শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপিত

DUব্রিটিশ আমলের পূর্ববাংলা ও বর্তমান বাংলাদেশের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ১৯২১ সালের ১ জুলাই এ বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হয়। নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে আজ মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়টি ৯৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত হচ্ছে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় উচ্চশিক্ষা’।
আজকের কর্মসূচি : দিবসটি উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সেজেছে এক নতুন সাজে। বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবন, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ, কার্জন হল, টিএসসি, কার্জন হলসহ সব স্থাপনাই ছেয়ে গেছে লাল-নীল মরিচ বাতির ঝলকানিতে। ক্যাম্পাসে দিনব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। সকাল সোয়া ১০টায় প্রশাসনিক ভবনসংলগ্ন মলে জাতীয় পতাকা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও হলগুলোর পতাকা উত্তোলন, কেক কাটা এবং উদ্বোধনী সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে দিবসটির কর্মসূচি শুরু হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক অনুষ্ঠানে সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে দিনব্যাপী কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস অনুসন্ধানে দেখা যায়, ১৯১১ সালে বঙ্গভঙ্গ রদ করা হয়। এরপর ১৯১২ সালের ২১ জানুয়ারী ভাইসরয় লর্ড হার্ডিঞ্জ ঢাকা সফরে এলে পূর্ববঙ্গের প্রতিনিধিরা তার কাছে তৎকালীন মুসলমান সম্প্রদায়ের উচ্চশিক্ষার জন্য একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবি জানায়। সে সূত্রে ওই বছরের ২৭ মে ঢাকায় একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের লক্ষ্যে ১৩ সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। যার সভাপতি ছিলেন, ব্যারিস্টার রবার্ট নাথান। এ কমিটি নাথান কমিশন হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। এ কমিটি ২৫টি সাব-কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে ১৯১৩ সালে কমিশন অক্সফোর্ডের আদলে ঢাকায় একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সুপারিশ করে।
১৯২০ সালের ১৮ মার্চ দ্য ঢাকা ইউনিভার্সিটি এক্ট পাস হলে ১৯২১ সালের ১ জুলাই আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড নামে খ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়টি। ১৯২১ ও ২০১৪ : প্রতিষ্ঠাকালীন ৩টি হল নিয়ে যাত্রা শুরু করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। মুসলমান ছাত্রদের জন্য মুসলিম হল (পরে সলিমুল্লাহ হল), হিন্দু ছাত্রদের জন্য জগন্নাথ হল, আর সবধর্মের ছাত্রদের জন্য ঢাকা হল (পরে শহীদুল্লাহ হল) স্থাপিত হয়েছিল। শুরুর দিকে সমাজের রক্ষণশীলতার জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ছাত্রী ভর্তির ব্যাপারে খুবই দ্বিধান্বিত ছিলেন। কিন্তু লীলা নাগ নামে এক ছাত্রী ভর্তি হলে ধীরে ধীরে ছাত্রীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে থাকে। দেখা দেয় মেয়েদের হোস্টেলের প্রয়োজনীয়তা। এ উদ্দেশে ১৯২৬ সালের ২৮ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৭নং বাংলো চামেলি হাউসে (বর্তমানে সিরডাপ ভবন) মাত্র তিনজন ছাত্রী নিয়ে প্রথম উইমেনস হাউস প্রতিষ্ঠা করা হয়। বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ১৯টি হল। তিনটি হোস্টেল ও একটি নির্মাণাধীন হোস্টেল রয়েছে। ২৮ জন কলা, ১৭ জন বিজ্ঞান এবং ১৫ জন আইনের শিক্ষকসহ মোট ৬০ জন শিক্ষক নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টি যাত্রা শুরু করে। বর্তমানে যে সংখ্যা ১৮৬২ তে উন্নীত হয়েছে।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email