শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে ছাত্রীকে অসামাজিক কাজে লিপ্ত করায় শিক্ষিকার অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা সালন্দর কামরুল হুদা চৌধুরী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহ-গ্রন্থাগারিক শিক্ষিকা শরিফা খাতুন এক ছাত্রীকে অসামাজিক কাজে লিপ্ত করায় তার অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ করেছে বিদ্যালয়ের ছাত্রীরা।
শনিবার বেলা ১২ টার দিকে ওই শিক্ষিকার অপসারনের জন্য স্কুলের সকল শিক্ষার্থীরা ক্লাশ বর্জন করে মাঠে অবস্থান নেয়।
বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গ্রন্থাগারিক শিক্ষিকা শরীফা সম্প্রতি স্কুলের এক ছাত্রীকে প্রলোভন দেখিয়ে রংপুর নিয়ে যায়। পরে একটি আবাসিক হোটেলে নিয়ে যায় ওই ছাত্রীকে। এ সময় কাজের কথা বলে ওই শিক্ষিকা ছাত্রীকে রেখে বের হয়ে যায়। হঠাৎ হোটেলের ভেতরে দুইজন ঢুকে ছাত্রীর সাথে অশ্লালীন কার্যকলাপের চেষ্টা করে। ছাত্রীর চিকিৎকারে এ সময় আশেপাশের মানুষ ছুটে আসলে ওই দুই জন পালিয়ে যায়। পরে উদ্ধার করে ওই ছাত্রীকে বাসায় নিয়ে আসা হয়।
পরিবারের পক্ষ থেকে স্কুলে গ্রন্থাগারিক শিক্ষিকার বিরুদ্ধে প্রধান শিক্ষক বরাবরে লিখিত অভিযোগ করা হয়। লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে ওই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করে স্কুল কমিটি। তদন্ত কমিটির কাছে অপরাধ স্বীকার করে শিক্ষিকা ক্ষমা প্রার্থনা করেন। পরে ওই শিক্ষিকার অপসারণের দাবিতে দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডে লিখিত অভিযোগ করা হয়। কিন্তু বোর্ডের চেয়ারম্যান স্কুলে গত বুধবার (২৪শে আগষ্ট) এসে ওই শিক্ষিকার বিষয়ে সদয় হওয়ার জন্য সকলকে বলেন। তখন ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠে স্কুলের সকল শিক্ষার্থীরা। ক্লাস বর্জন করে বিক্ষোভ শুরু করে।

কিন্তু শনিবার ওই লাইব্রেরিয়ান শিক্ষিকা স্কুলে আসলে শিক্ষার্থীরা তাকে দেখে উত্তেজিত হয়ে আবার ক্লাশ বর্জন করে বিক্ষোভ শুরু করে।
পরে জেলা শিক্ষা অফিসার শাহিন আক্তার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিয়ে আসেন। এবং বোর্ডের চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলে ঘটনাটি পুনরায় তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন।
তার আশ্বাসের উপর নির্ভর করে শিক্ষার্থীরা ক্লাসে গেলেও তাদের দাবি ওই লাইব্রেরিয়ান শিক্ষিকা স্কুলে আসলে তারা আবারো ক্লাশ বর্জন করবে এবং দ্রুত ওই শিক্ষিকার অপসারনের দাবি জানান শিক্ষার্থীরা।

Spread the love