শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

টঙ্গীতে বয়লার বিস্ফোরণে ভবন ধস: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২৪

আজ শনিবার ভোরে গাজীপুরে টঙ্গীর বিসিক শিল্প এলাকায় টাম্পাকো ফয়লস লিমিটেড নামের একটি প্যাকেজিং কারখানায় বয়লার বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এতে পাঁচ তলা ভবনটি পুরোপুরি ধসে পড়ে। বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়ে ও চাপা পড়ে অন্তত ২৪ জন নিহত হয়েছেন। এই ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন প্রত্যক্ষদর্শী এবং হাসপাতাল ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। ভোর ৬টায় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলেও দুপুর দেড়টা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেননি ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। এখনও ফায়ার সার্ভিসের ২৯ টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে।

কারখানাটির শ্রমিকরা জানিয়েছেন, কারাখানটিতে প্রতিদিন তিন শিফটে কাজ হয়। প্রতি শিফটে ৩০০ শ্রমিক কাজ করে। বয়লার বিস্ফোরণের সময় কারখানাটিতে পুরোদমে কাজ চলায় ধারণা করা হচ্ছে তখনও অন্তত তিনশ’ শ্রমিক সেখানে কাজ করছিল। তবে কতজন শ্রমিক বের হতে পেরেছে এবং কতজন ভেতরে আটকা পড়েছে বা দগ্ধ হয়ে হতাহত হয়েছে তা তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয়নি।

গাজীপুরের সিভিল সার্জন আলী হায়দার খান জানান, টঙ্গী ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে এ পর্যন্ত ১৭ জনের লাশ রাখা হয়েছে। এছাড়াও আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্তি আছেন অর্ধশত।

এদিকে টঙ্গী থেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) জরুরি ভিত্তিতে নিয়ে আসা গুরুতর আহত শ্রমিকদের মধ্যে শনিবার দুপুর পর্যন্ত পাঁচ জন মারা গেছেন বলে জানান ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মিজানুর রহমান। তিনি আরও জানান, ‘ঢামেকে এখনও চিকিৎসাধীন আছেন ২৪ জন। এদের মধ্যে ৪ জনকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে। তাদের একজনের শরীরের ৯০ শতাংশই পুড়ে গেছে। ’নিহতদের মধ্যে রয়েছেন- টাম্পাকোর সিকিউরিটি গার্ড আবদুল হান্নান ও জাহাঙ্গীর, প্রিন্টিং টেনিশিয়ান রফিকুল ইসলাম, শিফট ইনচার্জ শুভাশিশ চন্দ্র, জেনারেটর অপরেটর আনিসুর রহমান, ক্লিনার শঙ্কর সরকার। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিহতরা হচ্ছেন- সিকিউরিটি গার্ড দেলোয়ার হোসেন (৪৫), মেশিনম্যান আনোয়ার হোসেন (৪০), শ্রমিক অহিদুজ্জামান স্বপন (৩৪) ও অজ্ঞাত নারী। বাকিদের পরিচয় এখনও শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। তবে গাজীপুর ৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে নিহতদের পরিচয় শনাক্ত করতে স্বজনদের ভিড় করতে দেখা গেছে।

এদিকে, দুপুর সাড়ে ১১টার দিকে স্থানীয় সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল টঙ্গী ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে এসে আহত রোগীদের খোঁজখবর নেন।

ফায়ার সার্ভিসের প্রধান নিয়ন্ত্রণ কক্ষের কর্তব্যরত কর্মকর্তা পলাশ মণ্ডল বলেন, ‘শনিবার ভোর ৬টা ৫ মিনিটের দিকে টঙ্গীর টাম্পাকো ফয়লস লিমিটেড কারখানায় নিচতলায় বয়লার বিস্ফোরণ ঘটে। এরপর কাখানায় আগুন ধরে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ২৯টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। কারখানাটি পাঁচ তলা। সেখানে রাতের শিফটে কাজ করছিলেন শ্রমিকরা। বিস্ফোরণের পর ভবনটি ধসে পড়েছে।

‘গাজীপুরের পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ জানান, ‘আগুন লাগার খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে যায়। সেখানে যাতে কোনও ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা বিঘ্নিত না হয়, সেজন্য পুলিশ সদস্যরা সতর্কতা অবস্থায় রয়েছে। এছাড়া আশেপাশের ভবনগুলোতে আগুন যাতে ছড়িয়ে না পড়ে এবং আহত-নিহতদের উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিসকে সহযোগিতা করছে। ফায়ার সার্ভিসের কাজের সুবিধার্থে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলের আশেপাশে অবস্থান নিয়ে উৎসুক জনতাকে সরিয়ে দিয়েছে। যাতে জানমালের ক্ষয়-ক্ষতি কমিয়ে আনা যায়।’
পুলিশ সুপার আরও বলেন, ‘এতোবড় ঘটনার পর এখন পর্যন্ত মালিকপক্ষের কেউ পুলিশ কিংবা ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। তারা কোনও সহযোগিতাও চায়নি।’

Spread the love