শনিবার ২১ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তেতুঁলিয়ায় সার কারখানার দুর্গন্ধে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ

মোঃ এনামুল হক ,পঞ্চগড় প্রতিনিধি : পরিবেশ অধিদপ্তরের কোন রকম ছাড়পত্র ছাড়াই পঞ্চগড়ের তেতুঁলিয়ার বুড়াবুড়ি ইউনিয়নের হারাদিঘীতে সারের কারখানা থেকে নির্গত দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে এলাকার জনগন। মাত্র কয়েকদিন আগে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সহ সংশিস্নষ্ট দপ্তরে পৃথক পৃথক ভাবে লিখিত অভিযাগদেওয়া হয়েছে।ওই অভিযোগ থেকে জানা গেছে,উত্তরা কাজী কম্পোস পাস্নন নামক কারখানা থেকে নির্গত দুর্গন্ধ ইউনিয়নের হারাদিঘী,লালগছ,সরকারপাড়া,বালাবাড়ীসহবেশ কিছু গ্রামে ছড়িয়ে পড়েছে।এতে সব বয়সী মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ছে। স্কুলগুলোতে ছাত্রছাত্রীর উপস্থিতি কমে গেছে।

 

সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে,ওই সার খানাটি পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই গত ৪ ডিসেম্বর উৎপাদনে যায়। কারখানটির চারপাশে কোন সীমান প্রচীর নেই।এতে রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মুরগীর বিষ্ঠাসহ নানা রকম ময়লা আবর্জনা ট্রাকে করে এনে কারকানার উম্মুক্ত জায়গায় ফেলে রাখা হয়। এছাড়া কারখানার কাজও সর্ম্পূন শেষ হয়নি। শুধু একটি ছাউনীর কাজ শেষ হয়েছে। উক্ত কারখানাটি শালবাহান বাজার ও রাস্তার পাশে হওয়ায় লোকজন চলাফেরা করতে পারছেনা।

 

স্থানীয় গিতালগছ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হামিদুল ইসলাম জানান, সময় কম লাগে বলে তিনি এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করেন। অথচ এখন তাকে তিনটি ইউনিয়ন পার হয়ে প্রায় ১২ কিঃমিঃ ঘুরে যেতে হয়।

 

হারাদিঘী দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য আনিছুর রহমান ও প্রধান শিক্ষক আজিজার রহমান জানান, রাতে বেলা দুর্গন্ধে শ্বাস নিতে কষ্ট হয়।

 

বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেনীর ছাত্র মেহেদী হাসান ও নবমশ্রেনীর ছাত্র আসিফ জানায়, দুর্গন্ধের কারনে তারা স্কুলেই বমি করছে। হারাদিঘীর মফিজ (৫৫) রমজান আলী (৬০)রোকেয়া(৪২) রফিকুল (৪০) জানান, যখন কারখানা চালু করে তখন বাসাতেই থাকা মুশকিল হয়ে পড়ে। এবং ভাত খেতে বসলে খাওয়া যায়না। পরিবেশ অধিদপ্তরের রংপুর বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক উসমান গনি জানিয়েছেন, ওইকোম্পানী কোনো পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র নেননি। ওই কারখানার ইনচার্জমো. মঞ্জুর আলম বলেন, দুর্গন্ধ বের হয়না যে,তা নয়, তবে অল্প। তিনি এও বলেন, পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদন নেওয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এদিকে তেতুঁলিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন জানান, বিষয়টি তদন্তে উপজেলা প্রাণী সম্পদেরভেটেনারী সার্জন এবং অত্র বুড়াবুড়ি ইউপিচেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কে তদন্ত দেওয়া হয়েছে। তাদের রিপোর্ট সমন্বয় করে ব্যবস্থানেওয়া হবে।

হারাদিঘীর বাসিন্দা মো. শাহজাহান জানান, কারখানার সন্নি্কটে ভারতের বিএসএফ ক্যাম্প রয়েছে। তারাও দুর্গন্ধের কারনে বাংলাদেশের বিজিবি ক্যাম্প ভুতিপুকুরীকে অভিযোগ দিয়েছে।এলাকাবাসী তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে সুস্থ্য ভাবে বসবাস করার জন্য অনতিবিলম্বে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার দাবী জানিয়েছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email