শুক্রবার ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তিস্তায় পানি প্রবাহ সর্বনিম্ন পর্যায়ে- ৫শ হেক্টর জমিতে সেচ দেয়া সম্ভব হবে তিস্তা নদী ধু-ধু বালুচর- সেচ কার্যক্রম ভেস্তে যেতে বসেছে

জাহাঙ্গীর আলম রেজা, ডিমলা থেকেঃ তিস্তা নদী পানির অভাবে মরুভুমিতে পরিনত হয়েছে। নদীর উজান ও ভাটিতে জেগে উঠেছে ধু- ধু বালুচর। দেশের সর্ববৃহত সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজ গত ৪দিন থেকে ভয়াভহ পানি সংকটে পড়েছে। চলতি রবি ও খারিপ-১ মৌসুমে ২৮ হাজার ৫শ হেক্টর জমিতে সেচ প্রদানের টার্গেট করা হলেও বর্তমানে যে পরিমান পানি রয়েছে তাতে মাত্র ৫ শত হেক্টর জমিতে সেচ দেয়া সম্ভব। তিস্তা ব্যারেজে সিল্টট্রাপ থেকে ১০ কিলোমিটার পর্যমত্ম সেচ খালের তুহিন বাজার প্রধান সেচ ক্যানেলের আর ওয়ান টি ক্যানেলে পানি বন্ধ করে দিয়েছে পাউবো কতৃপক্ষ। বুধবার সন্ধ্যা থেকে উক্ত ক্যানেলের পানি বন্ধ করে দেয়া হয়।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এস থ্রি টি শাখা ক্যানেল রয়েছে পানি শুন্য। উক্ত ক্যানেলের ২শ হেক্টর জমিতে চলতি বোরের আবাদের টার্গেট করা হলেও মাত্র ১৫ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের চারা রোপন করা হয়েছে। এস থ্রি টি শাখা ক্যানেল সভাপতি সামচুল হক জানায়, ২০ হেক্টর জমিতে সেচ ক্যানেলের পানির জন্য ১ম কিস্তিতে ৩৫হাজার টাকা জমা প্রদান করা হয়েছে। অবশিস্ট টাকা ব্যাংকে জমা দেয়ার জন্য পাউবো কতৃপক্ষ নির্দেশ দিলেও পানি না থাকায় কৃষকরা টাকা দিচ্ছে না। অপরদিকে ঠিক সময়ে বোরো ধানের চারা রোপন করতে না পারলে ভাল সফল তোলা সম্ভব নয়।

তিস্তা ব্যারেজ সুত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার তিস্তার পানি প্রবাহ সর্বনিম্ন পর্যায়ে ছিল। আর ওয়ান টি ক্যানেলে পানি বন্ধ থাকায় তিস্তার উজানে যে পানি দেখা যাচ্ছে তা পানি প্রবাহ নয়। পানি পরিমাপ দলটি ২বার গিয়েও প্রবাহ না থাকায় ফিরে আসে। কি পরিমান পানি রয়েছে জানতে চাইলে কেহ মুখ খুলতে রাজি হয়নি। তবে প্রকাশ না করার শর্তে একজন কর্মকর্তা বলেন, বর্তমানে পানি না থাকার কারনে পানি প্রবাহ নিতে পারছি না। তিনি স্বীকার করেন তিস্তার নদীর পানি প্রবাহ ১০০-১৫০ কিউসেক হতে পারে। তিনি আরও বলেন আর ওয়ান টি ক্যানেলে পানি বন্ধ থাকায় সিলট্রাপে পানি জমা রয়েছে তবে প্রবাহ নেই বললে চলে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বলেন বৃহস্পতিবার পানি পরিমান কোন তথ্য তার জানা নেই। হাইড্রোলিক বিভাগের সহকারী প্রকৌশলী আমিনুর রহমান জানায়, তিস্তার পানি প্রবাহ কম থাকায় জেআরসি (যৌথ নদী কমিশন) থেকে তথ্য সরবরাহ করতে নিষেধ রয়েছে।

প্রধান ক্যানেলে পানি কম থাকার কারনে তিস্তার ব্যারেজের ৩ কিলোমিটার পরের শাখা ক্যানেলে পানি পাচ্ছে না কৃষকরা। অবশিষ্ট ক্যানেলের পানি প্রবাহ বন্ধ করায় কৃষকদের আন্দোলনের মুখে পড়তে পারেন মর্মে পাউবো সুত্রে জানায়। পাউবো কতৃপক্ষ বলছে দিন দিন পরিস্থিতি আরও অবনতি হতে পারে। তিস্তার পানি প্রবাহ বৃদ্ধি না পেলে বাধ্য হয়ে সেচ কার্যক্রম বন্ধ করে দিতে হতে পারে।

বৃহস্পতিবার পানি প্রবাহ আরও কমে গেলে বিপাকে পড়েছে কতৃপক্ষ। ভারত পানি সরববাহ না করলে সেচ ক্যানেলে বন্ধ করতে হতে পারে মর্মে নাম প্রকাশ না করার শর্তে পাউবোর এক কর্মকর্তা। তিনি আরও বলেন গত বছর গজলডোবার চুয়ানী পানি উপর নির্ভর করে সেচ ক্যানেলে পানি সরববাহ করলেও এবার পানি না থাকায় ২/৩ দিনের মধ্যে সেচ ক্যানেল বন্ধ হতে পারে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন গত বছর এই মৌসুমে নীলফামারী, রংপুর ও দিনাজপুর জেলার ৬৫ হাজার হেক্টরে সেচ সুবিধা প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা ছিল। কিন্তু এবার তিস্তা নদীর পানি প্রবাহ কম থাকায় গত বছরের চেয়ে এবারের চলতি রবি ও খারিপ-১ মৌসুমে সেচ প্রদানে জমির পরিমান ৩৭ হাজার ৫শত হেক্টর কমিয়ে আনা হয়েছে। এতে দিনাজপুর ও রংপুরের কমান্ড এলাকা সেচ কার্যক্রম থেকে বাদ দিয়ে শুধু মাত্র নীলফামারী জেলার ডিমলা, জলঢাকা, নীলফামারী সদর ও কিশোরীগঞ্জ উপজেলার ২৮ হাজার ৫শত হেক্টর জমিতে সেচ প্রদানের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে। কিন্ত বর্তমানে যে পানি পাওয়া যাচ্ছে তাতে ডিমলা ২টি ইউনিয়নের ৫শ হেক্টর জমিতে সেচ দেয় সম্ভব হবে। এই সমস্যার পাশাপাশি আবার দিনাজপুর, রংপুর কমান্ড এলাকার সেচ সুবিধাভোগী কৃষকরা সেচের জন্য চাপ প্রয়োগ করছে। ফলে দোটানায় পড়ে সংশ্লিষ্ট সেচ প্রদানে বাধ্য হয়ে রেশনিং পদ্ধতি চালু করেছে।

তিস্তা বাঁচাও রক্ষা কমিটির সভাপতি ও খালিশা চাপানি কৃষক আতাউর রহমান জানায়, তিস্তা সেচ ক্যানেলের মাধ্যমে নামে মাত্র পানি সরবরাহ করা হচ্ছে। প্রধান ক্যানেলে পানি না থাকায় সেচ ক্যানেলের উপকারভোগীদের চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। এসওয়ান টি সেচ ক্যানেলের সভাপতি আমিনুর রহমান জানায়, তার ক্যানেলের ৭শ হেক্টর জমির মধ্যে মাত্র ২শ হেক্টর জমিতে সেচ পানি দিয়ে চারা রোপন করেছে। অবশিস্ট জমিতে পানি দিতে না পারায় চারা রোপন করতে পারছে না কৃষক। সহ- সভাপতি সাহিদুল ইসলাম শেফা জানায়, পানি যেভাবে কমতে শুরু করছে তাতে কমান্ড এলাকার কোন জমিতে সেচের পানি দেয়া সম্ভব হবে না। পানির চাপ কম থাকার কারনে প্রধান সেচ খালে পানি থাকলেও শাখা ক্যানেলে পানি যাচ্ছে না। তিনি বলেন, তিস্তার পানি প্রবাহ বৃদ্ধি না পেলে দ্রুত উপকারভোগীদের নিয়ে তিস্তা ব্যারেজে অবরোধ করা হবে। তিনি আরও বলেন, সেচ মুখ্যম সময় কৃষকরা পানি অভাবে রোবো ক্ষেতে চারা রোপন করতে পারবে না।

তিস্তা ব্যারাজ সেচ প্রকল্পের সম্প্রসারন কর্মকর্তা রাফিউল বারী জানান, চলতি রবি ও খরিপ-১ মৌসুমে তিস্তা ব্যারাজ কমান্ড এলাকায় আনুষ্ঠানিক ভাবে সেচ প্রদান শুরম্ন করা হয়। উজানের প্রবাহ কম থাকার বর্তমানে যে পানি রয়েছে তাতে করে মাত্র ৫ শ হেক্টর জমিতে সেচ দেয়া সম্ভব হবে। দিন দিন তিসত্মার নদীর পানি কমে মরুভুমিতে পরিনত হচ্ছে। ফলে তিস্তা ব্যারাজের কমান্ড এলাকায় সম্পুরক সেচ কার্যক্রম পরিচালনা করা কঠিন হয়ে পড়ছে। বর্তমানে তিসত্মার পানি প্রবাহ বিষয়ে সম্প্রসারন কর্মকর্তা রাফিউল বারী বলেন গত এক সপ্তাহ আগে তিস্তা নদীতে পানির প্রবাহ ৯ কিউসেক থাকলেও বৃহস্পতিবার আশংকাজনকভাবে কমে গিয়ে সর্বনিম্ন পর্যায়ে রয়েছে। বোরো আবাদে কমান্ড এলাকায় কৃষকদের সেচ চাহিদা বেড়েছে। এ অবস্থায় রেশনিং পদ্ধতিতে কৃষকদের সেচ দিতে হচ্ছে। তাও চাহিদা অনুযায়ী সম্ভব হচ্ছে না।

তিস্তার প্রধান সেচ ক্যানেলের আর ওয়ান টি ক্যানেলে ভাটি ও এস থ্রি টি শাখা ক্যানেল পানি শুন্য। বৃহস্পতিবার দুপুরের তোলা ছবি ।

Spread the love