শুক্রবার ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ট্রেন দূর্ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি রবিবার তদত্ম প্রতিবেদন জমা

পার্বতীপুর (দিনাজপুর)প্রতিনিধি :জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে গত বৃহস্পতিবার ট্রেন দূর্ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি আগামীকাল রবিবার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিবেন। কমিটি গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যে ৬ টা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত পার্বতীপুরস্থ এরিয়া অপারেটিং ম্যানেজারের কার্যালয়ে সংশি­ষ্ট ট্রেনের গার্ড, ড্রাইভার, সহকারী ড্রাইভার ও তিন নিরাপত্তা প্রহরীর লিখিত জবানবন্দি গ্রহণ করেছেন। এর আগে কমিটি দুর্ঘটনার স্থান পরদির্শন, প্রতক্ষ্যদর্শীদের সাক্ষ্য গ্রহণ ও হাসপাতালে গিয়ে দূর্ঘটনায় আহত ব্যক্তিদের সাথে কথা বলেন। এছাড়াও, তদন্ত কমিটি জয়পুরহাট রেল স্টেশনে কর্মরত স্টেশন মাস্টারসহ অন্যান্যদের বক্তব্য গ্রহণ করেছেন বলে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৫ টায় দূর্ঘটনার পর পর পশ্চিম রেলের বৃহত্তম জংশন পার্বতীপুরের এরিয়া অপারেটিং ম্যানেজার শাহ আলম তালুকদার কে প্রধান করে ৬ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্য ৫ সদস্য হলেন, মিজানুর ইসলাম এসএই ক্যারেজ এন্ড ওয়াগন, সিদ্দিকুল আলম এইএন, কমল কৃষ্ণ গোস্বামী এমই লোকো, আসরাফুল ইসলাম সহকারী কমান্ডেন্ট ও ডাঃ মনজুরুল আলম।

শুক্রবার রাতে নিরাপত্তা প্রহরী আতিকুর রহমান, আলমগীর, আজগার আলী, ড্রাইভার হোসেন মোহাম্মদ সেলিম, সহকারী ড্রাইভার উজ্জল হোসেন ও গার্ড আনোয়ার হোসেন তদন্ত কমিটির কাছে জবানবন্দি প্রদান করেন।

কমিটির প্রধান এরিয়া অপারেটিং ম্যানেজার শাহ আলম তালুকদার জানান, তদন্তের কাজ শেষ হয়েছে। আগামীকাল রবিবারের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদনটি কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেয়া হবে। অপরদিকে পশ্চিম জোনের মহাব্যবস্থাপক আব্দুল আউয়াল ভূঁইয়া কালের কন্ঠকে বলেন, তকদন্ত প্রতিবেন হাতে পেলে কারা এর সাথে জড়িত, সেই সব দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

উলে­খ্য, গত বৃহস্পবিার বিকেল ৫টায় জয়পুরহাট ও পাচঁবিবির মাঝামাঝি খাসবাগুড়ি এলাকায় একটি তেলবাহী ট্যাংকারের ট্রেন থেকে ৬টি ওয়াগন বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। পরে ইঞ্জিন বন্ধ করে ড্রাইভার  ট্রেন দাঁড় করালে বিচ্ছিন্ন হওয়া ওয়াগন পিছন থেকে এসে সজোরে ধাক্কা দিলে তেলবাহী ট্রেনের জয়েন্ট ও অন্যান্য স্থান থেকে পড়ে ১২ ব্যক্তি ন্তুরম্নত্বর আহত ও ৫ জন নিহত হয়। হতাহত হওয়া সকলে জয়পুরহাটসহ বিভিন্ন স্টেশনে ওই ট্রেনে আরোহন করে। তেলবাহী ট্রনটি খুলনা থেকে এসে পার্বতীপুর যাচ্ছিল। অভিযোগ উঠেছে, আরোহীদের সবাই ছিল চোরাকারবারি। তাদের গন্তব্যস্থল ছিল সীমান্তবর্তী রেল স্টেশন হিলি। এদের প্রত্যেকের কাছে ২০ থেকে ৩০ টাকা করে নিয়ে ওই ট্রেনে উঠতে দেওয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ উঠেছে।

Spread the love