শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে ইফতারে মেশানো হচ্ছে বিষাক্ত রাসায়নিক রং

ঠাকুরগাঁও : রমজানের প্রথম দিন থেকেই ঠাকুরগাঁওয়ের অধিকাংশ হোটেল রেস্তোরাঁ ও ফাস্ট ফুডের দোকানে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে ইফতার সামগ্রী। আর এ সকল ইফতার সামগ্রীকে আকর্ষণীয় করে তুলতে মেশানো হচ্ছে বিষাক্ত রাসায়নিক দ্রব্য ও রং।

ডা: জাহাঙ্গীর আলম জানান, ইফতার সামগ্রী পেঁয়াজু, বেগুনি, ছোলা, হালিম, চপ, জিলাপি, খেজুর, মৌসুমি ফল, এমনকি মুড়িতেও কোনো না কোনোভাবে ভেজাল সামগ্রী ব্যবহৃত হচ্ছে। এসব খাবারে উপস্থিত ক্ষতিকর কার্সিনোজেনিক রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহারের ফলে ডায়রিয়া, আমাশয়সহ স্বল্প মেয়াদী রোগে আক্রান্ত হচ্ছে সাধারন মানুষ। যা মানুষের শরীরে প্রবেশ করে সৃষ্টি করছে রোগ। তাছাড়া বিষক্রিয়াসহ লিভার ও অন্ত্রে প্রদাহ এমনকি মরণব্যাধি ক্যান্সারও হচ্ছে।

ঠাকুরগাঁও চৌরাস্তা, কালিবাড়ি, বাসস্ট্যান্ড, গোধুলী বাজার, সত্যপীর ব্রিজ বাজার, কলেজ পাড়া, গোবিন্দনগর, রোড এলাকায় সহ শহরের যেখানে সেখানে ব্যাঙের ছাতার মত ছোট ছোট দোকান বসিয়ে ইফতার সামগ্রী তৈরি হচ্ছে। আলুর চপ, পেঁয়াজু, বেগুনি, ছোলা, বুট, বুন্দিয়া এবং শসা বেশি বিক্রি হতে দেখা গেছে।

ঠাকুরগাঁওয়ে ভেজাল বিরোধী অভিযান, ভ্রাম্যমাণ আদালত, র‌্যাব-পুলিশের রমজানে অভিযান চলছে। জব্দকৃত ভেজাল খাদ্য ও মালিকদের জরিমানা করা হচ্ছে। কিন্তু কমছে না তাদের দৌরাত্ম্য। এর ফাঁকেও চলছে ভেজাল ইফতার সামগ্রীর রমরমা ব্যবসা। ইফতারের অপরিহার্য পাঁচটি সামগ্রী হলো ছোলা, পেঁয়াজু, বেগুনি, মুড়ি ও জিলাপি। তার প্রতিটিতেই নানাভাবে ভেজাল মিশানো হয়। মুড়ি ছাড়া ইফতার কল্পনা করা যায় না। সেই মুড়ি আকারে বড় ও সাদা করতে ব্যবহৃত হচ্ছে ট্যানারির বিষাক্ত রাসায়নিক সোডিয়াম হাইড্রো সালফাইড বা হাইড্রোজ। অথচ এ রাসায়নিক পদার্থটি মিলে কাপড়ের সাদা রং করতে ব্যবহৃত হয়। ক্রেতাদের আকর্ষণে ভেজাল এ মুড়িই বাজারে বিক্রি করছে একশ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী।

বেগুনি, পেঁয়াজু, চপ কিংবা জিলাপিতে ব্যবহৃত হচ্ছে কাপড়ে ব্যবহৃত রং বা ট্রেটাইল কালার। কম খরচে বেশি লাভের আশায় এক শ্রেণীর ইফতার বিক্রেতা কাপড়ে ব্যবহারের রং ইফতার সামগ্রীতে ব্যবহার করছে।

জানা যায়, এক কেজি ট্রেটাইল কালারের বর্তমান বাজার মূল্য ৪ থেকে ৫শ’ টাকা। সেখানে এক কেজি ফুড কালারের মূল্য প্রায় ১২ হাজার টাকা। মিষ্টি জাতীয় দ্রব্য তৈরিতে ব্যবহৃত হচ্ছে ভেজাল চিনি। এর রাসায়নিক নাম সোডিয়াম সাইক্লামেট। মিষ্টি জাতীয় দ্রব্যকে অধিকতর মিষ্টি করতে ব্যবহৃত হচ্ছে স্যাকারিন, সুকরালেস ইত্যাদি। মিষ্টিকে বিভিন্ন রং দিতে ব্যবহৃত হচ্ছে ট্রেটাইল কালার। মসলায় ভেজাল আরো বেশি। বেসনের পরিবর্তে ব্যবহৃত হচ্ছে আটা। আটায় হলুদ রং ব্যবহার করায় তা বেসনের রং ধারণ করছে।

এছাড়া রসনা বিলাসের চাহিদা মিটাতে আরো কিছু আইটেম থাকে। তাতে ভেজালও থাকে সম্পরিমাণে। হালিমে মাংসের দেখা মিলে খুব কম, মিশানো হয় আগের দিনে অবিক্রীত ডাল ও মাংসের উচ্ছিষ্ট। ইফতারে ফল কিংবা ফলের জুস রোজাদারদের খুব পছন্দ। কিন্তু বাজারের প্রায় সকল ধরনের ফলে মিশানো হয় রাসায়নিক দ্রব্য।

এ ধরনের অপরাধ দমনে ঠাকুরগাঁওয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল মোমিন জানান, রমজান মাসে পবিত্রতা রক্ষায় জেলা প্রশাসন ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মনিটরিং করে আসছে। ভেজাল জিনিসপত্রের জন্য জরিমানা করা হচ্ছে। পুরো রমজান মাসে এই ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধমে সকল বিষয় তদারকি করা হবে।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email