বুধবার ১৭ অগাস্ট ২০২২ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় নিজামী, বাবর, পরেশসহ ১৪জনের মৃত্যুদণ্ড

বহুল আলোArmsচিত ১০ ট্রাক অস্ত্র চোরাচালান মামলায় জামায়াতে ইসলামীর আমীর মতিউর রহমান নিজামী, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান  বাবর ও ভারতের শীর্ষ সন্ত্রাসী পরেশ বড়ুয়াসহ ১৪ জনের মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে এবং ১৪ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে একটায় চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ ও বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-১-এর বিচারক এস এম মুজিবুর রহমান আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত অন্য আসামিরা হলেন- ডিজিএফআই-এর সাবেক মহাপরিচালক মেজর জেনারেল (অব.) রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী, এনএসআই-এর সাবেক মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মো. আবদুর রহীম, সাবেক পরিচালক উইং কমান্ডার (অব.) সাহাব উদ্দিন আহাম্মদ, সাবেক উপ-পরিচালক মেজর (অব.) লিয়াকত হোসেন, সাবেক মাঠ কর্মকর্তা আকবর হোসেন খান, সিইউএফএল-এর সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মহসিন উদ্দিন তালুকদার, মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) কে এম এনামুল হক, হাফিজুর রহমান ও দীন মোহাম্মদ।

২০১৩ সালের ১০ অক্টোবর মামলার আইও মনিরুজ্জামানের জেরা শেষ হওয়ার মধ্য দিয়ে এ ঘটনায় দায়ের হওয়া দুটি মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়। অস্ত্র মামলায় মোট ৫৬ জন এবং চোরাচালান মামলায় মোট ৫৩ সাক্ষী সাক্ষ্য দেন।

অধিকতর তদন্তের পর অস্ত্র মামলায় ৫০ জন এবং চোরাচালান মামলায় ৫২ জনকে আসামি করে বিচারকাজ চলে। একইসঙ্গে চলা দুই মামলায় সাক্ষী করা হয় ২৬৫ জনকে। আসামিদের মধ্যে বেশ কয়েকজন ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। তবে চাপ দিয়ে ওই জবানবন্দি নেওয়া হয় বলেও পাল্টা অভিযোগ করেছেন কয়েকজন আসামি।

এর আগে ২০১১ সালের ২৬ জুন এ মামলায় নতুনভাবে আরো ১১ আসামির নাম অন্তর্ভুক্ত করে আদালতে সম্পূরক চার্জশিট দাখিল করেন সিআইডি চট্টগ্রাম অঞ্চলের তৎকালীন এএসপি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান চৌধুরী।

২০০৯ সালের ২৯ জানুয়ারি সিআইডির এএসপি ইসমাইল হোসেন এবং পরে সিআইডি চট্টগ্রাম অঞ্চলের সিনিয়র এএসপি মনিরুজ্জামান চৌধুরী পুনঃতদন্তভার গ্রহণ করেন।

বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে ২০০৭ সালের ২০ নভেম্বর রাষ্ট্রপক্ষ মামলার অধিকতর তদন্তের আবেদন করে। সাতটি পর্যবেক্ষণসহ আদালত অধিকতর তদন্তের আদেশ দেয়।

২০০৫ সালের ৬ জুলাই এ মামলায় বাদি আহাদুর রহমানের সাক্ষ্য দেওয়ার মধ্য দিয়ে বিচার শুরু হয়। এরপর ২৩ অক্টোবর থেকে ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৪২ ধারা অনুসারে আসামিদের পরীক্ষা করা শুরু করে রাষ্ট্রপক্ষ। গ্রেপ্তার ও জামিনে থাকা মোট ৩৮ আসামিকে পরীক্ষা করা হয়।

২০০৪ সালের ৯ নভেম্বর সিআইডির এএসপি নওশের আলী খান চোরাচালান মামলায় ৪৫ জনকে আসামি করে অভিযোগপত্র দেন। একই বছরে ১১ জুন সিআইডির এএসপি কবির উদ্দিন অস্ত্র মামলায় ৪৩ জনকে আসামি করে অভিযোগপত্র দেন।

২০০৪ সালের ১ এপ্রিল সন্ধ্যায় অস্ত্র উদ্ধারের পর সেদিন রাতে কর্ণফুলী থানার ওসি আহাদুর রহমান বাদি হয়ে অস্ত্র ও চোরাচালান আইনে আলাদা দুটি মামলা করেন। এই দুটি মামলার তদন্ত করেন পাঁচ তদন্ত কর্মকর্তা (আইও)।

কর্ণফুলী নদী তীরে রাষ্ট্রায়াত্ত সার কারখানা চিটাগাং ইউরিয়া ফার্টিলাইজার লিমিটেডের (সিইউএফএল) সংরক্ষিত জেটিঘাটে ২০০৪ সালের ১ এপ্রিল মধ্যরাতে ট্রলার থেকে অস্ত্র খালাসকালে পুলিশ ১০ ট্রাক সমপরিমাণ অস্ত্র আটক করে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email