শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্যস্ত সময় পার করছেন ঠাকুরগাঁওয়ের নারীরা

Thakurgan Karuসামনে ঈদ। আর এ ঈদকে ঘিরে ব্যস্ত হয়ে উঠেছে ঠাকুরগাঁওয়ের কয়েকটি গ্রামের নারীরা।  সংসারের কাজের পাশাপাশি দিন রাত পরিশ্রম করে শাড়ী ও বিভিন্ন কাপড়ে জরি, পুথি সহ বিভিন্ন ব¬ক বসানোর কাজ করছে। এতে করে তাদের বাড়তি আয়ের প্রত্যাশা থাকলেও মজুরী কম হওয়ায় হতাশ তারা।
ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার শিবগঞ্জ, মুন্সিরহাট, চিলারংসহ আশেপাশের ৭টি গ্রামের ৭ শতাধিক নারী এখন হাতের কাজ করে বাড়তি আয় করছেন। শাড়ীতে জরি ও পুথি বসানোর কাজ করে সংসারের অভাব ঘোচানোর পাশাপাশি স্বাবলম্বী হচ্ছেন এইসব নারীরা। সাংসারিক কাজ করেও ফাঁকে ফাঁকে এই কাজ করছেন তারা। শুধু তাই নয়, অভাবী সংসারে জন্ম নেয়া অনেক শিক্ষার্থী যাদের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে গেছে তারাও যুক্ত হয়েছে এই শিল্পের সাথে।
আবার স্বামী হারা অনেক নারী থেমে যাওয়া সংসারের চাকা সচল করতে তারাও নেমে পড়েছেন এই কাজে। তাদের নকশা করা হাজার হাজার শাড়ী প্রতি সপ্তাহে চলে যাচ্ছে রাজধানীর অভিজাত বিপণী বিতানগুলোত। সেখানে প্রতিটি শাড়ী বিক্রি হয় ৫ হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত।
প্রতিটি শাড়ীর হাতের কাজ করতে সময় লাগে কমপক্ষে ৫ দিন। তারপরও এ কাজ পেতে হলে শাড়ী প্রতি জামানত রাখতে হয় এক হাজার টাকা। কোনভাবে শাড়ীর কোন ক্ষতি হলে সেখান থেকে টাকা কেটে নেয়া হয়। মহাজনরা এক একটি শাড়ী ৫ থেকে ২৫ হাজার টাকায় বিক্রি করলেও তাদের মজুরি দেয়া হয় ১৫০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৫শ টাকা বললেন এই এলাকায় হাতের কাজ করা কয়েকজন নারী।
কেউবা এ কাজ করছেন ৫ বছর আবার কেউ ৮ বছর। শাড়ী প্রতি হাতের কাজের পারিশ্রমিক দেড়শ টাকা থেকে শুরু করে ৫শ টাকা পর্যন্ত। দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়লেও বাড়েনি তাদের মজুরী বলে অভিযোগ করলেন কয়েকজন নারী।
শালেহা ও নজনীন বেগম জানান, এ কাজে যে পারিশ্রমিক অনুযায়ী মজুরী কম পাচ্ছি। বসে না থেকে সংসারের প্রয়োজনে বাধ্য হয়েই এ কাজ করছি। আমরা যে কাজ করি তাতে যদি সরকারি বা বেসরকারি কোন সংস্থা এগিয়ে আসতো তাহলে সংস্থাটির পাশাপাশি আমরাও লাভবান হতে পারতাম। মুন্সিরহাট এলাকার সাইফুল আলম জানান, সংসারে অভাব, তাই স্ত্রী এ কাজ করছেন। তবে পরিশ্রম হিসেবে যদি পারিশ্রমিকটা ঠিকমত দিতো তাহলে সংসারে স্বচ্ছরতা আসতো।
দরিদ্র এসব নারীর পাশে এসে দাঁড়িয়েছে ঢাকার যুবক সোহেল খান। তিনি শাড়ীতে নকশাঁর শীল বসিয়ে পাঠিয়ে দেন ঠাকুরগাঁওয়ের ওই নারী কর্মীদের কাছে। তারা সেই শাড়ী সংগ্রহ করে নিপুন হাতে জরি ও পুঁথি বসানোর কাজ করে। এই নারী কর্মীদের কাজ করা শাড়ী ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকায় পাঠানো হয়।
ঠাকুরগাঁও জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মোরশেদ আলী জানান, জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের নারীরা হাতের কাজ ও বিভিন্ন ধরনের সুড়ির কাজ করে সাবলম্বী হচ্ছে। কিন্তু অনেক নারী তাদের শ্রমের নায্য মূল্য পাচ্ছেন না। সেখানে সুবিধা ভোগ করছে ব্যবসবায়িরা। জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মাধ্যমে তারা বাহিরের লোকদের সাথে কাজ করলে হয়তো তাদের কাছ থেকে ন্যায্য মজুরী আদায় করে দেয়া সম্ভব। তবে সরকারি বা বেসরকারিভাবে কেউ এগিয়ে এলে তাদের আত্মকর্মসংস্থানের এ লড়াই অনেকদুর আগাবে বলে তিনি আশা পোষন করেন।