রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

টাকা পরিশোধের পর জমি রেজিষ্ট্রারী চাওয়ায় ফুলবাড়ীতে গৃহবধুকে পিটিয়ে হাত-পাঁ ও বাড়ীঘর ভেঙ্গে দিয়েছে প্রতিপক্ষরা

 

শেখ সাবীর আলী ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) : টাকা পরিশোধের বাড়ীর জমি রেজিষ্ট্রারী চাওয়ার অপরাধে পিটিয়ে এক গৃহবধুর হাত-পাঁ ভেঙ্গে দিয়ে বাড়ী-ঘর গুড়িয়ে দিয়েছে প্রতিপরা। হাত-পাঁ ভাঙ্গা শরীর নিয়ে এখন হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছে ঐ গুহবধু রোস্তমা বেগম (৩০)ু।

 

এই লোম হর্ষক ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল সোমবার সকাল ৯ টায় দিনাজপুরের ফুলবাড়ী পৌর এলাকার চক-সাহাবাজপুর গ্রামে।

 

গৃহবধু রোস্তমার স্বামী রিক্সা চালক মন্টু মিয়া বলেন, গত ১৮ বছর পুর্বে তার চাচা খয়বর সরকারের নিকট ৬০ হাজার টাকায় ৩ শতক জমি কিনে ঐ জমিতে ঘরবাড়ী নির্ম্মান করে বসবাস করে আসছেন তিনি। কিন্তু খয়বর সরকার জমিটি এখন পর্যন্ত তাকে রেজিষ্ট্রারী দলিল করে দেয়ার ব্যাপারে টালবাহানা শুরু করে। আর এই জমি রেজিষ্ট্রারীকে কেন্দ্র করে তার সঙ্গে প্রায় ঝগড়া বিবাদ হয়ে আসছিল। ঘটনাটি নিয়ে কয়েক দফায় গ্রাম্য সালিসও হয়েছে, সেই সালিসে খয়বর হোসেন বারবার জমি রেজিষ্ট্রারী করার প্রতিশ্র“তি দিয়ে আসছিল। কিন্ত কোন ভাবে সে সময় মত রেজিষ্ট্রারী অফিসে গিয়ে জমি রেজিষ্ট্রারী দেয়নি। এরই ফাকে মন্টু মিয়া রিক্সা চালাবার জন্য ঢাকায় গেলে খয়বরের ছেলে ঐ গৃহবধুকে কু-প্রস্তাব দেয়, এই ঘটনা মন্টু মিয়ার স্ত্রী রোস্তমা বেগম মন্টু মিয়াকে জানালে মন্টু মিয়া ঢাকা থেকে বাড়ীতে চলে আসে এবং গ্রামের কয়েক জন মহৎ ব্যাক্তিদের অবহিত করেন। এতে গ্রামবাসী খয়বর সরকারের ছেলের কান্ড তাকে বলে সামাজিক বিচার করার হুমকি দিলে, খয়বর হোসেন ও তার ছেলে জাম্বু (৩৫) প্তি হয়ে তাকে তার জায়গা থেকে চলে যাওয়ার হুমকি দেয় এবং গত রোববার রাত ৮টায় তার বাড়ীর ঘেরা বেড়ায় আগুন ধরিয়ে দেয়। এ সময় গ্রামবাসীদের প্রচেষ্টায় আগুন নিভিয়ে ফেলে এবং তিন দিনের মধ্যে এই ঘটনার বিচার করার সিদ্ধান্ত নেয় গ্রামবাসী। এতে আরো প্তি হয়ে গতকাল সোমবার সকাল ৯ টায় খয়বর সরকার ও তার ছেলে জম্বুসহ তার বাড়ীর সকল সদস্য একত্রিত হয়ে মন্টুমিয়ার বাড়ীতে হামলা করে এবং বাড়ীতে মন্টু মিয়ার স্ত্রী গৃহবধু রোস্তমাকে একা পেয়ে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে তার হাত পাঁ ভেঙ্গে দিয়ে বাড়ীঘর গুড়িয়ে দিয়েছে। এই ঘটনায় আহত অবস্থায় গৃহবধূ রোস্তমাকে গ্রামবাসীরা উদ্ধার করে ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। বর্তমানে সেখানে পঙ্গু বিভাগে তিনি চিকিৎসাধীন আছেন।

সংশ্লিষ্ট পৌর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোতাহার হোসেন, ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, দির্ঘ দিন থেকে ঘটনাটি নিয়ে গ্রামে দেন দরবার চলে আসছিল, কিন্তু গ্রামবাসীর কোন কথায় কর্নপাত করে নাই খয়বর সরকার। তারা উল্টো ঐ পরিবারটিকে উচ্ছেদ করার জন্য অত্যাচার চালিয়ে আসছিল। একই কথা বলেন চক-সাহাবাজপুর গ্রামের বাসীন্দা খয়রাত হোসেন, খেরাজ উদ্দিন, বূরবুলি বেগম, সাব্বির হোসেনসহ গ্রামবাসীরা।

এই বিষয়ে কথা বলার জন্য খয়বর সরকার ও তার ছেলে জম্বুকে খোজ করেও পাওয়া যায়নি, কথা হয় খয়বর সরকারের মেয়ে বেগম বানুর সাথে, তিনি বলেন রাতে তার পিতা খয়বর সরকারকে সামাজিক ভাবে হেয়প্রতিপন্ন করেছে রোস্তমা। সেই কারণে আমরা তাকে শাস্তী দিয়েছি। খযবর সরকারের ভাতিজা আতিয়ার সরকারের নিকট ঘটনাটি জানতে চাইলে, আতিয়ার সরকার বলেন মেয়েটির মুখের ভাষা খারাপ তাই বাড়ীর মেয়েরা তাকে মার-ডাং করেছে।

এদিকে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গ্রামবাসীর মধ্য চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। পৌর কাউন্সিলর মোতাহার হোসেন গ্রামবাসীকে আইন হাতে তুলে না নেয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন। তিনি বলেন আইন দ্বারা এই লোম হর্ষক ঘটনার বিচার করা হবে।SANYO DIGITAL CAMERA

 

Spread the love