রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিরলে পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে প্রতিপক্ষের আঘাতে নিহত-১ । আহত-১

আতিউর রহমান, বিরল (দিনাজপুর) । বিরলে পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে প্রতিপক্ষের এলোপাথারী মারপিটে ১ জনের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া গেছে। একই ঘটনায় মৃতর পুত্রও গুরুত্বর আহত হয়ে দিমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার ভান্ডারা ইউপি’র ভান্ডারা সরকার পাড়া গ্রামের মৃত আজিরুলের পুত্র মাহাতাব (২৪) প্রগোসিভ লাইফ ইন্সুরেন্সে চাকুরী করত। সে প্রতিবেশি মৃতঃ আলহাজ্ব মাহিম উদ্দীনের পুত্র এসাল উদ্দীন ছালু (৫৫) এর জীবন বীমা করার জন্য ১৮ হাজার টাকা নিয়েছিল। কিন্তু মাহাতাব বীমার টাকা মূল অফিসে জমা না করে ভুয়া কাগজপত্র প্রস্ত্তত করে রেসাল উদ্দীন এর হাতে ধরিয়ে দেয়। রেসাল উদ্দীন এর নামে বীমা খোলা হয়নি জানতে পেয়ে মাহাতাবকে টাকা ফেরৎ দিতে চাপ দিলে সে ১০ হাজার টাকা ফেরৎ দেয়। অবশিষ্ট ৮ হাজার টাকা পরিশোধ করতে গড়িমসি শুরু করে। গত বৃহঃস্পতিবার ৮ জানুয়ারী সন্ধ্যায় মাহাতাব বাইসাইকেল নিয়ে রেসাল উদ্দীনের বাড়ীর সামন দিয়ে যাওয়ার সময় তাকে আটক করে টাকা চাইলে সে টাকা দিবে না বলে জানালে তার সাইকেলটি আটক করে। মাহাতাব সাইকেল রেখে বাড়ীতে গিয়ে ঘটনাটি জানালে তার চাচা সামিরুল ইসলাম (৩৩) সহ বেশ ক’জন মিলে রেসালের বাড়ীতে গিয়ে রেসালকে বেদম প্রহার করে। এ সময় রেসালের পুত্র ইব্রাহীম পিতাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তাকেও বেদম প্রহার করে গুরুত্বর আহত করে। তাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিযে আসলে সকলে পালিয়ে যায়। স্থানীয় লোকজন গুরুত্বর আহত অবস্থায় পিতা-পুত্রকে উদ্ধার করে প্রথমে দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ (দিমেক) হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। পরে রেসাল উদ্দীনের অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতেই তাকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ (রমেক) হাসাপাতালে স্থান্তান্তর করা হয়। শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে চিকিৎসারত রেসাল উদ্দীন ছালুকে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষনা করে। মৃত্যুর সংবাদ এলাকায় পৌছা মাত্রই মাহাতাব ও সামিরুল ইসলাম গংরা আত্মগোপন করেছে। শুক্রবার বিকাল ৫ টায় এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত নিহতের পক্ষে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্ত্ততি চলছিল। বিরল থানার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ব্যাপারে বিরল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল হাই সরকার এর সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এখনো মামলা রুজু হয়নি। তবে মামলা দায়েরের প্রস্ত্ততি চলছে।

Spread the love