বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দলীয়ভাবেই সব নির্বাচন করার পক্ষে প্রধানমন্ত্রী

প্রচলিত জাতীয় নির্বাচনের পাশাপাশি দেশের সব স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোর নির্বাচনও দলীয়ভাবেই আয়োজন করার পক্ষে মত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ বুধবার সন্ধ্যায় জাতীয় সংসদে তার জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে এক প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে প্রাসঙ্গিক আলোচনায় তিনি এ মত প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবেই করা উচিত। বিষয়টি জরুরিভাবে বিবেচনা করা উচিত বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচন নির্দলীয়; কিন্তু যখন হিসাব করা হয় তখন দলীয়ভাবেই হিসাব করা হয়। পত্রপত্রিকাগুলোও সেভাবেই লেখে। তাই স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবে ব্যবস্থা করা উচিত। এই বিষয়টা জরুরিভাবে করা উচিত।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নির্বাচনের সময় নির্বাচন কমিশন যেভাবে চাইবে, সেভাবেই ব্যবস্থা নিতে পারবে। কমিশন সুষ্ঠু নির্বাচন করতে যে ধরনের সহায়তা চাইবে সরকার সেভাবেই কাজ করবে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, নির্বাচনে আসার মধ্য দিয়ে বিএনপির শুভ বুদ্ধির উদয় হয়েছে। তারা সিটি করপোরেশনে প্রার্থী দিয়েছে। এখন আবার নির্বাচনে আসার পর পিছু হটার ছুতায় লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের সুর তোলে, তাহলে কিভাবে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড হবে সেটা বোধগম্য নয়। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘উনাদের সুরের পেছনে কোন বেসুর বাজে, তা বোধগম্য নয়।

সংসদ নেতা বলেন, নির্বাচনে আসার মধ্য দিয়ে বিএনপির শুভ বুদ্ধির উদয় হয়েছে। তারা প্রার্থী দিয়েছে। এখন নির্বাচনে আসার পর যদি পিছু হটার ছুতা খোঁজে এবং লেভেল প্লেইং ফিল্ডের সুর তোলে, তাহলে তা গ্রহণযোগ্য হবে না। কারণ বিএনপির দৃষ্টিতে কোনটা কীভাবে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তা প্রধানমন্ত্রীর বোধগম্য নয়। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘উনাদের সুরের পেছনে কোন বেসুর বাজে, তা বোধগম্য নয়।
প্রসঙ্গত বর্তমানে বাংলাদেশে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের সিটি করপোরেশন, উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয়ভাবে অংশ নেয়ার সুযোগ নেই। ফলে বিদ্যমান নির্বাচনী বিধিমালায় এসব নির্বাচনে দলীয়ভাবে প্রচার-প্রচারণা চালানো, প্রতীক কিংবা দলের নেতার নাম-ছবি ব্যবহারেও নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে এসব নির্বাচনে প্রধানত বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারাই প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আসেন এবং প্রায় সময়ই দলীয়ভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রার্থী ঠিক করা হয়ে থাকে।
অবশ্য তার আগে গত ২০১৪ সালে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ভবিষ্যতে স্থানীয় নির্বাচনও দলীয়ভাবে করার পক্ষে অবস্থান জানিয়ে আইন সংশোধনের উদ্যোগ নেওয়ার কথা বলেছিলেন। এরপর আর কোনো উদ্যোগ দেখা না গেলেও এক বছর পর সংসদে আবার এই মত প্রকাশ করলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

Spread the love