রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডিমলায় ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল ঘোষনায় অনিয়মের অভিযোগ

জাহাঙ্গীর আলম,ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডিমলায় শনিবার ৬ষ্ঠ শ্রেনীতে ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অনিয়মের প্রতিবাদে ইউএনও কে লক্ষ করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করেছে অভিভাবক বৃন্দ।

 

শনিবার উপজেলার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেনীতে ভর্তি পরীক্ষায় ডিমলা আর বি আর বিদ্যালয়ে অংশ গ্রহন করে ২৯৪ জন ও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ২২৬ জন শিক্ষার্থী। তালিকাভুক্ত করা হবে উভয় বিদ্যালয়ে ৬০ জন করে শিক্ষার্থীকে। শনিবার ভর্তি পরীক্ষা শুরু করা হয় বেলা ১১ টায় এবং শেষ করা হয় দুপুর ১ টায়। পরীক্ষা শেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল করিম খাতা নিয়ে আসেন তার দপ্তরে। পরে খাতাগুলির নাম রোলের পাতা ছিড়ে নিয়ে তা দুই বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দিয়ে নম্বর বসিয়ে নেন। অভিযোগ উঠেছে,ভর্তি পরীক্ষার ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি সু-নিদৃষ্ট কমিটি থাকলেও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে কমিটির বাকী সদস্যদের বৃদ্ধাঙ্গলী দেখিয়ে নীজ খেয়ালখুশি অনুযায়ী একাই প্রশ্নপত্র তৈরী করেন।

 

এব্যাপারে ভর্তি কমিটির সদস্য ডিমলা আরবিআর সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আবু জাফর মোহম্মদ মুহতাসিন বিল্লাহ, ডিমলা সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা কহিনুর,উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ জেড এ সিদ্দিকী ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আহসান হাবীবের সাথে কথা বলেস্ন,তারা বলেন ভর্তি কমিটিতে সদস্য হিসেবে আমরা থাকলেও প্রশ্নপত্র তৈরীর সময় আমাদের উপস্থিত কিংবা পরামর্শ গ্রহন করা হয়নি। পরীক্ষায় অংশ গ্রহনকারী একাধিক শিক্ষার্থী সফিকুল ইসলাম,আশিকুজ্জামান,লাবন্যসহ অভিভাবক দেলোয়ার হোসেন,আবু হোসেন,আলম,লিটুসহ শতাধীক ব্যক্তি অভিযোগ করে বলেন, বইয়ের বাহিরে অনেক প্রশ্ন করা হয়েছে যাতে শিক্ষার্থীদের বিভ্রান্ত করা হয়েছে। দুপুর ১ হতে রাত ১১ টা পযন্ত খাতায় নম্বর বসানো শেষ করা করা হলেও ফলাফল দেয়া হয় রাত্রি ৩ টায়।

 

অভিভাবকদের অভিযোগ সঠিক মেধা যাচাই না করে বিভিন্ন তদবিরের ভিত্তিতে ফলাফল চুড়ামত্ম করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। এব্যাপারে রাত ৩ টা পয্যমত্ম অপেক্ষায় থাকা শিক্ষার্থীদের অভিভাবকগন ফলাফল ঘোষনায় বিলম্বের কারন জানতে চাইলে।

 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ক্ষিপ্ত হয়ে অভিভাবকদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। এরই প্রকিবাদে অভিভাবকগণ ক্ষিপ্ত হয়ে এক পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লক্ষ করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করেন। পরিস্থিতি উত্তপ্ত হলে অতিরিক্ত পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।

 

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বলেন, আমি কোন অনিয়ম করিনি সঠিক ভাবেই ভর্তির বিষয়ে সকল নিয়ম অনুসরন করা হয়েছে।

Spread the love