শুক্রবার ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডিমলায় হরতাল-অবরোধে সব্জির বাজার ক্রেতা শুন্য

ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ টানা অবরোধে ও হরতালের কারনে প্রভাব পড়েছে সব্জির বাজারেও। ক্রেতা শূন্য হয়ে পড়েছে ডিমলার সর্বত্র সব্জি বাজার গুলোতে। সব্জি চাষীরা সব্জি বিক্রি করতে না পেরে বিপাকে পড়ে লোকশান গুনতে হচ্ছে।

গত ৫ জানুয়ারী হতে দেশব্যপী টানা অবরোধের মাঝে হরতালের কারনে এ এলাকার মানুষের জীবন যাত্রার মান দুর্বিসহ হয়ে পড়েছে। বেশী প্রভাব পড়েছে ব্যবসায়ী ও প্রান্তিক চাষী কৃষকদের উপর। অবরোধ ও হরতালের কারনে পরিবহন খাত চরম বিপর্যায়ের মুখে পড়ায় এ অঞ্চলের সব্জি রাজধানী ঢাকাসহ বড় ও সিটি শহর গুলোতে সব্জি সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না অন্যান্য সব্জি পাশাপাশি ফুল কপি ও বাধাঁ কপি এ উপজেলায় বেশী চাষাবাদ করা হয়। প্রতি রবি মৌসুমে সব্জি ব্যবসায়ী পাইকাররা কৃষকের ক্ষেত হতে বেশি মূল্যে ক্রয় করে ট্রা্ক যোগে ঢাকাসহ বিভিন্ন শহরে পাঠিয়ে বেশী লাভ করত। আর দাম বেশী থাকায় সব্জি চাষীদের কদরও ছিলো বেশী। চলতি রবি মৌসুমে ফুল কপি ও বাধাঁ কপি পাইকারদের কাছে বিক্রিতো দুরের কথা তাদের মুখ দেখা ভার। ফুল কপি ও বাধাঁ কপি সব্জি চাষীদের সাথে কথা বলে জানা যায় টানা অবরোধ ও হরতালের কারনে পাইকাররা সব্জি ক্রয় করছেন না পরিবহন করতে না পেরে সব্জি ব্যবসায়ী গোলাপ হোসেন (৪৫) জানায় ব্যবসার কি আর এদেশে পরিবেশ আছে। সব ছেড়ে দিয়ে হাত গুটে বসে আছি। অবরোধ ও হরতালের কারনে ট্রাক না চলায় সব্জি পরিবহন করতে না পারায় পাইকারী বাদ দিয়েছি। ট্রাক চললে কৃষকদের ক্ষেত হতে ফুল ও বাঁধা কপি ডাক নিয়ে ঢাকায় পাঠাতাম প্রতি রবি মৌসুমে সপ্তাহে অন্তত ২/৩ টি ট্রাক। ঢাকায় নিয়ে গিয়ে অনেক মুনাফা করে ভাল ভাবে চলতে পারতাম। কৃষকরাও সব্জির ভাল দাম পেত।

উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, চলতি রবি মৌসুমে এ উপজেলায় ১ শত হেক্টর জমিতে কপি চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। এর মধ্যে ফুল কপি ৫৫ হেক্টর ও বাঁধা কপি ৪৫ হেক্টর জমিতে। গত রবি মৌসুমে ফুল ও বাঁধা কপি কৃষকগণ বেশী দামে বিক্রি করায় এ বছর লক্ষ্যমাত্রার দ্বিগুন চাষাবাদ করেছে।

উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের সুন্দরখাতা গ্রামের প্রফুল­ কুমার (৪৫) জানায়, আমি গত রবি মৌসুমে ৪ বিঘা জমিতে ফুল ও বাধা কপি চাষ করে ক্ষেতেই পাইকারের নিকট ডাক দিয়ে বিক্রি করে খরচ বাদে ৫০ হাজার টাকা মুনাফা পেয়েছি। এ বছর বেশী লাভের আশায় ৫ বিঘা জমিতে কপি চাষ করে বিপাকে পরেছি। ক্ষেতে বিক্রি তো দুরের কথা বাজারে এনেও প্রতি পিচ কপি ২/৩ টাকা দরেও ক্রেতা পাওয়া যাচ্ছে না। অথচ গত বছর প্রতি কেজি ফুল কপি ১৫/২০ ও বাঁধা কপি প্রতি পিচ ১৫/২০ টাকা দরে বিক্রি করি। একই কথা জানালেন, ডিমলা সদরের কুমার পাড়া গ্রামের সেরাজুলই ইসলাম (৫৫), তিনি গত রবি মৌসুমে ১ একর জমিতে কপি চাষ করে ভাল মুনাফা করেছেন। এবার বেশী মুনাফা পাওয়ার আশায় ২ একর জমিতে ফুল ও বাঁধা কপি মিলে চাষ করেছি। ডিমলা কৃষি অফিস হতে পরামর্শক্রমে প্রতি বিঘায় ৩ হাজার ৬ শত ভাল জাতের চারা লাগিয়ে পর্যাপ্ত সার ও কীটনাসক প্রয়োগ করেছি। ফলনও ভাল হয়েছে। কিন্তু দু:খের বিষয় ক্রেতা নেই এবং এমন কি পাইকারও পাওয়া যাচ্ছে না। কপি চাষ করে মহা বিপাকে পড়েছি। অবরোধ ও হরতাল আমাকে সর্বশান্ত করলো।

 

Spread the love