রবিবার ১৪ এপ্রিল ২০২৪ ১লা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে চাতাল শিল্পের অচলাবস্থা

রবিউল এহসান রিপন,ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : লাগাতার অবরোধের কারণে খাদ্যে উদ্বৃত্ত ও চালকল সমৃদ্ধ ঠাকুরগাঁওয়ে জেলার চালকল মালিকরা উৎপাদিত চাল বিক্রি করতে না পারায় লোকসানের মুখে পড়েছেন। আর এ চাতাল শিল্পের সঙ্গে জড়িত শ্রমিকরা ও চাল পরিবহনের চালক এবং শ্রমিকরা পড়েছেন বিপাকে। তারা বেকার বসে অলস সময় কাটাচ্ছেন।

 

চাতাল এবং চালকল সমৃদ্ধ ঠাকুরগাঁও জেলায় ১৩ শ’ টি রাইস মিল রয়েছে। এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত রয়েছে প্রায় ১০ হাজার শ্রমিক। জেলার বিভিন্ন প্রামত্ম থেকে প্রতিদিন এসব মিলের জন্য হাজার মণ ধান সংগ্রহ করে ঠাকুরগাঁওয়ে আনা হয়।

 

জেলার রাইস মিলগুলোতে উৎপাদিত চাল ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রামেত্ম টাকে সরবরাহ করা হয়ে থাকে। ঠাকুরগাঁও থেকে গড়ে প্রতিদিন ৫০ থেকে ৭০টি চাল ভর্তি ট্রাক ঠাকুরগাঁও ছেড়ে যেত। কিন্তু লাগাতার অবরোধের কারণে ট্রাকসহ সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় ধান-চাল আনা-নেয়া করা যাচ্ছে না।

 

ঠাকুরগাঁও থেকে চাল সরবরাহ বন্ধ থাকায় দৈনিক অর্ধ কোটি টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে মিল মালিকদের। আর এ কারণে ব্যাংক লোনের সুদ ও কর্মচারীদের বেতন দেয়াসহ ইত্যাদি বিষয় নিয়ে চালকল মালিকরা দুশ্চিমত্মায় রয়েছেন।

 

মিলগুলোর গুদামে উৎপাদিত অবিক্রীত চালের পাহাড় জমে গেছে। চাল বিক্রি করতে না পেরে চালকল মালিকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। মাঠ পর্যায়ে কেনা ধান পরিবহন করে সংশিস্নষ্ট মিলগুলোতে আনতে না পারায় এরই মধ্যে অনেক রাইস মিল বন্ধ হয়ে গেছে।

 

এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে বাকিগুলোও বন্ধ হয়ে যাবে বলে আশংকা করা হচ্ছে। আর এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত শ্রমিকরা কাজ না পেয়ে বেকার হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। সেইসঙ্গে চাল পরিবহনে জড়িত ট্রাক চালক ও শ্রমিকরা ভয়ে তাদের গাড়ি রাসত্মায় বের করতে না পেরে অলস সময় কাটাচ্ছেন।

 

জেলার চাতাল ও চালকলগুলোতে কর্মচাঞ্চলতা আর আগের মতো নেই। লাগাতার অবরোধের কারণে চাতাল ও চালকল শিল্পে অচলাবস্থার সৃষ্টি এবং অর্থনীতির চাকা গতিহীন হয়ে পড়ায় চালকল মালিক, চাতাল শ্রমিক, পরিবহন চালক এবং শ্রমিকদের মধ্যে তীব্র অসসেত্মাষ বিরাজ করছে।

 

জয়নাল আবেদীন নামে এক রাইস মিল মালিক বলেন, অবরোধ ও হরতালের জন্য আমাদের ব্যবসা বাণিজ্য স্থবির হয়ে পড়েছে। আমরা মাল প্রডাক্টশন করছি, কিন্তু অবরোধের কারণে মাল পাঠাতে পারছি না। আমাদের মিল চলার জন্য যে পরিমাণ ধান দরকার সে পারিমাণ ধান বাইরে থেকে আনতে পারছি না।

 

বাংলাদেশ অটো মেজর এন্ড হাস্কিং মিল মালিক সমিতির ঠাকুরগাঁও জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মাহামুদ হাসান রাজু জানান, অবরোধ আর হরতালে পরে লোকসান গুনছে সবাই। শামিত্ম শৃংখলা ফিরিয়ে আনতে রাজনৈতিক দলগুলোকে এগিয়ে আসার আহবান।

Spread the love