সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডিমলায় বোরো ধানের চারা রোপনে ব্যস্ত কৃষক

জাহাঙ্গীর আলম রেজা, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ বোরো রোপনের উপযুক্ত সময় এখন চাষের জমি তৈরী ও চারা রোপনের ব্যস্ত সময় পার করছেন ডিমলার কৃষকগণ।

কাররই সাথে কথা বলার সময় নেই ডিমলা কৃষকদের জমি তৈরী বোরো ধানের চারা রোপনের কাজে ব্যস্ত সয়ম কাটছেন তারা। ভোর বেলা ঘুম থেকে উঠে সন্ধ্যা অবধি নাওয়া খাওয়া ছেড়ে বোরো ধানের চাষাবাদ কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে এখন। এক কথায় বলা যায় বোরো চারা রোপনের ধুম পড়েছে সর্বত্র ডিমলা উপজেলা কৃষি অফিস জানায় চলতি বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৩ হাজার ৩ শত হেক্টর জমিতে এতে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫৫ হাজার ২৫ মেঃটন। গত মৌসুমে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা ১৩ হাজার ২ শত হেক্টর জমিতে আর চাষাবাদ হয় ১৩ হাজার ৩১০ হেক্টর জমিতে যাহার লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১১০ হেক্টর জমি বেশি চাষাবাদ করা হয়েছিল। ধান উৎপাদন হয়েছিল ৫৬ হাজার ৩৯৫ মেঃটন। বরাবরেই কৃষকগণ বোরো চাষে নানা প্রতিকুল পরিবেশের সম্মুখীন হন এবারো তার ব্যতিক্রম নয়। বোরো চাষের জন্য মূলত রাসায়নিক সার যেমন ইউরিয়া, টিএসপি, পোটাশ। পোকা-মাকড়ের হাত হতে ক্ষেত রক্ষা করতে কিটনাশক প্রয়োজন অত্যবশ্যকীয়। পাশাপাশি পর্যাপ্ত সেচ ব্যবস্থা অতিব গুরুত্বপূর্ন। এ তিনটি মৌলিক চাহিদার কোনটার ঘাটতি হলে ফলোন ভাল আশা করা অসম্ভব। প্রতিকুল আবহওয়া ও উপরোক্ত মৌলিক চাহীদা গুলো পূরণ হলেই কৃষকগণ ভাল বোরো ফলন ঘরে তুলতে পারবেন। বোরো ধানের চারা রোপনের সময় অন্যান্য সময়ের চেয়ে বেশী পরিমান রাসায়নিক সার প্রয়োগ করতে হয়। বোরোর চারা রোপনের শুরুতে টানা বিরতিহীন অবরত বিচ্ছিন্ন হরতাল পরিবহন ক্ষেত্রে চরম বিপর্যায় হওয়ায় পর্যাপ্ত রাসায়নিক সার ও জ্বালানী তেল ডিজেল সরবরাহের ক্ষেত্রে বড় ধরনের বাধা হয়ে দাড়িয়েছে। বর্তমান কৃষকদের পরিমিত সার ও তেল সরবরাহ করতে হিমসিম খেতে হচ্ছে। কৃষকগণ আশংকা করছেন এভাবে টানা অবরধ ও বিচ্ছিন্ন হরতাল চলতে থাকলে বোরো চাষে বড় ধরনের বিপর্যায় ঘটতে পারে। এছাড়া নীলফামারী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি অনিদৃষ্ট কালের জন্য সেচ সংযোগ বন্ধ রাখায় কৃষকগণ বোরো চাষের সেচ কাজে বাধা গ্রস্থ হচ্ছেন। বিকল্প হিসেবে ঐ সব সেচ এলাকায় ডিজেল চালিত ইঞ্জিন স্যালো মেশিন দিয়ে পানি উত্তোলন করে জমিতে সেচ দিতে হয় সেক্ষেত্রে বোরো চাষে জ্বালানি তেল ডিজেলের আব্যশকীয়তা কোন অংশে কম নয়। মূলত নীলফামারী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কর্তৃক সরবারহকৃত বিদ্যুৎ এবং দেশের সর্ববৃত্তৎ তিস্তা ব্যারেজ সেচ কার্যক্রমের উত্তরাঞ্চল তিস্তা ব্যারেজ সেচ প্রকল্পের নির্মিত ক্যানেলের মাধ্যমে সেচ এলাকার পানি সরবারাহ করা হয়। নীলফামারী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার মো: এনামুল হক প্রামানিক জানান তার অধিনস্থ বিদ্যুতায়ন এলাকা গুলোতে সেচ সুবিধার জন্য ইতি মধ্যে অন্য সময়ের চেয়ে বেশী গুরুত্ব দিয়ে সর্বক্ষনিক বিদ্যুৎ সরবরাহ করছেন এবং সর্বক্ষনিক বিদ্যুৎ সরবারহে যেন ব্যাঘাত না ঘটে সেদিকে খেয়াল রেখে মনিটরিং করা হচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড ডালিয়া পউর বিভাগের ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলী মাহাবুবুর রহমান, জানান তার অধিন্থ সেচ এলাকা গুলোতে প্রধান সেচ খাল ও শাখা সেচ খাল গুলো সংস্কারের মাধ্যমে তিস্তা নদী হতে গত ২১ জানুয়ারী থেকে পানি সরবারাহ শুরু করেছে ইতি মধ্যে কৃষকগণ সেচ সুবিধা পাচ্ছেন। কৃষকগণ যেন পর্যাপ্ত সেচ সুবিধা পায় সে ব্যপারে তিনি সর্বক্ষনিক সরকারের মাধ্যমে ভারত সরকারের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলছেন।

Spread the love