শনিবার ১৩ এপ্রিল ২০২৪ ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে দিনভর বৃষ্টি, জেঁকে বসছে তীব্র শীত

রবিউল এহসান রিপন, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: এখন পৌষ মাস। মধ্যবর্তী শীত মৌসুম। আবহাওয়া-জলবায়ুর আপন বৈশিষ্ট্য অনুয়ায়ী ঘন কুয়াশার সঙ্গে হিমেল হাওয়ায় শীত তীব্র হওয়ার কথা থাকলেও তা হচ্ছেনা। শীত যা পড়ে তা কেবল সকাল ১০টার আগে ও বিকেল ৫টার পরে। আবহমান কালের ঋতুর নিয়ম ভেঙে অসময়ে ঝরছে অঝোর ধারায় বৃষ্টি।

 

গতকাল শুক্রবার দিনগত রাত ১১টা থেকে গুড়িগুড়ি বৃষ্টি শুরম্ন হয় ঠাকুরগাঁওয়ে। রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বৃষ্টির গতি বেড়ে যায়। শনিবার সকাল ১০টার পর কিছুটা কমলেও বেলা ১১টার পর বৃষ্টি পড়েছে মুশুলধারে।

ঠাকুরগাঁও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ভূপেশ কুমার মন্ডল জানান, শুক্রবার রাত ১১টা থেকে শনিবার সকাল ৬টা পর্যমত্ম সদর উপজেলায় বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ২৪ দশমিক ৪ মিলিমিটার। জেলায় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১৩ দশমিক ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গত বছরের এই দিনে বৃষ্টিপাত ছিল না আর তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ১০ দশমিক ২১ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

তিনি জানান, অসময়ের এই বৃষ্টিপাতের তেমন কোনো প্রভাব পড়বে না কৃষিতে। তবে শীতের তীব্রতা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন তিনি।

এদিকে, অসময়ের এই বৃষ্টিপাতকে আশির্বাদ হিসেবে দেখছেন এলাকার কৃষকরা। তারা জানান, ভুট্টা, গম ও আলুতে সেচ দিতে হচ্ছে। এই বৃষ্টিতে তাদের সেচের অর্থ বেঁচে যাবে। তবে অতিরিক্ত বৃষ্টিপাত হলে বোরো বীজতলাসহ অন্যান্য ফসলের কিছুটা ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলেও জানান তারা।

সদর উপজেলার নারগুন কহরপাড়া গ্রামের কৃষক মকবুল হোসেন জানান, বৃষ্টি হওয়াই ভালোই হয়েছে। এতে আলু ও ভূট্টা ক্ষেতে সেচ দিতে হচ্ছে না।

আকচা গ্রামের লিয়াকত আলী (৯০) বলেন, ‘এরকম ঠান্ডা মুই (আমি) জীবনেও দেখো নাই। সব সময় খালি আগুনের গোরত (কাছে) বসি থাকিবার মনায় ( মন চায়)। এলা ফের বৃষ্টি হচে কি যে করম্নম এলা ঠান্ডা আরো বারে গেল।

একই ইউনিয়নের হামিদা বেওয়া বলেন, তীব্র শীতে বাহিরে বেরানো অসম্ভব হয়ে পড়েছে। তার উপর আবার বৃষ্টি। এখন শীত আরো বেশি লাগতেছে।

Spread the love