছেন মামলার গতি। পরে এ ধরনের ৫টি সংস্থার বিরুদ্ধে জরিমানা ধার্য করে আদালত। ২০০৩ সালে এক ডিএমকে নেতার আর্জিতে নিরপেক্ষ বিচারের স্বার্থে মামলাটি চেন্নাই থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় প্রতিবেশী রাজ্যের বেঙ্গালুরুতে।
পক্ষান্তরে তামিলনাডু মুখ্যমন্ত্রী জয় ললিতা দোষী সাব্যস্ত করার খবর ছড়িয়ে পরতেই উত্তেজনা ছড়িয়েছে গোটা তামিলনাডু জুড়ে। বিভিন্ন জেয়গায় অশান্তির খবর আসতে শুরু করেছে। বেশ কিছু বাসে ভাঙচুর ও আগুন লাগিয়ে দিয়েছে তার দলের সমর্থকরা। অপরদিকে জেলে গিয়েই অসুস্থ হয়ে পরছেন তিনি। ফলে তাকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে জেল হাসপাতালে।

Spread the love