শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দক্ষিণ তালপট্টি দ্বীপ ভারতের!

Talpottyসমুদ্রসীমা নিয়ে বিরোধ নিষ্পত্তি মামলার রায়ে বাংলাদেশ লাভবান হলেও দক্ষিণ তালপট্টি দ্বীপের মালিকানা চলে গেছে ভারতের দখলে। আজ মঙ্গলবার দুপুর ২টায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার সমুদ্রসীমা নিয়ে বিরোধ নিষ্পত্তি মামলার রায়ের বিস্তারিত তুলে ধরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমদু আলী বলেন, বঙ্গোপসাগরে ২০০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত একচ্ছত্র অর্থনৈতিক অঞ্চলে এবং এর বাইরে মহীসোপান অঞ্চলে বাংলাদেশের নিরঙ্কুশ ও সার্বভৌম অধিকার নিশ্চিত করে রায় ঘোষণা করেছে আদালত। তবে বিরোধপূর্ণ দক্ষিণ তালপট্টি দ্বীপ বাংলাদেশে সীমানায় আসেনি বলে রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে। এ দ্বীপ নিয়ে বাংলাদেশ দাবি করতে পারবে না বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সমুদ্র বিষয়ক সচিব রিয়ার এডমিরাল অব. মো. খুরশেদ আলম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দিপু মণি, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মুস্তাফা কামাল, মেরিটাইম ইউনিটের সচিব রিয়াল এডমিরাল (অব.) খুরশিদ আলম প্রমুখ।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ রায়ের মধ্যে দিয়ে গভীর সাগরে মৎস্য আহরণ এবং সমুদ্র তলদেশে প্রাকৃতিক সম্পদ অনুসন্ধান ও উত্তোলনে আমাদের সার্বভৌম অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তিনি বলেন, ১৯৭৫ পরবর্তী সরকার সমুদ্র ও সমুদ্র সম্পদের বিষয়টি উপলব্ধিই করতে পারেনি। বঙ্গবন্ধুকন্যা ২০১০ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর জরিপ কাজ শেষ হয়। জাতিসংঘ সময়সীমার বাধ্যবাধকতা শেষ হওয়ার পরে সকল প্রয়োজনীয় দাবিনামা জাতিসংঘে পেশ করা হয়। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা সমুদ্র সম্পদকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে সমুদ্রসীমা নির্ধারণের পদক্ষেপ নেন। এ রায় উভয় রাষ্ট্রের জয় নিশ্চিত করেছে। এ বিজয় বন্ধুত্বের বিজয়। কেননা তিন দশকের বেশি সময় ধরে উভয় রাষ্ট্রের মধ্যে বিদ্যমান এই সমস্যা যা দুই দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছিল তার নিষ্পত্তি আন্তর্জাতিক আইনের মধ্য দিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে হলো।
জানা যায়, বিরোধপূর্ণ এলাকা ছিল প্রায় ২৫ হাজার ৬০২ বর্গকিলোমিটার। এ এলাকার ১৯ হাজার ৪৬৭ বর্গকিলোমিটার এলাকা বাংলাদেশ পেয়েছে। বাকি অংশ পেয়েছে ভারত। রায়ের ফলে শেষ পর্যন্ত এক লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গকিলোমিটারের বেশি টেরিটোরিয়াল সমুদ্র, ২০০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত অর্থনৈতিক অঞ্চল ও চট্টগ্রাম উপকূল থেকে ৩৫৪ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত মহীসোপানের তলদেশে অবস্থিত সবধরনের প্রাণিজ ও অপ্রাণিজ সম্পদের ওপর বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। নেদারল্যান্ডসের স্থায়ী সালিসি আদালত সোমবার এ রায় ঘোষণা করে। রায়ের কপি গতকাল দুপুরেই বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। কিন্তু আদালতের কার্যবিধি অনুযায়ী রায়টি ৮ জুলাইয়ের আগে জনসমক্ষে প্রকাশ করার বিষয়ে নিষেধ ছিল। নেদারল্যান্ডসের রাজধানী হেগে অবস্থিত স্থায়ী সালিসি আদালতে ২০১৩ সালের ৯ থেকে ১৮ ডিসেম্বর সমুদ্রসীমা নির্ধারণের পক্ষে বাংলাদেশ ও ভারত যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করে। শুনানি শেষে আদালতের পক্ষ থেকে বলা হয়, কার্যবিধির ১৫ ধারা অনুযায়ী, ছয় মাস পর রায় দেয়া হবে। এখন থেকে ২০০ নটিক্যাল মাইলের বাইরে মহিসোপানে বাংলাদেশের অবাধ প্রবেশ অধিকার সুরক্ষিত, গভীর সাগরে মৎস্য আহরণ এবং সমুদ্র তলদেশে প্রাকৃতিক সম্পদ অনুসন্ধান ও উত্তোলনে আমাদের সার্বভৌম অধিকার প্রতিষ্ঠিত হলো।
৩ দশকের বেশি সময় ধরে আলোচনার পর মিয়ানমার ও ভারতের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধ নিষ্পত্তি না হওয়ায় ২০০৯ সালের ৮ অক্টোবর সালিসি আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। এ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নির্ধারণের জন্য বাংলাদেশ জার্মানির হামবুর্গভিত্তিক সমুদ্র আইনবিষয়ক আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালে (ইটলস) মামলা করেছিল। ২০১২ সালের ১৫ মার্চ ইটলস বাংলাদেশের পক্ষে রায় দেয়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email