শুক্রবার ২৭ মে ২০২২ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দফায় দফায় হামলায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় রণক্ষেত্র।অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা

Ruসাব্বির অনিক রাজশাহী থেকে: দফায় দফায় হামলার ঘটনায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রসাশন। আগামীকাল সোমবারের মধ্যে সকল শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আজ রবিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশ ও ছাত্রলীগের হামলায় ৩০ জন গুলিবিদ্ধসহ শতাধিক শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। এর মধ্যে এবিনিউজ প্রতিনিধিসহ ৫ জন সাংবাদিকও আহত হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ক্যাম্পাসে ২ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। অন্যদিকে আজ সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে সিন্ডিকেট বৈঠক ডেকেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বর্দ্ধিত ফি প্রত্যাহার ও সান্ধ্যকোর্স বাতিলের প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনের অংশ হিসেব্ে রোববার সকাল ৮টা থেকে কর্মসূচী পালন করছিল শিক্ষার্থীরা। বেলা সাড়ে ১১টা সময় শিক্ষার্থীরা প্রসাশন ভবনের সামনে শান্তিপূর্ণ অবস্থান কর্মসূচী পালন করছিল। এ সময় সহকারী প্রক্টর সিরাজুল ইসলাম, হেলাল উদ্দিন এবং জুলফিকার আলীর নেতৃত্বে পুলিশ বাহিনী তাদেরকে উঠে যাওয়ার নির্দেশ দেয়। একই সময় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের একটি মিছিল সেখান দিয়ে অতিক্রম করে আন্দোলনকারীদের পূর্ব পাশে অবস্থান নেয়। এ সময় তারা বিনা উস্কানিতেই আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর ককটেল এবং ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। একই সময় পশ্চিম দিক থেকে পুলিশও শিক্ষার্থীদের লক্ষ্য করে টিয়ায়শেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এতে শিক্ষার্থীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে দিক-বিদিক ছুটাছুটি করতে থাকে। এ সময় কমপক্ষে অর্ধশতাধিক জন শিক্ষার্থী আহত হয়। এ সময় শিক্ষার্থীরা পুরাতন ফোকলোর মাঠে অবস্থান নিলে ছাত্রলীগ সেখানেও হামলা চালায় এবং বেধরক মারপিট করে। পরে বিভিন্ন আবাসিক হলে পুলিশ ও ছাত্রলীগের পৃথক হামলায় কমপক্ষে একশ জন আহত হয়।
সকালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশ ও ছত্রলীগ কয়েক দফা হামলায় পুরো ক্যাম্পাস রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এতে ছাত্রলীগের ককটেল আর পুলিশের বেপরোয়া গুলিতে শতাধিক গুলিবিদ্ধসহ ২ শতাধিক শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। এদের মধ্যে প্রায় ৩০ জনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্র ও বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। আহদের মধ্যে অন্তত ৭ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। রবিবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে বেলা আড়াইটা পর্যন্ত দফায় দফায় ছাত্রলীগ ও পুলিশ প্রথমে সম্মিলিত পরে পৃথকভাবে শিক্ষার্থীদের হামলা চালায়।
ঘটনার প্রতিবাদে সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি ভবনে ভাংচুর চালায়। এ ঘটনায় ক্যাম্পাসে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রোভিসিসহ প্রসাশনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের পদত্যাগ দাবী করেছেন। আর সাংবাদিকরা ৪ কর্মকর্তার প্রত্যাহার দাবি জানিয়েছে।
বেলা পৌনে ২টার দিকে আবাসিক হলে হামলার প্রতিবাদে একটি বিক্ষোভ মিছিল ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ শেষে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে মিলিত হয়। এসময় আন্দোলন নতুন মাত্রা নেয়ায় তাদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ রাবার বুলেট, টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে। পরে শিক্ষার্থীরা জুরেরী মাঠে জড়ো হলে সেখানেও পুলিশ তাদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় অন্তত আর অর্ধশত শিক্ষার্থী আহত হয়। পরে বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা দুটি মাইক্রোবাস, ভিসির বাসভবন, ও কয়েকটি একাডেমিক ভবনে ভাঙচুর করে। তবে প্রথম দফা হামলার পরে শিক্ষার্থীদের একটা বড় অংশ কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের ভেতরে অবস্থান নেয়। পরে তারা  দিন দফার সাথে আরও তিন দফা দাবিতে লাগাতার আন্দোলনের ঘোষণা দেয়। যেকোন সময় আবারো সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন অনেকে।
এদিকে প্রথম দফায় হামলার পরে ক্যাম্পাসে কর্মরত সাংবাদিকরা আরএমপি পুলিশের উপকমিশনার (পূর্ব) প্রলয় চিসিমের কাছে হামলা সংক্রান্ত্র পুলিশের বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন। এ সময় তার ও তিন সহকারী প্রক্টর সিরাজুল ইসলাম, হেলাল উদ্দিন এবং জুলফিকার আলীর নির্দেশে পুলিশ সাংবাদিকদের উপর রাবার বুলেট এবং লাঠিচার্জ করেন। এতে কমপক্ষে ১০ সাংবাদিক আহত হয়। আহতরা হলেন মাছরাঙ্গা টিভির গোলাম রাব্বানী, বিডি নিউজ এর নাদিম মাহমুদ, শীর্ষ নিউজের জাকির হোসেন তমাল, নিউজ এইজের নাজিম মৃধা, দৈনিক মানবকণ্ঠের বুলবুল আহমেদ ফাহিম, জহুরুল ইসলাম মুন, মেহেদীসহ আরো কয়েকজন। প্রতিবাদে সাংবাদিকরা তৎক্ষনাত  লাইব্রেররি সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন এবং বিকেল ৫টার মধ্যে ঘটনার সাথে জড়িত তিন সহকারী প্রক্টরের প্রত্যাহার এবং উপ-কমিশনার প্রলয় চিসিমের অপসারন দাবী করেন। বিশ্ববিদ্যালয় ভিসি সাথে সাক্ষাৎ করে ক্যাম্পাসের সাংবাদিক নেতারা তাদের এই দাবী জানান।
আজ সন্ধ্যায় ৭টায় ভিসির বাসভবনে জুরুরী সিন্ডকেট আহ্বান করা হয়েছে। এতে ক্যাম্পাস বন্ধ করে সব আবাসিক হল খালি করার নির্দেশ দেয়া হতে পারে। এ বিষয়ে পুলিশের উপকমিশনার প্রলয় চিসিম বলেন, উদ্বুদ্ধ পরিস্থিতি আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নির্দেশেই গুলি চালিয়েছি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email