শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঝিনাইদহের দিনমজুর মসলেম শাহ বয়স্ক ভাতা পাচ্ছেন ডিসি দিলেন ১০ হাজার টাকা !

সাংবাদিক জাহিদুর রহমান তারিক,
ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ
ভোট নিয়ে জনপ্রতিনিধিরা কথা না রাখলেও কথা রেখেছেন ঝিনাইদহের জেলা প্রশাসক মাহবুব আলম তালুকদার ও জেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আব্দুল মতিন।পত্রিকা ও সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খবর পড়ে হতদরিদ্র সেই দিনমজুর মসলেম শাহকে বয়স্ক ভাতা দেওয়ার ব্যবস্থা করছেন তারা। নতুন বরাদ্দ আসলেই বয়স্ক ভাতার জন্য তালিকা ভুক্ত হবেন মসলেম।এ ছাড়া বুধবার জেলা সমাজকল্যান পরিষদের বিশেষ সভায় দিনমজুর মসলেমকে দশ হাজার টাকা প্রদানের সিদ্ধান্ত হয়।আজ বৃহস্পতিবার বিকালে ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক এ অনুদান প্রদান করবেন বলে জানান শহর সমাজসেবা কর্মকর্তা মোঃ হোসেন খান।তিনি জানিয়েছেন বিভিন্ন পত্রিকা ও ফেসবুকে ঝড় তোলা স্ট্যাটাস পড়ে দিনমজুর মসলেম শাহর পাশে দাড়িয়েছে সমাজসেবা অধিদপ্তর।যথা সম্ভব সব সরকারী সহায়তা মসলেমকে দেওয়া হবে বলেও তিনি জানান। এদিকে জেলা প্রশাসক মাহবুব আলম তালুকদার ফোনে অভিনন্দন জানিয়েছেন ঝিনাইদহের সাংবাদিকদের।তিনি এ ধরণে হৃদয়গ্রাহী মানবিক পোষ্ট দিয়ে অসহায় মানুষের পাশে দাড়ানোর জন্য সব সাংবাদিককে বিশেষ ভাবে ধন্যবাদ জানান।উল্লেখ্য, ভোটের সময় মেম্বর চেয়ারম্যানরা বলেছিলেন, ভোট দাও বয়স্ক ভাতা পাবে। সংসদ নির্বাচনেও একই ভাবে ভোট নিয়েছিলো মসলেম উদ্দীন শাহের কাছ থেকে।কিšু‘ ভোট চলে গেলেও বয়স্ক ভাতা পাননি সত্তর বছরের বৃদ্ধ মসলেম শাহ। অভাবের তাড়নায় পাথরের মতো পেটানো শরীরটি ক্রমশ নিস্তেজ হয়ে পড়ছে তার।এই বয়সে ক্ষুধার যন্ত্রনা আর অভাবের তাড়নায় বৃদ্ধ মসলেমকে খোয়া ভেঙ্গে জীবিকা নির্বাহ করতে হচ্ছে। মসলেম শাহর বাড়ি ঝিনাইদহ শহরের পাগলাকানাই ইউনিয়নের গয়াসপুর কোরাপাড়া বটতলা কলোনী পাড়ায়। তার বাবার নাম তুষন শাহ।মসলেমের স্ত্রী জহুরা খাতুন জানান, সরকারী কর্মকর্তা ও বিভিন্ন মানুষ তাদের বাড়িতে আসছে খোজ খবর নেবার জন্য। কি জন্য আসছে তা আমি জানি না।১০ হাজার টাকা প্রদানের জন্য তিনি জেলা প্রশাসক মাহবুব আলম তালুকদারকে ধন্যবাদ জানান এ্যজমার রোগী জহুরা খাতুন। মসলেম উদ্দীন শাহের সাথে যোগাযোগ ০১৬১০-২০৯৭১০ (নাতি ছেলে মানিক)।

 

Spread the love