সোমবার ১৬ মে ২০২২ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঢাকা আহছানিয়া মিশন শিশু নগরি শিশুদের আটকে রেখে অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ

মোঃ এনামুল হক , পঞ্চগড় প্রতিনিধি: পঞ্চগড়ে হাফিজাবাদে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন নামক শিশুনগরিতে শিশুদের আটকে রেখে নির্যাতনের খবর পাওয়া গেছে। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ধরে এনে তাদের আটকে রাখা হয় দিনের পর দিন। মারপিটসহ তাদের উপর চালানো হয় অমানবিক নির্যাতন। রোববার শিশুদের নির্যাতনের খবর জানাজানি হলে স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয়। বিক্ষুদ্ধরা দিনভর ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন শিশু নগরিতে ভিড় জমায়।

 

দেড় বছর আগে হারিয়ে যাওয়া শিশু ফটিকচাঁনের বাবা মাকে খুঁজে পাওয়ার মধ্য দিয়ে ঢাকা আহসানিয়া মিশন শিশু পল্লীর শিশু নির্যাতনের খবরটি ছড়িয়ে পড়ে।

 

শনিবার জহিরুল ইসলাম ওরফে ফটিকচানসহ (১২) তিন শিশু পালিয়ে পাশের গ্রামের লোকজনকে নির্যাতনের কথা জানায়। বাবা মায়ের নামের সাথে বাবার মোবাইল নাম্বারটা দেড় বছর মনে রেখেছিল ফটিক চাঁন। হাফিজাবাদ ইউনিয়নের পাঠানপাড়া গ্রামের দবিরুল ইসলামের ফোন থেকে সে বাবার সাথে কথা বলে। মোবাইল ফোনে সন্তানকে আটকে রাখার কথা জানতে পেরে রোববার দুপুরে বাবা বাগের হাটের সরনখোলা খন্দাকাটা এলাকার ফারুক মোল্লা ফটিক চাঁনকে নিয়ে যায়।

বাবা ফারুক মোল্লা ও ফটিকচান জানায় ২০১৩ সালে জুনে যশোরের মমিন নগর ইউনিয়নের খাটপাড়া গ্রামে তার মামা সফি উদ্দিনের বাড়ি থেকে হারিয়ে যায়। একই সালের ৩ নভেম্বর গাজিপুর টঙ্গীর শিশু পল্লী প্লাস থেকে তাকে আহ্ছানিয়া মিশন শিশুন গরিতে আনা হয়। ফটিকচানের মত শিশু শিশু আটক রয়েছে এই শিশু নগরিতে।

 

রোববার দুপুরে স্থানীয় লোকজন ও সাংবাদিকদের দেখে শিশু নগরির শিশুরা কেঁদে ফেলেন। তাদের একটাই আকুতি। তারা বাবা মায়ের কাছে ফিরে যেতে চায়।

 

জানা গেছে, আহছানিয়া মিশন শিশুনগরি ও স্থানীয়রা জানায়, তিন বছর আগে পঞ্চগড় সদর উপজেলার হাফিজাবাদ ইউনিয়নের জলাপড়া গ্রামে এই শিশুনগরির চালু হয়। কিন্ডার নট হিলফি (KNH)) নামে জার্মানীর একটি সংস্থার অর্থায়নে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন এই শিশুনগরি পরিচালনা করছে।

 

বর্তমানে এখানে ছয় থেকে ১২ বছর বয়সি ৭৯ জন শিশু রয়েছে। এদের মধ্যে মাত্র ১০/১২ জন শিশুকে তাদের অভিভাবক এখানে স্বেচ্ছায় দিয়ে গেছেন। বাকি শিশুদের নানাভাবে ফুসলিয়ে এবং জোড় করে ধরে নিয়ে আসা হয় ।

ফারুক মোল্লা বলেন, দেড় বছর আগে মামা বাড়ি বেড়াতে গিয়ে আমার ১২ বছরের ছেলে ফটিকচান হারিয়ে যায়। আমি দেশের বিভিন্ন জেলায় ছেলের খোঁজ করেছি। শিশুনগরিতে আমার ছেলে আটক ছিল। সে আমার মোবাইল নম্বর জানতো। অবশেষে পালিয়ে গ্রামের লোকজনকে আমার নম্বর দিলে তারা আমাকে ফোন করেন।

প্রায় দুই বছর আগে কুমিল্লা থেকে হারিয়ে যাওয়া শিশু ইয়াছিন কাঁদতে কাঁদতে বলেন, সে মামার বাড়ি থেকে রাগ করে পালিয়ে এসেছিল। কমলাপুর রেল ষ্টেশন থেকে তাকে ধরে আনা হয়।

ঢাকার বিক্রমপুর এলাকার মুনির হোসেনের ছেলে ইমন আলী (৯) বলেন, আম্মু মারপিট করেছিল বলে আমি রাগ করে রেল স্টেশনে গিয়েছিলাম। সেখান থেকে রুবেল স্যার আমাকে ধরে নিয়ে আসেন। আমার বাবা-মা আমাকে খুঁজছেন। আমি বাসা যেতে চাইলে স্যার আমাকে মারপিট করেন।

গাজিপুর উত্তরা রডমিল এলাকার দুখু মিয়ার ছেলে রাজন রহমান সাগর বলেন, আমি এলাকার একটি মার্কেটে গিয়েছিলাম। আমাকে হেলিকপ্টর ও পেস্ননে উঠার কথা বলে নিয়ে এসে এখানে আটকে রাখে। একটু দোষ করলেই খুব মারে।

হাফিজাবাদ ইউনিয়নের মারুপাড়া গ্রামের ফরিদুল ইসলাম বলেন, তিন শিশু জীবনের ঝুকি নিয়ে পালিয়ে এসে তাদের বাবার নম্বর দিলে আমরা তার বাবাকে ফোন করি। এখানে হারিয়ে যাওয়া অনেক শিশু রয়েছে। তারা তাদের ঠিকানা বলতে পারে। বাবা-মায়ের কাছে যেতে চাইলে তাদের প্রতি নির্যাতন করা হয়।

 

ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন শিশুনগরির আবাসিক তত্বাবধায়ক গৌরব কুমার দাস বলেন, পথশিশুদের ধরে এনে নিয়মানুবর্তিতার মধ্যে রাখা হয়েছে। একটু আধটু শাসন করা হয়েছে মাত্র। তারা আপনাদের মিথ্যা কথা বলছে। এখানকার শিশুদের কোন রকম নির্যাতন করা হয় না। শিশু নীতিমালা এবং ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন শিশুন গরির নিয়ম অনুযায়ী তাদের দেখভাল করা হয়। অনেক অভিভাবক স্বেচ্ছায় তাদের শিশুদের এখানে দিয়ে যান।অপরদিকে এই মানবসেবার প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ভূমিদশ্যূতার অভিযোগও রয়েছে। জমি কিনতে গিয়ে কবরস্থান ছাড়া খাস জমিও তারা দখলে রেখেছে বলে অভিযোগ রয়েছে।জেলা প্রশাসকের রাজস্ব দপ্তরের অনিকে কর্মচারী জানান,ওই প্রতিষ্ঠানের একজন ল্যান্ড কর্মকর্তা জমাজমির কাগজপত্র নিতে এসে আমাদের ধমকদেয়।খুব বাজে ব্যবহার করেনলোকটি।।

পঞ্চগড় সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. ইলিয়াস মেহেদী বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এ ব্যাপারে খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email