রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

টানা হরতালে তিগ্রস্ত হচেছ পঞ্চগড়ের পাথর শিল্প

কামরুজ্জামান টুটুল,পঞ্চগড়, প্রতিনিধি: দেশের সর্ব উত্তরের জেলা পঞ্চগড় ভুগর্ভস্থ নূরি পাথরে জন্য খ্যাত । জেলার জনগোষ্টির বিরাট একটি অংশ এই পাথর উত্তোলন ও প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পের উপর নির্ভরশীল। আর এই পাথর শিল্পকে ঘিরে সৃষ্টি হয়েছে জেলার প্রায় ৪০ হাজার শ্রমিক মানুষের কর্মসংস্থান। বিএনপির নেতৃত্বাধিক ২০ দলের ডাকে চলমান টানা অবরোধ আর হরতালে মহাবিপাকে পড়েছে জেলার অন্যতম অর্থনিতির মাধ্যম পথর শিল্প। নেই শ্রমিকদের ব্যস্ততা, মেশিনের পাথর কাটার শব্দ আর ট্রাকের আনাগোনা তাই ব্যবসায়ীরা গুণছে লোকশান আর অর্ধাহারে-অনাহারে দিন কাটছে শ্রমিকেরা।

 

 

পঞ্চগড় জেলার মানুষের অন্যতম অর্থনৈতিক মাধ্যম খনিজ সম্পদ পাথর। এ জেলার ভূগর্ভস্থ নুড়িপাথর দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের নির্মাণ কাজে ব্যাপক চাহিদা। প্রতিদিন প্রায় পাথর নিয়ে যায় দেশের বিভিন্নস্থানে ৪-৫ শ’ ট্রাক বর্তমানে জেলার তেতুলিয়া, আটোয়ারী ও সদর উপজেলার সমতল ভূমি ও নদী থেকে পাথর উত্তোলন করা হয়ে থাকে। জীবিকার তাগিদে প্রায় লাধিক মানুষ পাথর উত্তোলনের পাথর শিল্পের সাথে প্রত্য ও পরোভাবে জড়িয়ে আছে । বিকল্প জীবিকার মাধ্যম না থাকায় পুরুষের পাশাপাশি হাজার হাজার দরিদ্র নারী শ্রমিক পাথর প্রক্রিয়া করন কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। চলমান সময়ে মাটি খনন করে পাথর উত্তোলন, পাথর প্রকৃয়া করণ ও বিক্রি সহ নানা কাজে মহাব্যস্ত থাকবার কথা ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের। কিন্তু ২০ দলের টানা অবরোধ আর হরতালে মহা ভোগান্তিতে পড়েছে ব্যাবসায়ী ও শ্রমিকেরা। পরিবহন না চলায় জেলার পাথর, অন্য জেলায় যেতে পারছেনা। ফলে ব্যাবসা প্রায় বন্ধ হওয়ায় লোকসান গুনছে পথর ব্যাবসায়ীরা। অন্যদিকে কাজ না থাকায় ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে অর্ধাহারে অনাহারে দিন পাড় করছেন শ্রমিকরা। প্রতিদিন কাজের সন্ধানে ঘুরে ঘুরেও কাজ না মেলায় চরম দূর্ভোগে কাটছে পাথর শ্রমিকদের দিন রাত্রী।

 

পঞ্চগড়ের পাথর-বালি ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মোঃ আমানুল্লাহ বাচ্চু, বর্তমানে পঞ্চগড়ে পাথর শিল্পের সাথে জরিযে আছে ৬ হাজার ব্যবসায়ী ও ৪০ হাজার শ্রমিক । টানা অবরোধ ও হরতালের কারনে স্থবির হয়ে পড়েছে পঞ্চগড়ের পাথর শিল্প। মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে পাথর ব্যবসায়ী ও শ্রমিকেরা। অন্যদিকে পাথর ব্যবসাীয় দেলোয়ার হোসেন জানান দিনের পর দিন না খেয়ে দিনপার করছে শ্রমিকদের পরিবারগুলো। তারা আলু সিদ্ধ আর ওল কচুর মত কু-খাদ্য খেয়ে নানা অসুখে ভুগছে।

 

রাজনৈতিক অস্থিরতা অব্যাহত থাকলে জেলার অর্থনীতির অন্যতম মাধ্যম এই পাথর শিল্প মারাত্মকভাবে তিগ্রস্ত হতে পারে। সরকার হারাবে মোটা অংকের রাজস্ব আয়, যার প্রভাব পড়বে জাতীয় অর্থনীতিতে।

Spread the love