শুক্রবার ২৭ মে ২০২২ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তৃতীয় রাজনৈতিক শক্তি প্রয়োজন : রব

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি’র সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেছেন, ‘দুইজোটের বাইরের লোকদের একত্রিত হয়ে এদের বলতে হবে, জনগণ আপনাদের চায় না। অনেক মানুষ পোড়াইছেন, ক্রসফায়ার দিছেন, এবার থামেন। প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন, সবাইকে ডাকেন। আলোচনা করে নির্বাচন দেন।  এখন তৃতীয় রাজনৈতিক শক্তি প্রয়োজন।’

রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন অব বাংলাদেশ মিলনায়তনে মঙ্গলবার এক আলোচনা সভায় তিনি এ সব কথা বলেন। ৩ মার্চ স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠ দিবস উপলক্ষে এ সভার আয়োজন করে ‘৩ মার্চ ’৭১ উদযাপন কমিটি’।

তিনি বলেন,

সভায় তিনি আরও বলেন, বিএনপি-আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে মানুষের কথা নেই। তারা মরা লাশ হলেও ক্ষমতায় থাকবে। আগে যারা শাসন করেছে, আমরা তাদের ইতিহাস ভুলিনি। চুরি করে কোথায় কত টাকা পাচার করেছে মানুষ জানে। এখন যারা ২০৪১ সাল পর্যন্ত চুরির পরিকল্পনা করছে, তাও জানে। জনগণ বোকা নয়।

রব বলেন, ওই দিন পঙ্গু হাসপাতালে গেলাম। শত শত লোক পঙ্গু হয়েছে পুলিশের গুলিতে। নয়ন বাছার নামের একটা ছেলে আছে। তারে গুলি করে পুলিশ পঙ্গু করে দিয়েছে। ৪ জানুয়ারি সদরঘাটে বাসে আগুন দিয়েছিল। সবাই দৌঁড়াচ্ছে ভয়ে। নয়ন বাছারও দৌঁড়িয়েছে। পুলিশ তাকে ধরে নিয়ে পায়ে ৮টা গুলি করেছে। পুলিশ দাবি করছে, ‘সে বিএনপি-জামায়াতের কর্মী, আগুন দিয়ে পালানোর সময় গুলি করেছে।’ পালানোর সময় গুলি করলে ‘গুলি’ থাকবে পেছনে, সামনে কেন? পায়ে, হাঁটুতে কেন? আগুনে পোড়াদের টাকা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। যারা রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নয়, কিন্তু পুলিশ-র‌্যাব ক্রসফায়ারে দিয়েছে। তাদের টাকা দেবে কে? ওদের কি করবেন? ক্রসফায়ার যতগুলো, সবগুলো হাঁটুর উপর ও পায়ে গুলি। এরা আর চলে ফিরে খেতে পারবে না। প্লিজ একটু পঙ্গু হাসপাতালে গিয়ে দেখে আসেন। এই ক্রসফায়ার কি গণতন্ত্র?

তিনি বলেন, ১৯৭১ সালের ২ ও ৩ মার্চ না হলে বাংলাদেশের স্বাধীনতা হতো না। ২ মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীন পতাকা উত্তোলন দিবস, ৩ মার্চ স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠ দিবস। এটা জাতির অস্তিত্বের ব্যাপার। আপনারা হয়ত কল্পনাও করতে পারবেন না। একটা স্বাধীন দেশে স্বাধীন পতাকা থাকতে আরেকটা পতাকা উত্তোলন! যদি আমরা স্বাধীনতা না পেতাম, তাহলে আমরা যারা এই পতাকা উত্তোলন ও ইশতেহার পাঠ করেছি তাদের কি হতো? ফায়ার দিত। ভ্রুণ হত্যা করবেন না। ভ্রুণ হত্যা করলে শিশু জন্ম নেয় না। ‘নিউক্লিয়াস’ স্বাধীনতার ভ্রুণ।

রব বলেন,  আওয়ামী লীগ তো ‘স্বাধীনতা’ স্বীকারই করে না। ‘স্বাধীনতার ইশতেহার’ কি তাদের দলীয় কোনো মিটিংয়ে পাশ করা হয়েছিল? যারা ‘বীর বাঙালি অস্ত্র ধর….. স্বাধীন কর’ স্লোগান দিয়েছে, তাদের লাঞ্ছিত করা হয়েছিল। আজকে তারাই মন্ত্রী। ২ মার্চ পতাকা উত্তোলন, ৩ মার্চ স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠ ও সিরাজুল আলম খানদের অস্বীকার করলে বাংলার স্বাধীনতা অসত্য হয়ে যাবে।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি নজরুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে ও ব্যারিস্টার শুক্লা সারওয়াত সিরাজের পরিচালনায় সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, লেখক মহিউদ্দিন আহমেদ, সাংবাদিক আবু সাঈদ খান প্রমুখ।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email