বৃহস্পতিবার ১১ অগাস্ট ২০২২ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের কর্নাই বাজারের প্রকৃত চিত্র তুলে ধরে ১৮ দলের সংবাদ সম্মেলন

দিনাজপুর প্রতিনিধি : গত ৬ জানুয়ারী সোমবার ও ৭ জানুয়ারি মঙ্গলবার কিছু গণমাধ্যমে ভুল তথ্য পরিবেশন করে বর্তমানে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবীতে আন্দোলনরত ১৮ দলীয় জোটের নামে অপপ্রচার চালানো হয়েছে। সংবাদে উল্লেখ করা হয়, দিনাজপুর সদর উপজেলার করণাই গ্রামে বিএনপি-জামায়াতের হামলায় চারশতাধিক বাড়ি ঘর ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ হয়েছে। প্রকৃত পক্ষে সেখানে কোনো বাড়ীতে হামলা বা অগ্নি সংযোগ হয়নি। প্রকৃত ঘটনা, কর্ণাই বাজারে ১০ থেকে ১৫টি দোকান ছিল সেই দোকানগুলোই আগুনে পুড়েছে। ওই অনাকাঙ্খিত ঘটনার সাথে আমাদের দলের কোনো নেতাকর্মী জড়িত নয়। আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

গতকাল বুধবার দুপুরে জেল রোডস্থ জেলা বিএনপির কার্যালায়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ লুৎফর রহমান মিন্টু ১৮ দলের পক্ষে লিখিত বক্তব্যে এ দাবী করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, সমাজের দর্পণ হিসাবে কাজ করে যাওয়া সংবাদপত্র আমার দেশ, ইসলামিক টেলিভিশন, দিগন্ত টেলিভিশনসহ বিভিন্ন চ্যানেল বন্ধ করে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ কিছু মাধ্যমকে অপব্যবহার করে স্বৈরাচারী কায়দায় পুরো প্রচার মাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ করার অপচেষ্টায় লিপ্ত। এই ধরনের ষড়যন্ত্রে বিভ্রান্ত সৃষ্টিকারী অপপ্রচারকে আমরা তথ্য সন্ত্রাস ছাড়া আর কিছুই বলতে পারি না। আন্তর্জাতিক মহলে বাংলাদেশের ভাব-মর্যাদা ক্ষুন্ন করতেই এই অপ্রয়াস। গত ৬ ও ৭ জানুয়ারি মিডিয়ায় প্রকাশিত বিএনপি-জামাতকে উদ্দেশ্য করে সংবাদ সম্পূর্ণ বানোয়াট ভিত্তিহীন যা শুধুমাত্র একটি আদর্শিক জোটের বিরুদ্ধে অপপ্রচার বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবী করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত আদর্শিকভাবে এ দেশের স্বাধীনতা ও স্বার্বভৌমত্বকে রক্ষা করার জন্য প্রতিনিয়ত কাজ করে চলছে। কিন্তু দেশ স্বাধীনতা অর্জনের পর থেকেই একটি মহল সার্বভৌমত্বকে ধ্বংস করার পায়তারা করছে। তারই ধারাবাহিকতাই গত সোমবার দিবাগত রাত ১টার দিকে দিনাজপুর শহরের বাইরে চেহেলগাজী ইউনিয়নের কর্ণাইয়ে মহাদেবপুর শাহপাড়া, বকরিপাড়া ও শুভ্রা নামক ৩টি পাড়ায় খেটে খাওয়া মানুষেরা যখন ঘুমিয়ে ছিল, ঠিক সে সময়  গভীর রাতে পুলিশ ও বিজিবি’র সহায়তায় এলাকায় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ অতর্কিত হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করে। এই হামলার শিকার হন চেহেলগাজী ইউপি চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান বাদশা এবং তার গ্রাম শুভ্রাসহ কয়েকটি পাড়ার লোকজন। এসব পাড়ার বাড়ী-ঘর ভাংচুর, বাড়ীর মালামাল তছনছ, নগদ টাকা, আসবাবপত্র, স্বর্নালংকার এমনকি নববধুর উপহার সামগ্রীও লুট করে নিয়ে গেছে। ভাংচুর করেছে কয়েকটি মোটরসাইকেল। ভাংচুরের হাত থেকে রক্ষা পায়নি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান পবিত্র মসজিদও। এ সময় গ্রামের পুরুষরা আত্মরক্ষায় পালিয়ে গেলেও মহিলারা হয়েছেন শারীরিকভাবে নির্যাতিত ও লাঞ্চিত। মহিলাদের নাকের সোনার ফুল ও গলা থেকে জোরপূর্বক সোনার জিনিস ছিনিয়ে নিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, বৃদ্ধা জাহানারা বেগম বিলকিস’র মত অনেক বৃদ্ধাকে সন্ত্রাসীরা লাঠি দিয়ে মারধর করেছে। পুলিশ ও বিজিবি দাড়িয়ে দাড়িয়ে তামাসা দেখেছে। মহিলাদের চিৎকারে উপস্থিত পুলিশ ও বিজিবি সারা দেয়নি। ভাংচুরের সময় শাহাপাড়া এলাকার মান্নানের বাড়ী থেকে ৭টি গরু, ধান বিক্রির নগদ ২ লাখ টাকা, ১০ ভরি স্বর্নালংকার, মোঃ আলমের বাড়ীতে থেকে টিভি,  আসবাবপত্র, স্বর্নঅলংকার, নগদ ২ লাখ টাকা, মোটরসাইকেল, তাজমুলের কয়টি গরুসহ নগদ অর্থ, আমির আলী, রশিদুল, হবিবুর, মোঃ হানিফসহ শতাধিক বাড়ী ভাংচুর ও লুটপাট করেছে। এসব বাড়ী থেকে প্রায় ২ কোটি টাকার মালামাল, স্বর্নালংকার ও নগদ টাকা নিয়ে গেছে। এই হামলা ও লুটপাটের পিছনে স্থানীয় এমপির ইন্ধন আছে সংবাদ সম্মেলনে তিনি দাবী করেন।

তিনি আরো বলেন, এমপি ও সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হুকুম দিয়েছে ওই কয়েকটি গ্রামের সব বাড়ী-ঘর জ্বালিয়ে দেয়া হবে। এমন বক্তব্যের কারণেই পুলিশ-বিজিবির সহায়তা নিয়ে সন্ত্রাসীরা গভীর রাতে নির্বিঘ্নে একের পর এক বাড়ীঘর ভাংচুর ও লুটপাট করেছে। তাদের অভিযোগ ঘটনাস্থলে যে সব পুলিশ ছিল তাদের সিংহভাগ সরকারের পক্ষপাতদুষ্ট বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান হয়। ১৮ দলীয় ঐক্যজোট সঠিক তথ্য সম্বলিত সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে দিনাজপুরবাসী তথা দেশবাসীর কাছে প্রকৃত ঘটনা তুলে ধরার আহবান জানান।

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, নির্বাচনের দিন বিকেলে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা কামরুজ্জামান ও শামিম কর্ণাই বাজারে ১৮ দলের সমর্থক বাবলু, তারেক ও মোশাররফের দোকানে অগ্নিসংযোগ করে। এঘটনার সাথে জতিত থাকায় সেনাবাহিনীর সদস্য তাদের হাতে-নাতে আকট করলেও পরের দিন পুলিশ তাদের ছেড়ে দেয়।

সংবাদে সম্মেলনে বলা হয়, অন্য সকল সম্প্রদায়ের মতো হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকেরাও এ দেশের নাগরিক এবং তারাও আমাদের ভাই। প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করে বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের সন্ত্রাসের লেবাস পরানোর চেষ্টা করা হচ্ছে, ঘটনাস্থলে উপস্থিত এলাকাবাসীই প্রকৃত ঘটনার স্বাক্ষী। অসাম্প্রদায়িকতায় বিশ্বাসী ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সাম্প্রাদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা করতে বদ্ধপরিকর ১৮ দলীয় জোট এই নগ্ন হামলার তীব্র নিন্দা ও  প্রতিবাদ জানাচ্ছে। এই জঘন্যতম ঘটনার সাথে জড়িত প্রকৃত অপরাধীদের তীব্র ধিক্কার জানিয়ে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনে সত্য প্রকাশের দ্বারা দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাসিত্মর দাবি করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মুকুর চৌধুরী, জেলা জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর এ্যাড. মাহবুবুর রহমান ভূট্টো, জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আলহাজ্ব রেজিনা ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক হাসানুজ্জামান উজ্জল, শহর জামায়াতের আমীর এ্যাড. মোঃ তৈয়ব আলীসহ বিএনপি, জামায়াত, জাগপা, ন্যাপসহ ১৮ দলের অন্যান্য নেতাকর্মী।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email