সোমবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈলে কেয়ারটেকারের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জমি দখলের অভিযোগ

কবিরুল ইসলাম কবির, হরিপুর (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি ॥ ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈল উপজেলার ধর্মগড় ইউনিয়নের ভদ্রশ্বরী গ্রামে কেয়ারটেকার সিদ্দীকুর রহমানের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে।
জোর পূর্বক মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জমি দখলের অভিযোগে রানীশংকৈল উপজেলার ধর্মগড় ইউনিয়নের ধর্মগড় (পামোল) গ্রামের বজর মোহাম্মদের ছেলে সিদ্দীকুর রহমানের (কেয়ারটেকার) বিরুদ্ধে রানীশংকৈল থানায় ও পুলিশ সুপার বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেন মুক্তিযোদ্ধার ছেলে ও জমির মালিক তাহজীব রশিদ।
সিদ্দীকুর রহমান রানীশংকৈল উপজেলার ধর্মগড় ইউনিয়নের ধর্মগড় (পামোল) গ্রামের বজর মোহাম্মদের ছেলে।
জমির মালিক তাহজীব রশিদ যশোর জেলার যশোর সদর থানার ডিসি এসপি এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর অবঃ বজলুর রশিদের ছেলে।
লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার ধর্মগড় মৌজার জেএল ৫ নম্বরের অধীন ১/৬৩ নম্বর খতিয়ানের (হাল নং ৬৫) ও খারিজ ৯৪৫ নম্বর খতিয়ান ৮২, ১০৪/১৭৪, ১০৪/১৭৩, ১০৩, ১০৪ ও ১০৬ নম্বর দাগে ১৫ একর জমি ১৯৯০ সালে বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর অবঃ বজলুর রশিদ ক্রয় করে উক্ত জমি ভোগদখল করে চাষাবাদ করতে থাকেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর অবঃ বজলুর রশিদ মৃত্যুর পরে উক্ত জমি দেখাশুনা এবং চাষাবাদ করেন তার ছেলে তাহজীব রশিদ।

পৈত্রিক সূত্রে জমির মালিক তাহজীব রশিদের বাড়ি অনেক দূর হওয়ায় সে তার ভোগ দখলে থাকা ৭ একর ৫০ শতক জমি দেখাশুনা করার জন্য রানীশংকৈল উপজেলার ধর্মগড় ইউনিয়নের ধর্মগড় (পামোল) গ্রামের বজর মোহাম্মদের ছেলে সিদ্দীকুর রহমানকে কেয়ারটেকার হিসাবে রাখেন। কেয়ারটেকার সিদ্দীকুর রহমান উক্ত জমি বাৎসরিক চুক্তি হিসেবে নিজেই চাষাবাদ করেন এবং প্রতি বছর বাৎসরিক চুক্তির ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা জমির মালিক তাহজীব রশিদকে পরিশোধ করতে থাকেন। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে গত দুই বছর ধরে বাৎসরিক চুক্তির টাকা মালিক তাহজীব রশিদকে পরিশোধ না করে টালবাহানা করতে থাকে কেয়ারটেকার সিদ্দীকুর রহমান। সিদ্দীকুর রহমানের কর্মকান্ড সন্দেহ হলে ও বাৎসরিক চুক্তির টাকা না পাওয়ার কারণে জমির মালিক তাহজীব রহমান কেয়ারটেকার সিদ্দীকুর রহমানকে তার জমি ছেড়ে দিতে বলে এবং তাকে কেয়ারটেকার থেকে অব্যাহতি দিয়ে রানীশংকৈল উপজেলার ধর্মগড় ইউনিয়নের ধর্মগড় (পামোল) গ্রামের মৃত আলিম উদ্দীনের ছেলে আঃ মান্নানকে কেয়ারটেকারের দায়িত্ব দেন। এতে পূর্বের কেয়ারটেকার সিদ্দীকুর রহমান জমির মালিকের প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে জমি না ছাড়া হুমকি প্রদান করে জোর পূর্বক উক্ত জমিতে হাল চাষ করার চেষ্টা করেন।
তাহজীব রশিদ বলেন বর্তমান কেয়ারটেকার আঃ মান্নানকে সঙ্গে নিয়ে গত ১৩/০৬/২০২১ইং তারিখে আমার জমির চতুর্থ পাশে ইউক্লিপটাস গাছ রোপণ করিলে সিদ্দীকুর রহমানসহ তার লোকজন উক্ত গাছ ভাঙ্গিয়া ফেলে আমার ৫০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করেন। এ সময় তাদের বাধা প্রদান করলে সিদ্দীকুর রহমানসহ তার লোকজন আমাদের মারপিট করে গুরুত্বর জখম করে। এ ঘটনার জন্য সিদ্দীকুর রহমানসহ ৫/৭ বিরুদ্ধে একটি রানীশংকৈল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি।
তিনি আরো বলেন গত ১৬/০৭/২০২১ইং সকাল ১০টার দিকে আমি বর্তমান কেয়ারটেকার আঃ মান্নানকে সঙ্গে নিয়ে জমিতে হালচাষ করতে গেলে সিদ্দীকুর রহমানসহ তার লোকজন আমাকে হালচাষে বাধা প্রদান করেন এবং সিদ্দীকুর রহমান বলেন এই জমি নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করলে তোমাকে খুন-জখম করে জমির সাধ মিটাইয়া দিবো এবং তিনি অকথ্য ভাষায় গালাগালি ও জীবননাশের হুমকি করেন। আমার জমি উদ্ধারের জন্য পুলিশ সুপার বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। তাহজীব রশিদ আফসোস করে বলেন আমি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার ছেলে। আমার পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া জমি অন্যরা জোর পূর্বক দখল নিয়ে নিবে। আমি প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করেও কার্যত কোন ফল পাইলাম না। বিষয়টি আমি কোনো মতে মেনে নিতে পারছিনা। তাই আমি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হয়ে প্রশাসনসহ মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর নিকট আকুল আবেদন করছি আমার জমি উদ্ধারের জন্য কার্যত ব্যবস্থা নেওয়ার।
বীর মুক্তিযোদ্ধা মুক্তিযোদ্ধা মেজর অবঃ বজলুর রশিদের ছেলের জমি দখলের অভিযোগ বিষয়ে কেয়ারটেকার সিদ্দীকুর রহমানের সঙ্গে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করে বলেন পরে কথা বলবো বলে ফোন কেটে দেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email