বুধবার ১৭ অগাস্ট ২০২২ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘ঢিল-বোমা মেরে উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করা যাবে না’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দুটা বোমা মেরে বা পাঁচটা ঢিল মেরে দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করা যাবে না। তিনি বলেন, যখন দেশের মানুষকে পুড়িয়ে মারার ষড়যন্ত্র করে সরকার উৎখাত করা যায়নি, ঠিক তখন বিদেশীদের হত্যা করে দেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা চলছে।
বুধবার রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মুন্সীগঞ্জে নির্মাণাধীন পদ্মার পানি শোধনাগার উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন। নতুন প্রযুক্তি স্কেডা ব্যবহার করে রাজধানীর সোনারগাঁ হোটেল থেকে সরাসরি প্রকল্প এলাকায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ প্রকল্পের উদ্বোধন করেন তিনি। এটিই দেশে প্রধানমন্ত্রীর প্রথম স্কেডা প্রযুক্তির মাধ্যমে ভিডিও কনফারেন্স।
স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব আব্দুল মালেক, চীনের সংসদ সদস্য লু ইয়ান, বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত মা মিং কিয়াং, ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খান। এ অনুষ্ঠানে মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, সংসদ সদস্য, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটির মেয়র, কূটনীতিক, উন্নয়ন অংশীদার দেশগুলোর প্রতিনিধি, সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। আজকে ধনী-দরিদ্রের আয়ের বৈষম্যে হ্রাস পেয়েছে। এটিই হচ্ছে আমাদের উন্নয়নের বড় কথা। সুপরিকল্পিত পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে আমরা তা করতে সমর্থ হয়েছি। তিনি বলেন, এক সময় বাংলাদেশে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ বাংলাদেশকে ছেয়ে ফেলেছিল। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর তা কঠোর হস্তে দমন করে।
কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা কখনো অন্যায়কে প্রশ্রয় দেই না, দেবো না। এটাই মূল কথা। সন্ত্রাসী ও জঙ্গি কর্মকান্ড এক সময় বাংলাদেশে যেন নিয়মিত ব্যাপার ছিলো। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পরই এগুলো দমন করেছে। এখন এ চেষ্টা যারা করবে তাদের স্পষ্ট বলতে চাই, বাংলাদেশে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের কোনো স্থান হবে না। সেক্ষেত্রে আমি বাংলাদেশের সব মানুষের সহযোগিতা চাই। এটা মোকাবেলা করতে হলে বাংলাদেশের সবাইকে এর বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দাঁড়াতে হবে।
শেখ হাসিনা বলেন, চলতি বছরের শুরুতে বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলন শুরু করে। কিন্তু দুর্ভাগ্য এটাই, যখন মানুষ একটু ভালো থাকে, স্বস্তিতে থাকে, শান্তিতে থাকে, ঠিক তখনই আমি দেখি একটা শ্রেণি আছে তাদের এসব পছন্দ হয় না। আশুরার দিন তাজিয়ার মিছিলে বোম হামলার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা বলি, ধর্ম যার যার উৎসব সবার। আপনারা দেখেন, হোসেনী দালানে বোমা হামলায় কারা মারা গেছে, কে আহত হয়েছে। যে ছেলেটা মারা গেছে, সে শিয়া না, সে কিন্তু সুন্নি। যে কয়জন আহত হয়েছে, তারা প্রত্যেকে কিন্তু সুন্নি মুসলমান।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে যে কোনো অনুষ্ঠান ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে মিলিতভাবে করা হয়। তাহলে হামলাটার কী অর্থ থাকতে পারে, কারা করলো এটা। এটাতো ধীরে ধীরে মানুষের কাছে স্পষ্ট হয়েই যাচ্ছে। এর উদ্দেশ্য বাংলাদেশের ভাবমূর্তিটা নষ্ট করা। যখন আন্তর্জাতিক বিশ্বে সবার কাছে বাংলাদেশ একটা উন্নয়নের রোল মডেল।

তিনি বলেন, ২০০৯ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর বলতে গেলে প্রতিটি মহানগরের চেহারা পাল্টে গেছে। প্রতিটি মহানগরে আমরা উন্নয়ন করেছি। জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন, বলতে গেলে তৃণমূল পর্যন্ত রাস্তাঘাট, পুল-ব্রিজসহ ব্যাপক উন্নয়নের মাধ্যমে আমরা মানুষের জীবনমান সহজ করে দিয়েছি। ডিজিটাল বাংলাদেশে ইন্টারনেটের বদলৌতে এখন সবকিছু আরও সহজ হয়ে গেছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email