রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের বিরলে সুরমা হত্যা রহস্য বেরিয়ে আসছে। ঘটনাস্থল চট্রগ্রামে। মুলহোতাকে পেয়েও ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

সুবল রায়, বিরল ঃ
দিনাজপুরের বিরলে আলোচিত সুরমা হত্যা রহস্য বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে। ঘটনাস্থল ছিল চট্টগ্রাম। ফলে থানায় মামলা নেয়নি পুলিশ। মূলহোতাকে সোপর্দ করার পরও ছেড়ে দিয়েছে ইউপি চেয়ারম্যান। হত্যার আসল ঘটনা উদঘাটন করে অপরাধীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করেছে সুরমার পরিবার ও তাঁর শশুড়বাড়ীর লোকজন।
জানা গেছে, উপজেলার শহরগ্রাম ইউপি’র নওপাড়া গ্রামের হুসেন আলীর পুত্র আলমগীর হোসেন (৩২) এর সাথে পার্শ্ববর্তী মঙ্গলপুর ইউপি’র মোস্তফাবাদ গ্রামের শুকু মোহাম্মদ এর কন্যা সুরমা বেগম (৩০) এর প্রায় ১০ বছর পূর্বে বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই নববধূ সুরমাকে নিয়ে শশুড়ালয়ে সংসার করা কালে আখি (৮) ও শুভ (৬) নামের দুই সন্তানের জন্ম হয় ঐ দম্পতির। এভাবে চলার এক পর্যায়ে জীবিকার তাগিদে তারা চট্টগ্রামের বায়েজিদ থানার মুরাদনগর তুলা কোম্পানি এলাকার আতরের ডিপু মহল্লার প্রবাসী নুর আলম এর বাসায় ভাড়াটিয়া হিসাবে থেকে সুরমা ওরেঞ্জ ডিজাইন লিমিটেড গার্মেন্টেস এ চাকুরী নেয় এবং স্বামী আলমগীর বারভাজার দোকান ফেরী করে বিক্রি করতে থাকে। সেখানে পারিবারিক কলহের জের ধরে গত ১৫ সেপ্টেম্বর/২০১৬ বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় আলমগীর তার স্ত্রী সুরমাকে শারীরিক নির্যাতন করে। নির্যাতনের এক পর্যায়ে সে গুরুতর অসূস্থ্য হয়ে পড়লে পরেরদিন আলমগীর চট্টগ্রামের বায়েজিদ কাউন্টার হতে হানিফ এন্টারপ্রাইজের বিকাল ৫ টার ১০ নং কোচে করে সুরমাকে নিয়ে দিনাজপুরে এসে ১৭ সেপ্টেম্বর শনিবার দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ (দিমেক) হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় সুরমা  চিকিৎসকদের নির্যাতনের ঘটনার বিস্তারিত জানায় এবং রাত পৌনে ৮ টার দিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে। ঐদিন সুরমার পরিবারের লোকজনের দাবীর প্রেক্ষিতে কোতয়ালী থানা পুলিশ লাশের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করে লাশ ময়না তদন্ত করে তাদের নিকট হস্তান্তর করে এবং কোতয়ালী থানায় একটি ইউডি মামলা দায়ের হয়। সুরমার লাশ তার পিত্রালয়ের লোকজন পরেরদিন ১৮ সেপ্টেম্বর পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করে। এ ঘটনায় গত ২৬ সেপ্টেম্বর সোমবার নিহত সুরমার ছোট ভাই আলিমদ্দিন বাদী হয়ে বিরলের নওপাড়া গ্রামে ঘটনাস্থল উল্লেখ করে আলমগীরসহ তার পরিবারের ৭ জনকে আসামী করে জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুন্যালে ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (সংশোধনী-২০০৩) এর ১১ (ক)/৩০ ধারা মতে ৬০৪/১৬ নং মামলা দায়ের করে। প্রকৃত ঘটনাস্থল ও হত্যার আসল রহস্য উদঘাটন চেয়ে আলমগীরের পিতা হুসেন আলীসহ মামলার আসামীরা তদন্তের মাধ্যমে মামলা হতে অব্যাহতি পাওয়ার জন্য বিরল প্রেস ক্লাব বরাবরে ৩০ সেপ্টেম্বর শুক্রবার একটি আবেদনপত্র দাখিল করে সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন। তার এই আবেদনের প্রেক্ষিতে আমাদের প্রতিবেদকসহ বিরল প্রেস ক্লাবের সাংবাদিকবৃন্দ সুরমার পিত্রালয় ও আলমগীরের বাড়ী এলাকায় গিয়ে সুরমাকে নির্যাতনের ঘটনাস্থল, চিকিৎসা ও মৃত্যুর খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারে উল্লেখিত ঘটনার আসল রহস্য।
এ ব্যাপরে মঙ্গলপুর ইউপি’র ধনগ্রামের ইছাহাক আলীর পুত্র অটোচালক আজাহার আলী জানান, আমি চট্টগ্রামে আলমগীর ও সুরমার পাশের এলাকায় থেকে অটোবাইক চালাতাম। সেখানে  আলমগীর বারোভাজা ফেরি করে বিক্রি করত এবং সুরমা ওরেঞ্জ ডিজাইন গার্মেন্টেস এ চাকুরী করতো। ঘটনার দিন পারিবারিক কলহে আলমগীর সুরমাকে নির্যাতন করার কারনে সুরমা খুব বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়ায় প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে আইনগত বিষয়কে মাথায় রেখে আলমগীর পরেরদিন সুরমাকে দিনাজপুরের উদ্দেশ্যে নিয়ে আসে। পরে জানতে পারি যে সুরমা দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছে।
মঙ্গলপুর ইউপি চেয়ারম্যান সেরাজুল ইসলাম জানান, আলমগীর এবং সুরমাকে আমি ব্যাক্তিগতভাবে চিনি। তাদের এবং আমার একই গ্রামে বাড়ি। সুরমা তাঁর সন্তান দু’জনকে তাঁর পিত্রালয়ে রেখে আলমগীরসহ ৩/৪ বছর যাবৎ চট্টগ্রামে থাকতো। আমি উভয় পরিবারের লোকজনের কাছ থেকে জেনেছি, সেখানে পারিবারিক কলহের কারণে আলমগীর সুরমাকে নির্যাতন করে। সেখান থেকে নিয়ে এসে আলমগীর সুরমাকে দিমেক হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সুরমা ১৭ সেপ্টেম্বর মারা যায়। এ ঘটনার সাথে আলমগীরের পরিবারের কোন সম্পৃক্ততা নেই। দোষী আলমগীর একাই। আমার নিকট এলাকাবাসী আলমগীরকে আটক করে সোপর্দ করলে আমি পুলিশে দিতে গেলেও পুলিশ আলমগীরকে নিতে সম্মত হয়নি। কারণ ঘটনাস্থল ছিল চট্রগ্রামে। সুরমার ছোট ভাই আলিমদ্দিন চট্রগ্রামে মামলা করতে গিয়ে অজ্ঞাত কারণে ফিরে এসে আলমগীরের পরিবারের লোকজনদেরকে হয়রানী করার জন্য সম্পুর্ণ মিথ্যা ঘটনা উল্লেখ করে মামলা করেছে। ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বিরল থানার অফিসার ইনচার্জ তাপস চন্দ্র পন্ডিত জানান, আমার নিকট সুরমার পরিবারের লোকজন মামলা করতে এসেছিল, যেহেতু কোতয়ালী থানায় এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছিল এবং ঘটনাস্থল ছিল চট্রগামে’ সে কারণে আমি ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করে মামলা করার পরামর্শ দিয়েছিলাম।
সুরমার চাচা আব্দুল মজিদ (৬৫) জানান, আলমগীর এক সময় মঙ্গলপুর বাজারে সবজির দোকান করতো। তারপর মাঝে মধ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম আবার নওপাড়াতে আসা যাওয়া করতো। গত ১বছর পূর্বে ঢাকায় সুরমাকে মারপিট করে বাড়ীতে পাঠিয়েছিল। ৪ মাস আগে আবার নিয়ে গিয়ে মারপিট করে হত্যা করে ফেললো। আলমগীর জুয়া খেলতো, নেশা করতো। আমরা বিরল থানায় গেলে পুলিশ মামলা নেয় নি। পরে কোতয়ালীতে গেলে সেখানেও মামলা নেয় নি। উপায় না পেয়ে আদালতে গেছি।
ফুপা রফিকুল ইসলাম জানায়, ১৭ তারিখ সকাল ৭ টায় আলমগীর ফোনে তাঁকে জানায় সুরমা অসূস্থ্য, দিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তখন তিনি ফুপু জমিলা বেগমকে পাঠালে সে ৯ টায় হাসপাতালে পৌছে। সে জানায়, ডাক্তার সুরমাকে জিজ্ঞাসা করে নির্যাতনের সকল বর্ণনা শুনে। আলমগীর সুরমাকে মাথায়, পিছনে বুকে ও পেটে লাথি মেরে মারপিট করে। ডাক্তার বলে স্বামীটা কোথায় গেলো ওকে চট্টগ্রামে হাসপাতালে ভর্তি করতে পারেনি। এখানে কেন আনলো? তারপর দেখি সুরমার নাক ও মুখ দিয়ে রক্ত ঝরছে। আমি নিজ হাতে রক্ত মুছে দিয়েছি। রক্তমাখা কাপড়গুলো এখোনো রেখে দিয়েছি। তারপর রাতে সে মারা যায়। ওকে ভর্তি করে আমাদের ফোন দিয়ে জামাই পালিয়ে যায় আর কোন খোঁজ নেয়নি। আলমগীর কে খুব একটা পছন্দ করতো না এ কারণে প্রায় কলহসহ মারপিট লেগে থাকতো। শেষ পর্যন্ত নির্যাতন করেই তাকে মেরে ফেলেছে। একই কথা সুরমা’র মেয়ে আখি, প্রতিবেশী পারুল, শহিদুল ইসলাম, রুবেল শেখ জানায়। এ ঘটনায় সঠিক তদন্তের মাধ্যমে সুরমার পরিবার ও তাঁর শশুড়বাড়ীর পরিবারের লোকজনসহ এলাকাবাসী সুরমার ঘাতক স্বামী আলমগীরের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন।

Spread the love