শনিবার ৩ জুন ২০২৩ ২০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে থেমে থেমে বৃষ্টি, আমন রোপনে সুবিধা

রবিউল এহ্সান রিপন, ঠাকুরগাঁও : অন্যান্য বছরের মতোই এবার ঠাকুরগাঁওয়ে রোপা আমন লাগানো শুরু করেছে কৃষকরা। ইতোমধ্যে লক্ষমাত্রার প্রায় চল্লিশ (৪০) শতাংশ জমিতে রোপা আমন লাগিয়েছে কৃষকরা। বিশেষ করে করে রোপা আমনে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় কৃষকরা আমন লাগাতে সুবিধা পাচ্ছে।

 

জেলায় গত দুই সপ্তাহ থেকে থেমে থেমে গুড়ি বৃষ্টি হওয়াতে উঁচু জমিগুলোতেও কৃষকরা রোপা আমন লাগাতে পারছে। এতে করে উঁচু-নিচু সব জমিতেই সঠিক সমেয় রোপা আমন লাগাতে পারছে কৃষকরা। এভাবে বৃষ্টি না হলে সেচ দিয়ে উঁচু জমিগুলোতে আমন লাগাতে হতো। এর ফলে কৃষকরা অতিরিক্ত টাকা ব্যায় থেকে বেঁচে যাচ্ছে।

 

এদিকে, কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, এবার জেলায় আমনে লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে,  ১ লাখ ৩৩ হাজার ৫ শত ৩৫ হেক্টর পরিমাণ জমি। এর মধ্যে ৫০ হাজার হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে। আরো জানা যায়, গত বছর আমনের চাষাবাদে লক্ষমাত্রার চেয়ে বেশি অর্জিত হয়েছিল। এবারেও আশাবাদী কৃষি বিভাগ।

 

অন্যদিকে, আউলিয়াপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা কৃষক জুমসেদ (৪০) খোভেঁর ভাষায় জানায়, (আঞ্চলিক ভাষা) ভাই হামরা গরিব মানুষ গরিবই থাকিম। হামরালার কি উন্নতি হবে? হামার বাপো ছিল কৃষক তার ছেলেরাও হামরা কৃষক। হামরা যেমন ছিলাম তেমনিই আছি। ধানের কোনো দাম নাই। ধান লাগাতে খরচ বেশি দাম কম।

 

জেলার রায়পুর গ্রামের শিক্ষক জাফরুল ইসলাম জানায়, আমি পেশাগতভাবে শিক্ষক হলেও কৃষি আবাদ করি। এবার দশ (১০) একর জমিতে আমন ধান আবাদ করবো। এর মধ্যে ৬ একর লাগিয়েছি। আসলে ধান আবাদ কৃষিতে কোনো লাভ নেই। আমরা ধান ফলনের পর যে অর্জিত টাকা পাই তার চেয়ে ফসল ফলানোর খরচের পরিমাণ বেশি হয়। এতে করে সাধারণ কৃষকদের গ্রাম্য সমবায় সমিতির লোন কিংবা গ্রামের মহাজনদের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে চলতে হয়।Thakurgaon 2

 

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক আরশেদ আলীর কাছে কৃষকদের সমস্যা সম্পর্কে জানতে চাইলে বলেন, ‘প্রকৃতপক্ষে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার মূল কারণ হচ্ছে ফসল উৎপাদন হওয়ার পর কৃষকরা দ্রুত সময়ে বিক্রি করে দেয়। এতে করে মধ্যস্থ ব্যবসায়ীরা সুবিধা অর্জন করে। মধ্যস্থ ব্যবসায়ীরা সাধারণ কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় করে মজুদ করে রাখে। যখন সরকার নির্ধারিত মূল্যে ধান ক্রয় করে তখন মধ্যস্থ ব্যবসায়ীরা বিক্রি করে লাভবান হয়। যদিও কৃষকরা তাদের প্রয়োজনের তাগিদে ধান বিক্রি করতে বাধ্য হয়। তার পরেও যদি ফসল ফলানোর পর কয়েক সপ্তাহ কষ্ট করে ধান মজুদ করে রাখতে পারে তাহলে কৃষকরা অনেকাংশই ন্যায্য মূল্য পাবে।