শুক্রবার ১২ অগাস্ট ২০২২ ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ডোমারে আগুনে পুড়ে যাওয়া শরীর নিয়ে চিকিৎসার অভাবে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে শিশু মোকছেদুল

মোসাদ্দেকুর রহমান সাজু, ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ নীলফামারীর ডোমারে কারেন্টের আগুনে পুড়ে গেছে মোকছেদুলের শরীরের ৬০ ভাগ অংশ অর্থের অভাবে চিকিৎসা করাতে না পেরে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে শিশু মোকছেদুল (১১),ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ২ নং কেতকীবাড়ী ইউনিয়নের দক্ষিণ কেতকীবাড়ী ৩নং ওয়ার্ডের শান্তি নগর গ্রামে।মোকছেদুলের পিতা আজিজুল ইসলাম কান্না জড়িত কন্ঠে ঘটনার বিষয়ে বলেন, গত ৪ জানুয়ারী বিকাল সাড়ে ৫ টার দিকে দালালগঞ্জ হাফেজিয়া মাদ্রাসার ছাত্রদের সাথে ব্যাডমিন্টন খেলার জন্য কারেন্টের মেইন লাইনের তারের সাথে সংযোগ দিতে যায় তার সহপাঠী, সেসময় মোকছেদুলকে লাইট বসানো বোর্ড হাতে দিয়ে তার সহপাঠী মেইল লাইনে সংযোগ দিতে যায়, এরই এক পর্যায়ে মেইন লাইনের তারে সংযোগ দেওয়ার সাথে সাথে লাইট লাগানো বোর্ডের সমস্ত লাইট বাষ্ট হয়ে আগুন দ্রুত মোকছেদুলের সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। সহপাঠীদের আত্ন চিৎকারে এলাকার লোকজন এসে আগুনে পুড়ে যাওয়া মোকছেদুলকে উদ্ধার করে, এরই মধ্যে তার বুক, পিঠ, মাথা এবং হাত পা সহ শরীরের বিভিন্ন জায়গা পুড়ে যায়। তাৎক্ষণিকভাবে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান হয় সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তার উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় মোকছেদুলের শরীর রক্তশুন্য হওয়ার কারণে তাকে ৪৭ ব্যাগ রক্ত দেয়া হয়েছে। তিনি আরও জানায়, এ যাবত মোকছেদুলের চিকিৎসার পিছনে সর্বোমোট ৪ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা ব্যয় হয়েছে। তবুও পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠেনি মোকছেদুল।চিকিৎসকরা তার বাবাকে জানিয়েছেন মোকছেদুল পুরোপুরি সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক জীবন ফিরে পেতে হলে তার চিকিৎসার জন্য আরও ৬ লক্ষ টাকার প্রয়োজন। এমতাবস্থায় অর্থের যোগান দিতে না পারায় ছেলেকে নিয়ে বাড়িতে চলে এসেছে এবং ছেলের চিকিৎসার খরচ যোগাড়ের জন্য সকলের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন আজিজুল ইসলাম শিশু মোকছেদুলকে নিয়ে।এবিষয়ে মোকছেদুলের পিতা আজিজুল ইসলাম প্রতিবেদককে জানিয়েছেন আমি দিনমুজুর মানুষ সারাদিন কাজ করে যা পাই তাই দিয়ে কোন রকম সংসার চালাই, অভাবের সংসারে ৬ ছেলের মধ্যে মোকছেদুল ৪ নম্বর, সে শান্তি নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণির ছাত্র। আমার নিজস্ব জমিজমা বলতে শুধুমাত্র বাড়ির ভিটার ৪ শতাংশ জমি ছাড়া আর কিছুই নাই। ছেলের এই অবস্থায় আত্নীয় স্বজন পাড়া মহল্লায় বিভিন্ন লোকের কাছে ধারদেনা ও সাহায্য নিয়ে ৪ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা খরচ করে এতোদুর চিকিৎসা করলাম। এখন ছেলের জন্য যে একটা ডিম কিনবো সেই সামর্থ আমার নেই। এদিকে ডাঃ বলেছে তাকে পুরোপুরি সুস্থ করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে তার চিকিৎসার খরচ আরও প্রায় ৬ লক্ষ টাকার প্রয়োজন। তাই আমি নিরুপায় হয়ে সকলের কাছে আমার ছেলের চিকিৎসার জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলাম। আমার পারসোনাল বিক্যাশ মোবাইল নম্বর ০১৭১৪-৭৯৩১৩১, পরিশেষে তিনি সমাজের বিত্তবান, ধনবান এবং হৃদয়বান ব্যক্তিদের কাছে তার সন্তানের সুচিকিৎসার জন্য সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন।প্রসংগতঃ আমাদের সমাজে অনেক ধনবান বিত্তবান ও হৃদয়বান মহৎপ্রাণ ব্যক্তিরা যদি একটু সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় তাহলেই সেই কোমলমতি শিশুটি আপনাদের সেই সহায়তায় স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারে, তাই সকলের উচিত কোমলমতি শিশুটির কথা চিন্তা করে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া। কি অপরাধ ছোট শিশু মোকছেদুলের? অভাবগ্রস্থ পিতার ঘরে জন্ম হয়েছে একটা তার বড় অপরাধ, যে কারণে আজকে অর্থের অভাবে মোকছেদুলের চিকিৎসা করাতে না পেরে দিন দিন মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়বে অবুঝ শিশুটি। 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email