বুধবার ৪ অগাস্ট ২০২১ ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

টুং টাং শব্দে আবারও মুখরিত হয়ে উঠেছে কামার পল্লী

মীর কাসেম লালু, ষ্টাফ রিপোর্টার॥ নীরব পরিবেশে হঠাৎ করেই কানে ভেসে আসতো টুং টাং আওয়াজ। নিঃশব্দ পরিবেশটাকে ছাপিয়ে চলতো কামারের হাতুড়ি আর হাঁপড়। আজ সেই টুং টাং শব্দ নেই। আছে শুধু হতাশায় ভরা কর্মহীন কিছু মুখ। যে মুখে এক সময় হাসি ছিলো, মনে খুশি ছিলো, ছিলো পেটে ভাত। এখন সময় আর প্রযুক্তি কেড়ে নিয়েছে কামারদের সব খুশি। মানুষ নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে বিদেশী প্রযুক্তির ওপর। দেশীয় পদ্ধতিতে তৈরি কামার শিল্পের চাহিদাও দিন দিন কমছে।

তবে কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে টুংটাং শব্দে আবারও মুখরিত হয়ে উঠেছে কামার পল্লী। নতুন তৈরী এবং পুরাতন দা-কুড়াল ধারালো করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন বীরগঞ্জের কামাররা।

পৌর সভার একমাত্র কামার পল্লীর প্রবিন কামার মোঃ শাহ আলম (৬৫) বলেন, আমি যখন এই পেশায় আসি তখন আমার বয়স ১৪/১৫ বছর বীরগঞ্জ থানায় তখন ১০০ বেশী দোকান ছিলো। বর্তমানে উপজেলায় ২০/২২টি দোকান আছে। আনুমানিক শত খানেক লোক এই পেশায় কাজ করছে।

জেলখানা পাড়া বাসিন্দা কসিমুদ্দিন জানায়, কয়লা সমস্যার কারণে এখন ঠিকমতো কাজ করতে পারছিনা। বিভিন্ন হোটেল থেকে প্রতি বস্তা কয়লা পাঁচ’শ টাকায় ক্রয় করে আনতে হয়। আগে এক বস্তা কয়লায় দুই দিন চলতো, কিন্তু এখন যায় এক মাস। কাজের অবস্থা খুবই খারাপ। আগে প্রতিদিন প্রায় এক’শটির মতো কাস্তে তৈরী করতাম কিন্তু এখন ১০টিতে এসে দাঁড়িয়েছে। কামারের কাজ করে এখন সংসার চালানো বড় কঠিন, বাচ্চাদের পড়াশুনার খরচ চালাতে খুব কষ্ট হয়।

বর্তমানে কাঁচা লোহা ও উৎপাদনের উপকরণ সমূহের মূল্য বৃদ্বি,উৎপাদিত পন্যের মূল্য হ্রাস, ইস্পাত নির্মিত মেশিনে তৈরি জিনিস পত্রের সঙ্গে অসম প্রতিযোগিতা এবং অর্থাভাবসহ নানা প্রতিকুল পরিস্থিতির কারণে কামারশালা প্রায় হারাতে বসেছে। বাধ্য হয়ে অনেকেই এই পেশা ছেড়ে দিচ্ছে, আবার যারা আকঁড়ে ধরে আছে তারা মানবেতর জীবন যাপন করছে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email