শুক্রবার ২ জুন ২০২৩ ১৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

তেঁতুলিয়ার তৈরি টুপি বিদেশে রফতানি

তেঁতুলিয়া, পঞ্চগড় : বিশ্বে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের নিকট ‘টুপি’ সুন্নতি পোশাকের একটি অংশ হিসাবে সারা বছরই চাহিদা থাকে। কিন্তু টুপির গুরম্নত্ব থাকে দৈনন্দিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজে আর চাহিদা বেড়ে যায় ধর্মীয় উৎসব শবেবরাত, ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহার সময়। এবছর ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে টুপির চাহিদা পূরণে তেঁতুলিয়ার সুচি শিল্প টুপি কারখানার কারিগড়রা বর্তমানে দিনরাত টুপি তৈরির কাজে ব্যসত্ম হয়ে পড়েছে দেশের সর্ব উত্তরের সীমামত্মবর্তী উপজেলা তেঁতুলিয়ার আজিজনগর, মাথাফাটা, গ্রামের টুপি পলস্নী এখন সরগরম।

তেঁতুলিয়ার গ্রামীণ জনপদে তৈরিকৃত নিত্য নতুন ডিজাইনে উন্নত মানের টুপি দেশে ও বিদেশে প্রচুর চাহিদা রয়েছে। ১৯৯১ সালে পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার আজিজনগর মাথাফাটা গ্রামে প্রথম টুপি তৈরির কারখানা গড়ে উঠে। এরপর ১৯৯৫ সাল থেকে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে কারখানাগুলো টুপি তৈরি শুরু করে। শিল্প নৈপুণ্য কারুখচিত উন্নতমানের ও সৌন্দয্যের দরুন তেতুলিয়ার টুপির চাহিদা দেশের সর্বত্র বিদ্যমান। দেশের গোন্ডি পেরিয়ে তেতুলিয়ার টুপি এখন রফতানি হচ্ছে সৌদি আরব, মিসর, কুয়েত, ইন্দোনেশিয়া, তাজাকিস্থান, পাকিস্তানসহ মধ্যপ্রাচ্যের বেশ কয়েকটি দেশে। সর্বপ্রথম আল-খাইয়্যাত নামের একটি কারখানা গড়ে উঠলেও বর্তমানে ১০ থেকে ১২টি টুপি কারখানা গড়ে উঠেছে। অবহেলিত একটি গ্রামে ১০/১২টি সুচি শিল্প টুপি কারখানা গড়ে ওঠায় অনেক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

এসব কারখানায় বিভিন্নভাবে কাজ করছে এলাকার শিক্ষিত বেকার যুব-যুবতি ও কর্মহীন মানুষেরা। ফলে এলাকার বেকার সমস্যার সমাধান সহ অবসর সময়ে কাজের মাধ্যমে বাড়তি আয়ের পথ সুগম হওয়ার পাশাপাশি বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন হচ্ছে।

আকস্মিকভাবে জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাওয়াসহ নিরবিচ্ছিন্ন বিদূৎ& সরবরাহের পাশাপাশি সরকারের আর্থিক সহায়তার অভাবে এই শিল্পটি বর্তমানে ধ্বংসের দ্বার প্রান্তে। এছাড়াও চায়না টুপির কারণে এ টুপির মান ও সুনাম ঠিক থাকলে তাদের সঙ্গে টিকে থাকা সম্ভব হচ্ছে না্এই দেশীয় শিল্পটির। ফলে কারখানার মালিকেরা অনেকে এ পেশা ছেড়ে দিয়ে অন্য পেশার কথা ভাবছে। গ্রামীণ অর্থনীতির মাইলফলক হিসেবে সম্ভাবনার এই দ্বার তেঁতুলিয়ার প্রত্যন্ত এলাকার প্রামিত্মক মানুষের জীবন-জীবিকার গতি পথ বদলে দিয়েছে।

টুপি তৈরির কারখানাগুলো গ্রামের দরিদ্র বেকার মানুষদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে। দেশীয় এই শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখাসহ এই টুপির ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে হলে ক্ষুদ্র কুটির শিল্প বিকাশে সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা ও আর্থিক সহযোগিতা সহজীকরণ সবার আগে প্রয়োজন বলে মনে করছেন এলাকার মানুষ। আর এই পদক্ষেপ গ্রহণ করলে আয় হবে বৈদেশিক মুদ্রা এবং গ্রামের মানুষকে কাজের সন্ধানে শহরমুখী হতে হবে না।