সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের ঐতিহ্যবাহী সব ইফতার

IFterরোযাদারদের চাহিদা মেটাতে প্রতি বছরের মতো এবারো বাহারি সব ইফতার আইটেম নিয়ে হাজির দিনাজপুরের হোটেল, রেস্তোঁরা ও মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। বরাবরের মতো দিনাজপুরের ঐতিহ্যবাহী সব আইটেম তো থাকছেই, সেইসাথে এবার রয়েছে সাধারণ ও অভিজাত এলাকার নানান রকম মুখরোচক খাবার। চাইনিজ রেস্টুরেন্ট আর ফাস্ট ফুডগুলোও এ আয়োজন থেকে পিছিয়ে নেই। থাকছে নানা রকম প্যাকেজ অফার।

দিনাজপুরের সবচেয়ে ঐতিহ্যবাহী আর বড় ইফতারির বাজার বসে দিনাজপুর শহরের বাহাদুর বাজার, স্টেশন রোড ও টিএন্ডটি রোডে। ভোজন বিলাস ইফতারে রয়েছে বেশ বৈচিত্র। চোখ জুড়ানো এসব খাবার খেতেও সুস্বাদু।

আকার, আকৃতি, স্বাদে হরেক রকমের জিলাপি। এখানকার বিখ্যাত ‘শাহী জিলাপি’ আলাদা নাম-ডাক রয়েছে । এ জিলাপি তৈরি করতে বড় করে প্যাঁচ দিতে হয়, জিলাপিও হয় একটু মোটা। ‘জাম্বু’ সাইজের শাহী জিলাপি’র এক একটির ওজন এক পোয়া। বড় বড় প্যাঁচানো জিলাপি বেশ সুন্দর করেই সাজিয়ে রেখেছেন বিক্রেতারা। প্রতি কেজির দাম দেড় থেকে ২০০ টাকা করে হলেও কিনছেন রোযাদাররা।

এছাড়া ১২ পদের জিলাপির মধ্যে শাহী জিলাপি’র পর সবচেয়ে বেশি চাহিদা রয়েছে ‘রসবড়ি’ জিলাপি’র। শিরায় ভেজানো চিকন জিলাপি খেতে চিনির মিষ্টি স্বাদই বেশি পাওয়া যায়। রমজানে এ জিলাপি পাওয়া যায় সব দোকানেই। কেজি ৮০ থেকে ১০০ টাকা। এ জিলাপি আবার আকৃতিতে ছোট বড় হয়।

বৈচিত্র্যময় ইফতারির আয়োজনে চাইনিজ রেস্তোরাগুলোতে পাবেন ডালিম ফলের পাউডারে তৈরি লেবাণীজ সালাদ, কাবলি চানা দিয়ে তৈরি ফালাফেল, সম্পূর্ণ বাষ্পে সিদ্ধ খাসির মাংসে তৈরি খুজি বিরিয়ানিসহ বিভিন্ন খাবার। এসব খাবারই আরবের রান্নার ধরনের তৈরি। ডেজার্টেও থাকছে চমক। পাবেন বাসবুসা, ওমালি, বাথলাবা ও তিউনিসিয়ান খেজুর। এ ছাড়া দেশি নানা পদের ইফতারিও থাকছে। বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য থাকছে ইফতারি প্যাকেজ।

ভাজা-পোড়া খাবারের বদলে খেতে পারেন ন্যানদোসের পেরি-পেরি চিকেন ও ফলা দিয়ে সাজানো এই ইফতারি। একটি কোয়ার্টার চিকেন দিয়ে সাজানো মিলে থাকছে সুস্বাদু ট্রিনচাদো থাই পিস, সঙ্গে অ্যারাবিয়ান পিটা ব্রেড, পেরি ছোলা-বুট, ওয়েজেস, বিভিন্ন রকম ফল, ন্যানদোস স্পেশাল ব্রাউনি, সঙ্গে কোমল পানীয় অথবা পানি।

দ্বিতীয় মেন্যুতে অন্য সব উপাদানের সঙ্গে আছে চিকেন স্টেক। ভোজনরসিকদের জন্য অপর মেন্যুতে থাকছে চিকেন এস্পাতাদা ও সুস্বাদু কর্ন-অন-দ্য-কবের সঙ্গে অন্য সব পদ। এই মিলটিতে আরো পাবেন ন্যানদোসের জনপ্রিয় পানীয় ‘গোয়া লেমন’। বিশেষ এই ইফতারি প্লেটারে থাকবে চারজনের জন্য পূর্ণাঙ্গ এক মিল।

নানা রকম কাবাব, দম বিরিয়ানি, শাহী হালিম, মুর্গ কাবাব ইত্যাদি থাকছে এই আয়োজনে। খাজানা মিঠাঁইয়ে পাবেন নানা পদের মজাদার মিষ্টি। পাবেন প্যাকেট করা লাচ্ছা সেমাইও। মানুষের কাছে ইফতার কেনা অনেকটাই যেন শখের বিষয়। রোজা এলেই এ বাজার হয়ে ওঠে অন্যতম আকর্ষণ। দুপুর থেকেই দোকানের সামনে মাথার ওপর শামিয়ানা টানিয়ে দোকান নিয়ে বসেন। রাস্তার মাঝখানেও বসে সারি সারি দোকান। এছাড়া শরবত, বিশাল শিকের সঙ্গে জড়ানো সুতি কাবাব, আধা কেজি ওজনের শাহি জিলাপি- এসবই এলাকার ঐতিহ্যবাহী ইফতার। থাকবে কাচ্চি, তেহারি, মোরগ পোলাও, ছোলা, মুড়ি, ঘুগনি, বেগুনি, আলুর চপ, জালি কাবাব, শাকপুলি, টিকা কাবাব, ডিম চপ, পিয়াজুসহ শতাধিক ইফতারি উপকরণ।

অন্য যেকোনো রমজানের মতো এবার সব কিছুর দাম আকাশছোঁয়া। বাজারে সুষ্ঠুু মনিটরিং না থাকায় এই প্রবণতা দেখা গেছে সর্বত্র। সরকারি মূল্য তালিকা বাজারের মূল পয়েন্টগুলোতে টাঙানোর কথা। কিন্তু রমজানের তা দেখা যায়নি। ফলে বিক্রেতারা ইচ্ছামতো দাম হাঁকানোর সুযোগ নিচ্ছেন। আবার কিছু দোকানে নামমাত্র মূল্য তালিকা টাঙানো হলেও দামে নেয়া হচ্ছে বাড়তি। সবকিছুকে উপেক্ষা করে ইফতার বাজারে ক্রেতার কোনো কমতি নেই। সবখানেই উপচেপড়া ভিড়।