সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪ ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডিমলায় যৌতুকের জন্য গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা

জাহাঙ্গীর আলম রেজা,ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ ডিমলায় যৌতুকের কারনে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার পর চিকিৎসার নামে হাসপাতালে রেখে স্বামী পালায়ন করেছে। পুলিশ হাসপাতালের বারান্দা হতে আনোয়ারার লাশ উদ্ধার করেছে।

ডিমলা থানার অফিসার ইনচার্জ সওকত আলী জানান, নীলফামারী ডিমলার পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের ছাতনাই গ্রামে বাকছেদ আলীর পুত্র রবিউল ইসলামের সাথে গত সাড়ে ৩ বৎসর আগে ডোমার থানার বাগডোগরা ইউনিয়নের নিমোজ খানা গ্রামের জোলাপ দিনের কন্যা আনোয়ারা বেগম (২৩) সাথে ইসলামীক সরিয়ত মোতাবেক বিয়ে হয়। বিয়ের সময় আনোয়ারার পিতা জোলাপ দিন বিয়ের বিভিন্ন উপঢৌকনসহ যৌতুক বাবদ ৯০ হাজারের মধ্যে নগদ ৬০ হাজার টাকা বুঝে দেন। দাম্পত্য জীবনে আনোয়ারা একটি পুত্র সন্তান জন্ম হয় বর্তমান তার বয়স আড়াই বৎসর। যৌতুক লোভী স্বামী রবিউল ইসলাম বাকী যৌতুকের ৩০ হাজার টাকার জন্য চাপ দিয়ে আনোয়ারাকে শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন করে আসত। গত ৬ মাস পূর্বে যৌতুকের টাকার আশায় রবিউল ইসলাম একটি মটোরসাইকেল কিস্তিতে ক্রয় করে। মটোরসাইকেলের কিস্তির টাকা পরিশোধের জন্য আনোয়ারাকে পিত্রালয়ে পাঠিয়ে যৌতুকের বাকী ৩০ হাজার টাকা আনতে বললে আনোয়ারা পিতার নিকট হতে ২ হাজার টাকা ঘটনার ৭ দিন পূর্বে স্বামী রবিউল কে এনে দেয়। যৌতুকের সমুদয় টাকা বুঝে না পাওয়ায় রবিউল আনোয়ারাকে নির্যাতনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। এর এক পর্যায়ে মঙ্গলবার যৌতুককে কেন্দ্র করে রবিউল আনোয়ারাকে বেধরক মারপিট করলে আনোয়ারা মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়ে। ঘটনা বেগতিক দেখে আটো যোগে মুমুর্ষ আনোয়ারাকে ডিমলা হাসপাতালে আনলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আনোয়ারার মৃত্যু ঘোষনা করেন। আনোয়ারার মৃত্যু নিশ্চিত হয়ে বিপদ বুঝতে পেরে ঘাতক রবিউল আনোয়ারার মাতা আবেদা খাতুনকে মোবাইল ফোনে আনোয়ারার অসুস্থতার কথা বলে ডিমলা হাসপাতালে আসতে বলে আনোয়ারার লাশ হাসপাতাল বারান্দায় রেখে পালিয়ে যায়। পুলিশ আনোয়ারার লাশ উদ্ধার করেছে। এব্যাপারে আনোয়ারার মাতা আবেদা খাতুন বাদী হয়ে ডিমলা থানায় একটি হত্যা মামলা দ্বায়ের করেছে।

Spread the love