শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪ ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডিমলায় সরকারী বই বিতরণে অর্থ গ্রহনের অভিযোগে প্রধান শিক্ষক বরখাস্ত

জাহাঙ্গীর আলম রেজা, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ ডিমলায় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র/ছাত্রীদের মাঝে বিনা মূল্যে সরকারী বই বিতরণে সেশন ফির নামে অর্থ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। ইতিমধ্যে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এক প্রধান শিক্ষককে বৃস্পতিবার সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।

২০১৫ সালের মাধ্যমিক পর্যায়ের ছাত্র/ছাত্রীদের পাঠ্য গ্রহনের জন্য গত ৭ ডিসেম্বর/১৪ ইং বিনামূল্যে সরকারী পাঠ্যপুস্তক বিতরণ কার্যক্রম আনুষ্ঠানিক ভাবে শুরু করা হয়। নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলার ৭০ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৪৭ টি মাধ্যমিক ও ২৩টি মাদ্রাসার ছাত্র/ছাত্রীদের জন্য ৩ লাখ ১১ হাজার ৭ শত ২৮ খানা বই সংশি­ষ্ট অধিদপ্তর হতে বরাদ্দ পাওয়া যায়। এসব বইয়ের মধ্যে ২৩টি মাদ্রাসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শত ভাগ বিতরণ ও মাধ্যমিক পর্যায়ে ৪৭ টি বিদ্যালয়ে ছাত্র/ছাত্রীদের মাঝে ৯০ ভাগ বাই বিতরণ করা হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে মাধ্যমিক পর্যায়ে ৪৭ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র/ছাত্রীদের মাঝে বিনামূল্যে সরকারী বই বিতরণের সময় সেশন ফির নাম করে ২ শত থেকে ৭ শত টাকা পর্যন্ত আদায় করা হচ্ছে। গরীব ছাত্র/ছাত্রীর অভিভাবকগণ জানান এ অর্থ যোগার করতে তাদের হিমশিম খেতে হয়েছে অভিযোগের ভিত্তিতে ইতিমধ্যে উপজেলার খালিশা চাপানী ইউনিয়নে ডালিয়া দ্বিমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোসলেম উদ্দিন কে গত বৃস্পতিবার সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। উক্ত বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সামসুল হক হুদা জানান, বিদ্যালয়ের ছাত্র/ছাত্রীদের মাঝে বিনামূল্যে সরকারী বই বিতরণের সময় ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত ছাড়ায় সেশন ফির নামে ২ শত করে টাকা আদায় করেছে। একারনে ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রধান শিক্ষক মোসলেম উদ্দিন কে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। এব্যপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোহাঃ আহসান হাবীব জানান বই বিতরণের সময় টাকা গ্রহণ করা অবৈধ। কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যদি রশিদ ছাড়া ছাত্র/ছাত্রীদের নিকট হতে টাকা গ্রহণ করে থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে বিধি সম্মত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: রেজাউল করিম জানান ছাত্র/ছাত্রীদের মাঝে বিনামূল্যে সরকারী বই বিতরণের সময় রশিদ ছাড়া টাকা গ্রহণ করে থাকলে সংশি­ষ্ট প্রতিষ্ঠান প্রধানের বিরুদ্ধে কঠর ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইতিমধ্যে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে অভিযোগের তদন্ত করে দেখার নির্দেশ দিয়েছি।

 

 

Spread the love