মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তৃতীয় দিনও রাঙ্গাবালীর নিমণাঞ্চল প্লাবিত

রাঙ্গাবালী, পটুয়াখালী : পূর্ণিমার জোয়ারের প্রভাবে তৃতীয় দিন গতকাল সোমবার পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার নিম্নাঞ্চলীয় এলাকা বঙ্গোপসাগরের অস্বাভাবিক জোয়ারের পানি ঢুকে প্লাবিত হয়েছে। জোয়ারের পানিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বীজ তলা, ভেঙ্গে গেছে এলাকার রাস্তাঘাট, ভেসে গেছে পুকুর ও ঘেরের কয়েক লাখ টাকার মাছ।

গতকাল সোমবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার বাহেরচর স্কুল মাঠ সংলগ্ন এলাকায় বেড়িবাঁধের উপর দিয়ে পানি ঢুকে আশপাশের বসতঘর তলিয়ে গেছে। অনেকে ঘর ছেড়ে রাসত্মায় দাঁড়িয়ে রয়েছে। কখন জোয়ারের পানি নামবে আর কখন ঘরে যেতে পারবে। অপরদিকে ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়নের চতলাখালী গ্রামের বেড়িবাঁধের বাহিরে প্রায় ৩০টি বসতঘর-বাড়ি পানির নিচে তলিয়ে রয়েছে।

জানা গেছে, প্রথম ও দ্বিতীয় দিনের মত গতকাল সোমবার চরমোমত্মাজের সাগরপাড় বাজার, আলেকান্দা, আদর্শ গ্রাম, মধ্য চরআন্ডা, চরআন্ডা, রাঙ্গাবালীর বাহেরচর বাজার, বাহেরচর স্কুল রোড এলাকা, কাজিরহাওলা, পশুরবুনিয়া, গঙ্গিপাড়া, বড়বাইশদিয়া ইউনিয়নের চরগঙ্গা দারুন, মধুখালী, আশা বাড়িয়া, টুঙ্গিবাড়িয়া, জাহাহাজমারা, চালিতাবুনিয়া ও ছোটবাইশদিয়াসহ বেশ কিছু এলাকা পস্নাবিত হয়েছে।

চতলাখালী গ্রামের গৃহবধূ খুশি বেগম বলেন, ‘আমরা নদীর পাড়ে থাকি একটু জোয়ারের পানি উঠলেই ঘর ছেড়ে উঁচু রাসত্মার উপর আশ্রয় নিতে হয়। প্রতি আমবস্যা ও পূর্ণিমার জোয়ারের প্রভাবে ঘর-বাড়ি তলিয়ে গিয়ে আমাদের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়। কিন্তু সামান্য একটু ঝড় হলে সহযোগীতা আসে। অথচ এই জোয়ারের পানিতে আমাদেরকে সর্বশান্ত করে দেয় সরকার এতে আমাদেরকে কোন সহযোগীতা করেনা।’

একই গ্রামের মোনতাজউদ্দিন বলেন, ‘বড় বড় এক একটা ঝড়ের চাইতে আমবস্যা আর পূর্ণিমার জোতে যে, ভাবে পানি উঠে তা কোন অংশে কম না। কিন্তু সরকারি ভাবে নেওয়া হচ্ছেনা কোন ব্যবস্থা। এনিয়ে কারও নেই কোন মাথা ব্যাথা।’