বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে পরীক্ষায় অংশগ্রহন করতে পারলোনা ১৬ শিক্ষার্থী

মো: রবিউল এহসান রিপন,ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: পরীক্ষার ফি না দেওয়ায় ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার আরাজী শিংপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের আসন্ন এসএসসি ১৬ জন শির্ক্ষাথীকে নির্বাচনি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে দেয়নি অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।

রবিবার নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশগ্রহন করতে না পারায় হতাশ হয়ে পড়েছেন সেই ১৬ শিক্ষার্থী সহ অভিভাবকেরা।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, পরীক্ষা শুরুর ১০ মিনিট আগে প্রধান শিক্ষক সকল শিক্ষার্থীদের ডেকে বলেন যাদের মাসিক বেতন ও পরীক্ষার ফি বাকি আছে তাদের নির্বাচনি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে দেওয়া হবে না। এতে ওই ১৬ শিক্ষার্থীর বেতন বকেয়া থাকায় পরীক্ষার রুম থেকে বেড় করে দেয় প্রধান শিক্ষক।

শিক্ষার্থীরা প্রধান শিক্ষকের নিকট পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের জন্য বিভিন্ন ভাবে অনুরোধ করে এবং টাকা পরিশোধের জন্য সময় চায়। কিন্তু প্রধান শিক্ষক শিক্ষার্থীদের টাকা পরিশোধের সময় না দিয়ে বিদ্যালয় হতে বের করে দেন।

এ বিষয়ে দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী আশরাফুল, রতন, গৌরব, অমল পলাশ, অন্তরা, লাকী বলেন, আমরা ২০১৭ সালে আরাজী শিংপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় হতে ৪৩ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবো। ২-১ জন বাদে সকলে পরীক্ষার ফি দিছি তবে আমাদের ৪-৫ মাস করে মাসিক বেতন বাকি আছে। তাই স্যার আমাদের পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে দিলেন না।

শিক্ষার্থী রতনের বাবা ধনজয় বলেন, আমরা গরীব মানুষ কষ্ট করে ছেলে মেয়েদের পড়ালেখা করাচ্ছি। ছেলের কয়েক মাসের বেতন দিতে পারি নাই তার জন্য আমার ছেলেকে পরীক্ষা দিতে দিলোনা স্যার। এখন আমরা হতাশ হয়ে পড়েছি তারা হয়তো এসএসসি পরীক্ষা দিতে পারবে না।

আরেক শিক্ষার্থী আশরাফুলের বাবা কাশেম বলেন, সরকার যদি শিক্ষার্থীদের বেতন নেওয়া বন্ধকরে তাহলে আমরা গরীব মানুষেরা উপকৃত হব।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম বলেন, শিক্ষার্থীরা বেতন না দিলে বিদ্যালয় কি ভাবে চালাবো। আগে নোটিশ দিছি তাই যে সকল শিক্ষার্থীরা বেতন পরিশোধ করেনি তাদের পরীক্ষায় অংশ করতে দেয়নি।

সালান্দর ইউপি চেয়ারম্যান মাহাবুব হোসেন মুকুল বলেন, প্রধান শিক্ষকের উচিত ছিল , শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা হতে বিরত না রেখে পরীক্ষা নিয়ে টাকা পরিশোধের সময় দেওয়া।

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক আব্দুল আওয়াল জানান, আমি বিষয়টি নিয়ে ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও জেলা শিক্ষা অফিসারের সাথে কথা বলে বিষয়টির সমাধান করছি

Spread the love