মঙ্গলবার ১৬ অগাস্ট ২০২২ ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে সওজের কাজ না পাওয়ায় ঠিকাদারদের টেন্ডার বাতিলের চক্রান্ত

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁও সড়ক ও জনপদ বিভাগের একটি কাজ না পাওয়ায় প্রকৌশলীকে লাঞ্ছিত করার পর এবার টেন্ডার বাতিলের চক্রামেত্ম লিপ্ত হয়েছে কাজ না পাওয়া কিছু ঠিকাদার।

 

গত মঙ্গলবার এসব ঠিকাদার ঠাকুরগাঁও সড়ক ও জনপদ বিভাগের অফিস ঘেরাও করে প্রকৌশলীকে লাঞ্ছিত করে অফিসের কাগজ পত্র তছনছ করার পর এবার কৌশল বেছে নিয়েছে তারা টেন্ডার বাতিলের। টেন্ডারটি বাতিল করতে ইতোমধ্যে কিছু ঠিকাদার বিভিন্নস্থানে তদবির শুরম্ন করেছেন।

 

ঠাকুরগাঁয়ের মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল ঠাকুরগাঁও-পীরগঞ্জ সরম্ন সড়কটি প্রসসত্মকরণের। অবশেষে সেই দাবি বাসত্মবায়নের রূপ নিলেও থমকে যেতে বসেছে কিছু ঠিকাদারের ষড়যন্ত্রের কাছে।

 

জানা গেছে, ই-টেন্ডারের মাধ্যমে ঠাকুরগাঁও হতে পীরগঞ্জ পর্যমত্ম ২২ কিলোমিটার রাসত্মা সংস্কার করণের জন্য ঠাকুরগাঁও সড়ক ও জনপদ বিভাগ থেকে ৫ কোটি ১৮ লক্ষ ৪৬ হাজার ১৫৮ দশমিক ১৬০ টাকার প্রাক্কলন ধরে টেন্ডার আহবান করা হয়। যার আইডি নং ২৯৮৪৫। যথারীতি উক্ত কাজের বিপরীতে ১৪টি সিডিউল বিক্রি হয় এবং টেন্ডার ফেলার শেষদিনে ৯ জন ঠিকাদার সিডিউল ড্রপও করে। এর মধ্যে সঠিকভাবে টেন্ডার দাখিলে ব্যর্থ হওয়ায় ৫ জন ঠিকাদারের সিডিউল অযোগ্য ঘোষণা করা হয়।

 

পরে দিনাজপুর তত্ত্ববধায়ক প্রকৌশলী অফিস ই-টেন্ডারে লটারির মাধ্যমে মো. জামাল হোসেন নামে এক ঠিকাদারকে কাজটি দেওয়া হয়। একারণে ঠাকুরগাঁওয়ের কিছু স্বার্থলোভী ঠিকাদার ওই টেন্ডার বাতিলের জন্য উঠে পড়ে লেগে যায় এবং গত মঙ্গলবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও সড়ক ভবন ঘেরাও করে নির্বাহী প্রকৌশলীকে টেন্ডার বাতিলের জন্য চাপ প্রয়োগ করে। পরে সরকার দলীয় এক নেতার নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী নির্বাহী প্রকৌশলীর কক্ষে ঢুকে তাকে লাঞ্ছিত করে ও দাপ্তরিক কাগজপত্র তছনছ করে। তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসার পূর্বেই সন্ত্রাসী সরে যায়।

 

এ ঘটনায় ঠাকুরগাঁও থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মশিউর রহমান জানান, খবর পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে সড়ক ও জনপদ অফিসে গেলে সন্ত্রাসী পালিয়ে যায়।

 

এ ব্যাপারে ঠাকুরগাঁওয়ের প্রথম শ্রেণির ঠিকারদার মো. মনিরম্নজ্জামান জুয়েল জানান, বর্তমানে ই-টেন্ডারের মাধ্যমে সকল বড় বড় কাজের প্রকল্প বাসত্মবায়ন করা হচ্ছে। ই-টেন্ডারের মাধ্যমে কোনো অবৈধ কাজ করার সুযোগ নেই।

 

এ বিষযে ঠাকুরগাঁও সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী শেখ মো. সোহেল আহম্মদ জানান, টেন্ডার আহবানের পর নিয়ম অনুযায়ী ঠিকাদাররা সিডিউল ড্রপ করে। সঠিকভাবে টেন্ডার দাখিল করতে না পারায় ৫ জন ঠিকাদারের সিডিউল অযোগ্য ঘোষণা করা হয়। তারাই মূলত চেষ্টা করছে টেন্ডারটি বাতিল করতে।

 

তিনি বলেন, ই-টেন্ডারের মাধ্যমে কাউকে কাজ ভাগ করে দেওয়ার সুযোগ নেই। এটি অনলাইনের মাধ্যমেই নিয়ন্ত্রণ করে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। যেহেতু ৩ কোটির উপরের কাজ তাই দিনাজপুর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী অফিস এটি নিয়ন্ত্রণ করেছে। কিন্তু যারা টেন্ডার ড্রপ করেনি তারা অফিসে এসে আমাকে লাঞ্ছিত করেছে।

 

এ বিষয়ে দিনাজপুর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী বুলবুল হোসেন জানান, ই-টেন্ডারে মাধ্যমে ঠিকাদাররা টেন্ডার ড্রপ করলে লটারির মাধ্যমে মো.জামাল হোসেন নামে এক ঠিকাদারকে কাজের জন্য নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। ৩ কোটি টাকার উর্ধ্বে হওয়ায় টেন্ডারের লটারি কাজটা করেছে দিনাজপুর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী অফিস।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email