মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল ২০২৪ ১০ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডিমলায় ডাঃ লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় প্রতিকী ধর্মঘট পালন শত শত রোগীর চরম ভোগান্তি

জাহাঙ্গীর আলম রেজা, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ ডিমলায় হাসপাতালে ডাক্তার লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের সত্তেও ডাক্তাররা প্রতিকী ধর্মঘাট পালন করায় হাসপাতালের বর্হি বিভাগে শত শত রোগী চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে ফিরে গেছে।

 

গত বুধবার ডিমলা সদরের বাবুর হাট গ্রামের পুত্র সৈকত ইসলাম (১৮) শ্বাস কষ্ট জনীত রোগে চিকিৎসা লওয়ার জন্য দুপুরে ডিমলা হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত ডাক্তার ইরফান উর রশিদের নিকট আসে। ডাক্তার চিকিৎসা সেবা প্রদান করে হাসপাতালে ভর্তি করান। ভর্তি রশিদের ফি ১০ টাকা লইয়া রোগীর লোক জনের সাথে ডাক্তার ও হাসপাতাল কর্মচারীদের বাক বিতন্ডা এক পর্যায়ে কর্তব্যরত ডাক্তার ইরফান উর রশিদ কে চিকিৎসা গ্রহনের জন্য্ আসা রোগী সৈকত ইসলাম সহ তার পিতা আবুল কালাম আজাদ, বড় ভাই শাকিল ইসলাম সহ ৫/৬ জন ডাক্তার ইরফান উর রশিদকে শারীরিক লাঞ্ছিত করে। এ সময় হাসপাতালের অন্যান্য ডাক্তার কর্মচারী গণ ডাঃ ইরফান উর রশিদকে উদ্ধার করে এবং চিকিৎসা লইতে আসা রোগী সৈকত ইসলাম (১৮), তার তার পিতা আবুল কালাম আজাদ (৫৫), বড় ভাই শাকিল ইসলাম (২০) কে আটক করে ডিমলা থানায় সোপর্দ করেন। এ ব্যপারে রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ জেড, এ সিদ্দিকী বাদী হয়ে ডিমলা থানায় মামল নম্বর ০৭ তাং ১৪/০১/১৫ইং দায়ের করেন। পুলিশ আটককৃতদের নীলফামারী আদালতে প্রেরণ করেন। ডাঃ ইরফান উর রশিদ লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনায় হাসপাতালে কর্মরত ডাক্তাররা বৃঃপতিবার সকাল ১১ টা থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত হাসপাতাল বর্হি বিভাগে রোগীদের চিকিৎসা প্রদান না করে প্রতীকি ধর্মঘাট পালন করেন। উপজেলার প্রত্যন্ত ও বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা শত শত রোগী চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে ফিরে যায়। ডিমলার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ ও সচেতন মহল জানান, হাসপাতালে যাই ঘটুক না কেন তার যথাযথ আইনত ব্যবস্থা গ্রহন হওয়া সত্তেও ডাক্তারগণের প্রতীকি ধর্মঘট পালন করে বহিরাগত রোগীদের চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্ছিত করা ঠিক হয়নি। উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তা ডাঃ জেড, এ সিদ্দিকী জানান, ডাক্তারদের নিষেধ করা সত্তেও প্রতীকি ধর্মঘট করেছে।

Spread the love