শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪ ২৯শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ডিমলা প্রেসক্লাবের সভাপতি ফজলুকে সাংবাদিদের অবাঞ্চিত ঘোষনা

মোঃ জাহাঙ্গীর আলম,ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডিমলায় গতকাল সোমবার ডিমলা প্রেসক্লাবের এক জরম্নরী সভায় সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে কটুক্তি করার প্রতিবাদে ডিমলা প্রেসক্লাবের সভাপতি, নয়াদিগন্ত ও অনলাইন বিডিটুডে টোয়েন্টিফোর ডমকম পত্রিকার ডিমলা প্রতিনিধি সরদার ফজলুল হককে অবাঞ্চিত ঘোষনা করা হয়েছে। বাবু নিরঞ্জন দের সভাপতিত্বে ডিমলা প্রেস ক্লাবের জরুরী সভায় বক্তব্য রাখেন ডিমলা প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম লিটন, ইত্তেফাক প্রতিনিধি সহিদুল ইসলাম, যুগান্তর প্রতিনিধি জাহেদুল ইসলাম জাহিদ, করতোয়া প্রতিনিধি ময়েন কবীর, রংপুর চিত্রের প্রতিনিধি জসিম উদ্দিন নাগর, জনতা প্রতিনিধি মহিনুল ইসলাম সুজন। এ সময় প্রেসক্লাবের ২০জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন। সভায় সাংবাদিকরা অভিযোগ করে বলেন, গত ১১ জানুয়ারী সরদার ফজলুল হক বিডিটুডে টোয়েন্টিফোর ডমকম ডিমলায় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের স্বারকলিপি প্রদান-সংবাদে সাংবাদিকদের অপসাংবাদিক হিসেবে উল্ল্যেখ করেন। তার প্রকাশিত সংবাদটিতে ডিমলা অধিকাংশ অভিভাবক অশিক্ষিত ও আধা-শিক্ষিত বলা হয়েছে। ডিমলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা এমদাদুল হক জানায়, উপজেলা ৪২ দশমিক ২ ভাগ জনসংখ্যা শিক্ষিত। সরকার ১ জানুয়ারী উৎসব মুখর পরিবেশে বই বিতরনের ঘোষনা দিলে উপজেলা কয়েকটি প্রতিষ্ঠান সেশন ফি ও ভর্তির নামে ৭জানুয়ারী থেকে বই বিতরন শুরু করে। সরকারের বিনামুল্যে বই বিতরনকে পুজি করে উক্ত সরদার ফজলুল হক ঘোলা পানিতে মাছ স্বীকার করতে চায়। সাংবাদিক ও শিক্ষকদের মুখোমুখি দাড় করিয়ে ফায়দা হাসিল করতে চায়। গত ৬ জানুয়ারী ডিমলায় ৫টি প্রতিষ্ঠানে সরকারী বিনামুল্যে বই বিতরনের সময় সেশন ফি অযুহাতে শিক্ষার্থীদের নিকট টাকা আদায় করার অভিযোগ উঠেছিল। উক্ত সংবাদটি গত ৮ জানুয়ারী দৈনিক জনকন্ঠ, ইত্তেফাক, যায় যায় দিন, ৯ জানুয়ারী ভোরের কাগজ, দৈনিক করতোয়া ও ১০ জানুয়ারী নয়াদিগন্ত ও ইনকিলাব পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। রোববার রাতে সরদার ফজলুল হক সাংবাদিকদের বিভিন্ন স্থানে কটুক্তি মুলক বক্তব্য প্রদান করে। তিনি সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে শিক্ষক মহলকে উস্কিয়ে দিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ স্বীকার করতে চাওয়ার প্রতিবাদে তাকে অবাঞ্চিত ঘোষনা করা হয়।

Spread the love