শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে কৃষক ও মৌচাষী উভয়েই লাভবান হচ্ছেন

রবিউল এহসান রিপন ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: জন্মের পর নবজাতকের মুখে মধু দেওয়া পুরোনো রীতি৷ ভেষজ গুণের এই তরল রোগবালাই দূরে রাখে, শরীরকে রাখে ভালো৷ তাই গ্রামবাংলা, এমনকি শহরের মানুষের কাছে রয়েছে এর আলাদা কদর৷ ফুল থেকে ফুলে ঘুরে মৌমাছি মধু আহরণ করে মৌচাকে জমায়৷ আর সেই চাক থেকে সংগ্রহ করা হয় মধু৷ ঔষধি গুণাবলির জন্যই হোক, আর খাঁটি মধুর খানিকটা দুষ্প্রাপ্যতার জন্যই হোক, মধুর দাম একটু বেশিই৷ মধু-চাষে তাই লাভও বেশি৷

 

ঠাকুরগাঁওয়ের কয়েকজন মৌ চাষী এবার লিচু বাগানে মৌ মাছির বাক্স বসিয়ে মধু আহরণ করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন৷ এর ফলে একদিকে যেমন মৌ চাষীরা মধু সংগ্রহ করে লাভবান হচ্ছেন, অন্যদিকে মৌ মাছির মাধ্যমে মুকুলে মুকুলে পরাগায়ন ঘটায় লিচু বাগান মালিকরা বাম্পার ফলনের আশা করছেন৷

 

বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাস আম, কাঁঠাল ও লিচুর মৌসুম৷ এ সময় আম ও লিচুর বাগানে মৌমাছির বাক্স রেখে মধু সংগ্রহ করেন তারা৷ এরপর হাত গুটিয়ে বসে থাকতে হয় না৷ মৌমাছির ঘর নিয়ে যান বিভিন্ন স্থানে৷ তাদের পালিত মৌমাছির দল কখনো বাগান, কখনো খেত, আবার কখনো বিল-ঝিলে ফুটে থাকা ফুল থেকে মধু আহরণ করে৷ যেখানে ফুল, সেখানে মধু ও মৌমাছির চাষ করেন মৌ চাষিরা৷

 

ঠাকুরগাঁও জেলায় বেশ কিছু লিচু বাগান গড়ে উঠেছে৷ প্রতিবছর খরচবিহীন অল্প পরিচর্যায় মোটা অঙ্কের আয় হয় বলে অনেকে লিচুর বাগান করেছেন৷ চলতি বছর ঠাকুরগাঁওয়ের ৫ উপজেলায় ৭০০ হেক্টর জমিতে প্রায় তিন হাজার বাগানে লিচু চাষ হয়েছে৷ বর্তমানে লিচুর বাগানগুলো মুকুলে ছেয়ে গেছে৷

 

ঠাকুরগাঁও গোবিন্দ নগর এলাকার লিচু বাগানগুলোতে বেশ মুকুল ধরেছে৷ এরমধ্যে ব্যবসায়ী সাদেকুল ইসলামের লিচু বাগানটি বড়৷ তার বাগানে পাঁচশতাধিক লিচু গাছ৷

 

পঞ্চগড় এলাকার মনির খান ও রংপুরে ওয়াজেদ আলী নামে দুই মৌ চাষী বাগানে ছোট-বড় বিভিন্ন আকৃতির মৌমাছির বাক্স বসিয়ে বৈজ্ঞানিক উপায়ে মৌ চাষ করে মধু সংগ্রহ করছেন৷

 

মৌ চাষী মনির জানান, প্রশিকা এনজিও ১৯৯৮ সালে অস্ট্রেলিয়া থেকে এপিচ মেইলিফ্রা জাতের মৌ মাছি বাংলাদেশে আনে এবং চাষী পর্যায়ে প্রশিক্ষণ দেয়৷ প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত হয়ে তারাও মধু সংগ্রহ শুরু করে৷ ওই বাগানে তারা শতাধিক ব্র্যান্ড ও নিউক্লিয়াস নামের ছোট-বড় কাঠের বাক্স স্থাপন করেছেন৷ প্রতিটি বাক্সে একটি রাণী মৌমাছি, একটি পুরুষ মৌমাছি ও অসংখ্য কর্মী মৌমাছি রয়েছে৷ কর্মী মৌমাছিরা ঝাঁকে ঝাঁকে লিচুর মুকুলে ছুটে যায়৷ পরে মুকুল-থেকে মধু সংগ্রহ করে মৌমাছিরা নিজ নিজ মৌচাকে এনে জমা করছে৷ ১০-১৫ দিন পরপর প্রতিটি বাক্স থেকে চাষীরা ৬-৭ মণ মধু সংগ্রহ করছেন৷ শুধু স্থানীয়ভাবে নয়, বিভিন্ন কোম্পানির কাছেও তারা মধু সরবরাহ করছেন৷

 

যে লিচু গাছে মৌমাছির আগমন বেশি হয় সে গাছের মুকুলে পরাগায়ন ভালো হয়৷ ফলে ওই গাছে বা বাগানে লিচুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা থাকে বলে জানালেন বাগানের বার্ষিক চুক্তিভিত্তিক মালিক সাদেকুল ইসলাম৷ কাঠের তৈরি শত শত বিশেষ বাক্সের মাধ্যমে মৌ চাষ করে মধু সংগ্রহ করার দৃশ্য দেখে এলাকাবাসী মধু কেনার জন্য লিচু বাগানে ছুটে যাচ্ছেন৷

 

ক্রেতারা জানান, বাজারে খাঁটি মধু পাওয়া যায় না৷ এখান থেকে নির্ভেজাল মধু সংগ্রহ করতে পেরে তারা খুশি৷

 

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক আরশেদ আলী জানান, এবার প্রতিটি বাগানে ভাল মুকুল এসেছে৷ বিভিন্ন বাগানে মৌ চাষ করায় পরাগায়ন বেশী হয়েছে তাই লিচুর ভাল ফলন হবে বলে তিনি আশা করছেন৷ তিনি আরও জানান, বাগানে মৌ চাষ করলে পরাগায়ন বহুল পরিমাণে বৃদ্ধি পায় ফলে ফলনও ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ বৃদ্ধি পায়৷ এতে কৃষক ও মৌচাষী উভয়েরই লাভবান হবে৷ লিচু এবং মধু দু’টি প্রাকৃতিক সম্পদ৷

 

এ দু’টি সম্পদ সংগ্র েসঠিক প্রশিক্ষণ ও বাজারজাতকরণের বিশেষ ব্যবস্থা করা হলে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে লিচু ও মৌচাষীরা মনে করেন৷

 

Spread the love