রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ডিমলায় হত্যা প্ররচনার মামলার আসামী গ্রেফতার

ডিমলা (নীলফামারী) ঃ নীলফামারীর ডিমলায় সোমবার ভোর রাতে ঝুনাগাছ চাপানি ইউনিয়নের হত্যা প্ররচনা মামলায় আসামী ছাদের হোসেন (৫৫) কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তিনি ঝুনাগাছ চাপানি ইউনিয়নের উত্তর ঝুনাগাছ চাপানি ইউনিয়নের মৃতজয়ফুল্লা মামুদের পুত্র।
জানা যায়, ডিমলা উপজেলা পরিষদের কম্পিউটার প্রশিক্ষক ও জামিয়ার রহমানের কন্যা জয়নাব বানুকে হত্যা প্ররোচনা কারনে গত ১৭ সেপ্টেম্বর পিত্রালয়ে আত্বহত্যা করেন। ঘটনার আগের দিন বিকালে জয়নাবের স্বামী মোস্তাফিজার রহমান মানিক, শ্বশুর ছাদের হোসেনসহ পরিবারের লোকজনের সামনে তাকে নষ্টা ও চরিত্রহীন মেয়ে বলার কারনে সে ঘটনার দিন রাতে আত্বহত্যা করেন। ২০১৫ সালের ২ জানুয়ারী ডিমলা সদর ইউনিয়নের বাবুরহাট গ্রামের জামিয়ার রহমানের একমাত্র কন্যা জয়নাব বানু সাথে ঝুনাগাছ চাপানি ইউনিয়নের ঝুনাগাছ চাপানি গ্রামের ছাদের হোসেনের পুত্র মোস্তাফিজার রহমান মানিকের বিয়ে হয়। বিয়ের পর মেয়ের পরিবারের নিকট ১০ লক্ষ টাকা দাবী করে ছেলের পরিবার। কিন্তু বিয়ের পর মেয়েটির পরিবার মানিকের পরিবারকে ৬ লক্ষ টাকা প্রদান করেন। অবশিষ্ট ৪ লক্ষ টাকার জন্য জয়নবের উপর বিভিন্নভাবে পারিবারিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করেন। গত ১৬ সেপ্টেম্বর যৌতুকের বাকি ৪ লক্ষ টাকার জন্য জয়নাবেব পিত্রালয়ে মানিক, তার পিতাসহ ৬/৭ বার বৈঠকে বসেন। কিন্তু মেয়ের পিতা জামিয়ার রহমান টাকা দিতে না পারায় জামাতা মানিকসহ পরিবারের লোকজনের সামনে সকলে উপস্থিতিতে জয়নাবকে নষ্টা ও চরিত্রাহীনা, পাশ্ববর্তী এক ছেলের সাথে দৈহিক সম্পর্ক আছে মর্মে প্রকাশ করেন। পরিবারের লোকজনের সামনে অপমান সহ্য করতে না পেরে রাতে মেয়েটি গলায় ফাঁস দিয়ে আত্বহত্যা করেন। মেয়েটির পিতা জামিয়ার রহমান বাদী হয়ে নারী শিশু নির্যাতন দমন আদালত নীলফামারী পি নং-৩০১/২০১৬ (০৯/১০/১৬) নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২৭ (১ক) ধারায় মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলাটি তদন্ত করে ডিমলা থানার ওসিকে ৬০ দিনের মধ্যে প্রতিদেন দাখিল করতে বলেন। ঘটনার ২দিন পর ডিমলা থানায় মামলা নং-১৩ দায়ের করা হয়েছে। হত্যা প্ররচনা মামলার আসামীরা হলেন মেয়েটির স্বামী মোস্তাফিজার রহমান মানিক, শ্বশুড় ছাদের হোসেন, শ্বাশুড়ী মোকছুদা বেগমসহ ৭জনকে আসামী করা হয়েছে। মোস্তাফিজার রহমান মানিক পাটগ্রাম পপি অফিসে চাকুরী করলেও মামলার পর চাকুরী থেকে অন্যত্র আত্বগোপন করেছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিমলা থানার এসআই ফিরোজ জানায়, মামলার সকল আসামীকে গ্রেফতারের চেষ্টা করা হচ্ছে। গ্রেফতারকৃত সাদের হোসেনকে সোমবার আদালতে মাধ্যমে জেল হাযতে পাঠানো হয়েছে।

Spread the love