বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দশম জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন রাষ্ট্রপতির ভাষণ

Sansodবুধবার সংসদে দশম জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনে দেয়া ভাষণে আব্দুল হামিদ বলেন, নির্বাচন পদ্ধতির পরিবর্তনের আন্দোলনের নামে সন্ত্রাস ও হিংসার রাজনীতি কখনও দেশ, সমাজ ও অর্থনীতির জন্য কল্যাণকর হতে পারে না। বরং তা রাজনৈতিক পরিবেশকে তমসাচ্ছন্ন করে তোলে। তিনি বলেন, জাতীয় ঐকমত্য ব্যতিত শান্তি ও সমৃদ্ধি স্থায়ী রূপ পেতে পারে না। গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা, আইনের শাসন ও অব্যাহত আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের মতো মৌলিক প্রশ্নে সব রাজনৈতিক দল, শ্রেণী ও পেশা নির্বিশেষে সকলের ঐকমত্য গড়ে তুলতে সম্মিলিত উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।
রাষ্ট্রপতি বলেন, গত পাঁচ বছর শান্তি, গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির যে পথে আমরা হেটেছি সে পথেই বাংলাদেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। আমাদের দৃষ্টি ২০২১ সাল ছাড়িয়ে আরও সামনের দিকে অর্থাৎ ২০৫০ সালের দিকে প্রসারিত করতে হবে। যখন বাংলাদেশ বিশ্ব সভায় একটি উন্নত ও আলোকিত দেশ হিসেবে আপন মহিমায় সমাসীন ও উদ্ভাসিত হবে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, দশম জাতীয় সংসদ হবে গণতন্ত্র, উন্নয়ন, আইনের শাসন ও সংবিধানের ধারাবাহিকতা রক্ষার অতন্দ্র প্রহরী। এই সরকারকে পুনরায় নির্বাচিত করে জনগণ মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলোকে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত, সন্ত্রাসমুক্ত ও সাম্প্রদায়িকতামুক্ত বাংলাদেশ গড়ার মেন্ডেট দিয়েছে। জনগণের আকাক্সক্ষা অনুযায়ী সরকার জাতীয় জীবনে সকল ক্ষেত্রে সুশাসন ও উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে সক্ষম হবে বলে রাষ্ট্রপতি আশা ব্যক্ত করেন। নতুন সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পর জাতীয় জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে নতুন প্রাণ সঞ্চারিত হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি আশা করি বিভিন্ন ক্ষেত্রে সরকারের গৃহীত নানামুখী উদ্যোগ আরও সুসংহত ও গতিশীল হবে। আমার বিশ্বাস সরকার জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস ও সাম্প্রদায়িকতা দূর করে রাষ্ট্র ও সমাজ জীবনে শান্তি, শৃংখলা ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখবে।

আব্দুল হামিদ বলেন, প্রধান বিরোধীদলের অসহযোগিতার প্রেক্ষাপটে অন্যান্য রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করা হয়। সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা অনুযায়ী দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রতিকূল পরিবেশ সত্ত্বেও অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিন্তু নির্বাচনকালীন সহিংসতায় ধ্বংস করা হয়েছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সরকারি ভবন ও ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান। নির্বাচন-পরবর্তী সময়েও মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর চড়াও হয়ে জানমালের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করা হয়েছে। রাজনীতির নামে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টির এ ধরনের অপচেষ্টা দমন করতে হবে। জনমনে স্বস্তি ফিরিয়ে আনতে হবে।
রাষ্ট্রপতি বলেন, ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে মহাজোট সরকার দেশ পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করেছিল। জনগণের রায় ছিল রূপকল্প ২০২১-এর প্রতি তাদের অকুণ্ঠ সমর্থনের বহিঃপ্রকাশ। এটি ছিল মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ভিত্তিতে একটি প্রগতিশীল, সমৃদ্ধ, আধুনিক ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তোলার অঙ্গীকার। এর মাধ্যমে হত্যা, ষড়যন্ত্র, যুদ্ধাপরাধ ও মানবতা বিরোধী অপরাধের বিচারের মাধ্যমে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার দৃঢ় সমর্থন ব্যক্ত হয়েছিল। এসব লক্ষ্য অর্জনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার পরিপূর্ণভাবে সফল হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
আবদুল হামিদ বলেন, মেয়াদের শুরু থেকেই মহাজোট সরকার দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় দৃঢ়প্রতিজ্ঞ থেকেছে। জাতির পিতা ও তাঁর পরিবারবর্গকে হত্যার বিচারের রায় কার্যকর করার মাধ্যমে জাতি তার কলঙ্কের দায় লাঘব করতে সমর্থ হয়েছে।

গত পাঁচ বছরে মহাজোট সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে তিনি বলেন, ২০০৯ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত রাজস্ব আহরণ, মাথা পিছু আয়, রফতানি আয়, রেমিটেন্সের পরিমাণ ও বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে শুরু করে সামষ্টিক অর্থনীতির প্রায় সকল ক্ষেত্রে লক্ষ্যনীয় উন্নয়ন অর্জিত হয়েছে। দারিদ্র্য হার ২৬ দশমিক ৪ শতাংশ থেকে ২২ শতাংশে নামিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। অর্থনীতিতে গড় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৬ দশমিক ২ শতাংশ। মাথা পিছু আয় উন্নীত হয়েছে ১ হাজার ৪৪ মার্কিন ডলারে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৫ বছরে ৫ দশমিক ৭৮ বিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে ২০১৩ সালের ডিসেম্বরের শেষে ১৮ বিলিয়ন ডলারের বেশি। রাজস্ব আহরণে বার্ষিক প্রবৃদ্ধির হার হয়েছে ১৬ দশমিক ৫ শতাংশ। এ সময়ে দেশে অভ্যন্তরীণ ও বিদেশী বিনিয়োগ বেড়েছে। মোট বিনিয়োগ হয়েছে জিডিপির ২৫ দশমিক ৫ শতাংশ হারে। দেশী-বিদেশী প্রায় ৬ হাজার বৃহৎ শিল্প প্রকল্প নিবন্ধিত হয়েছে এ সময়ে। শিল্পোন্নয়নের লক্ষ্যে ৭টি বিশেষ অর্থনীতি অঞ্চল গড়ে তোলা হয়েছে। অন্যদিকে বার্ষিক বাজেটের আকার ৮৭ হাজার ১৩৭ কোটি টাকা থেকে ২ লক্ষ ২২ হাজার ৪৯১ কোটি টাকায় বৃদ্ধি করা হয়েছে।
আব্দুল হামিদ  বলেন, এ সময়ে (গত পাঁচ বছরে) সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী সারাদেশে ব্যাপকভাবে প্রসারিত হয়েছে এবং খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে। মজুরির হার বেড়েছে। মানুষের ক্রয়ক্ষমতা এবং আয় বৃদ্ধি পেয়েছে। একই সাথে জাতীয় উৎপাদনও বেড়েছে। কৃষি গবেষণা ও আধুনিকায়নে অর্জিত হয়েছে ব্যাপক সাফল্য। মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়ে ৩৩ লক্ষ ৯২ হাজার মেট্রিক টন হয়েছে। পানি সম্পদ খাতে বিভিন্ন কার্যক্রমে ৪৯ লক্ষ বেকার যুবক এবং কৃষকদের প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থান হয়েছে।
রাষ্ট্রপতি বলেন, গত পাঁচ বছরে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা ১০ হাজার ২৬৪ মেগাওয়াটে পৌঁছেছে। বিদ্যুতের সুবিধা ভোগী ৬২ শতাংশ উন্নীত হয়েছে। অফগ্রিড এলাকায় মোট ১২০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন প্রায় ২৭ লক্ষ সোলার হোম সিস্টেম চালু হয়েছে। এছাড়া রাশিয়ান ফেডারেশন সরকারের সহায়তায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়। গত পাঁচ বছরে দৈনিক গ্যাস উৎপাদন প্রায় ৮৩০ মিলিয়ন ঘন ফুট বৃদ্ধি করা হয়েছে। তিনি বলেন, বিগত পাঁচ বছরে দুর্নীতি দমন ও প্রতিরোধ কার্যক্রমে ব্যাপক গুণগত পরিবর্তন করার ফলে দুর্নীতি হ্রাস পেয়েছে। রাষ্ট্র ও সমাজে দুর্নীতি প্রতিরোধের লক্ষ্যে মন্ত্রিসভা ‘জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল’ গ্রহণ করেছে। এছাড়াও কঠোর হস্তে জঙ্গিবাদ দমন করা হয়েছে। সরকার পুলিশ বাহিনীকে আধুনিক এবং সময়ের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সক্ষম হিসেবে গড়ে তুলতে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।
রাষ্ট্রপতি বলেন, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনের জন্য বাংলাদেশ ও প্রধানমন্ত্রীকে এমডিজি এওয়ার্ড, ২০১০, ইন্দিরা গান্ধী শান্তি পুরস্কার, ২০১০, সাউথ-সাউথ এওয়ার্ড, ২০১১, ইউনেস্কো কালচারাল ডাইভার্সিটি পদক, ২০১২, এফএও ডিপ্লোমা এওয়ার্ড, ২০১৩ এবং সাউথ-সাউথ কো-অপারেশন এওয়ার্ড, ২০১৩-তে পদকে ভূষিত করা হয়েছে। ২০০৯ সাল হতে বাংলাদেশ অগ্রগতি ও সমৃদ্ধির যে পথ অতিক্রম করেছে তার ধারাবাহিকতা বজায় রেখে একটি দীর্ঘমেয়াদী উন্নয়ন কৌশল প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের মাধ্যমে সরকার ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করবে বলে ভাষণে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
রাষ্ট্রপতি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন। একই সঙ্গে কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা অমর শহীদ এবং জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, এম মনসুর আলী এবং এইচ এম কামরুজ্জামানকে। রাষ্ট্রপতির ভাষণে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহকর্মী এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক মো. জিল্লুর রহমানকেও ভারাক্রান্ত হৃদয়ে স্মরণ করেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email