রবিবার ১৪ এপ্রিল ২০২৪ ১লা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের বিরলে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামীন বাংলার ঐতিহ্য সংস্কৃতি বানানী গান

সুবল রায়, বিরল : হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামীন বাংলার ঐতিয্য সংস্কৃতি বানানী গান। আজ থেকে শত শত বছর থেকে চলতে থাকা এই বানানী গান গ্রামে গ্রামে প্রচুর প্রচলিত ছিল। আজ কালের আবর্তে দেখা যাচ্ছেনা দলে দলে আসা গান শুনার মানুষেরা। যা একসময় ছিল কোথায় বানানী গান হচ্ছে সেখানেই দল বেধে হেটে হেটে ছুটে যেতো সেখানে।

এরকমই চোখে পরেছিল স্বরস্বতী পুজায়। পুজা শেষে একটি মাইকে হঠাৎ ঘোষনা হল। আজ রাতে একটি গানের আয়োজন করা হয়েছে। গানের নাম ‘‘বাঙ্গী ফাটা, অবলা সাধু’’। দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলা থেকে আসা এই গানের দল। সন্ধ্যায় সেখানে যাওয়ার জন্য আমিও আমার এক ছটো ভাই মানিককে সাথে নিয়ে ছুটলাম বানানী গান শুনতে। বিরল উপজেলা থেকে ৩ কিলোমিটার পশ্চিমে বিষ্ণুপুর গ্রামে। মেঠো পথে দলে দলে নারী, পুরম্নষ, শিশু, বৃদ্ধ ও বৃদ্ধারা সবাই যাচ্ছে গান শোনার জন্য। আমি রাস্তায় তাদের জিজ্ঞাসা করলাম, কোথায় যাচ্ছেন আপনারা। কথা বলতেই তারা সাথেই জবাব দিলো আপনারাও চলেন আমাদের সাথে গান শুনতে, ওখানে বানানী গান হবে। তাদের কথা শুনে আমিও চললাম। যেতে দেখি রাস্তার দু-ধারে অনেক মিষ্টির দোকান। চায়ের দোকান ছাড়াও আছে মেয়েদের বিভিন্ন কসমেটিক্সস এর দোকান। মনে হয় বড় কোন মেলায় আসলাম। এই মেলা কমিটির কাছে যেতে কতই না কষ্ট পেতে হয়েছে। লোকের ভিরে কমিটির কাছে যাওয়াই যাচ্ছেনা। গ্রাম্য পুলিশের সহযোগীতায় আমাকে নিয়ে গেল কমিটির কাছে। সাংবাদিক পরিচয় দিতেই তারা আমাকে অনেক কথা বলতে লাগল। আমিও তাদের সাথে প্রায় ১ ঘন্টার মতো সময়ও দিলাম। কমিটিরা আমাকে পেয়ে খুব খুশি ও আনন্দিত হলো। কথায় কথায় বলল আপনি আমাদের এই ছোট আয়োজন অবশ্যই দেখে যাবেন। আমিও রাজি হয়ে গেলাম। রাত তখন সাড়ে ১১ টা। গান শুরু করার জন্য চেচা মেচি করতে থাকে গান পিপাশুরা। আমিও তাদের সাথে একই শুর মিলাতে থাকলাম। তারা তারী গান শুরু করেন। কথা বলতেই হঠাৎ গানের ম্যানেজারের কথা স্বরণ করলাম। কমিটির লোক জন আমাকে নিয়ে গেল গানের ম্যানেজারের কাছে। সেখানে দেখে তারা মেকাব নিয়ে ব্যাস্ত হয়ে পরেছেন। কথা বলার সময় তাদের তখন নাই। ঐ সময় তাদের সাথে আমিও যোগ করলাম। আর বলতে লাগলাম আপনাদের ম্যানেজার কে। বলতেই চলে আসল গানের ম্যানেজার হেমন্ত রায়। জিজ্ঞাসা করলাম কত জন শিল্পি। এক কথায় বলল ১৮ জন। আমি সাংবাদিক পরিচয় দিলে তারাও আমাকে তাদের সুখ-দঃখ্য এর কথা তুলে ধরল। আমিও মনোযোগ সহকারে তাদের কথা গুলো শুনতে থাকলাম। তারা বললেন, আমাদের এই বানানী গান আর আমরা হয়তো ধরে রাখতে পারবোনা। বাবা দাদার আমল থেকে এই গান করে আসছি। নিজের লেখায় গান তৈরী করে তা ভালো ভাবে পরিবেশন করতে চেষ্টাও করছি। কিন্ত তা আর সম্ভব হবেনা বাঙ্গালীর সংস্কৃতি এই বানানী গান রক্ষা করার। আমাকে আরো বলতে লাগল আপনি দেখেন, ১টি কংক সেট, ১ কর্ণেট, ১টি কিবোর্ট ও ১টি করতাল নিয়ে আমরা আজ থেকে ৪০ বছর ধরে গান করে আসছি। আমরা ছেলেরায় মেয়ে সেজে অভিনয় করি। তবে অভিনয় করে যত আনন্দ পাই, তারচেয়ে দর্শকদের বেশী করে আনন্দ দিতে চেষ্টা করি। দর্শক আনন্দ পেলে আমরাও অভিনয় করতে আনন্দ পাই। ম্যানেজার বলেন, প্রশিক্ষন আমরা নিজেরাই দেই। আমরা নিজেরাই বিভিন্ন রকম গান তৈরী করি। বিভিন্ন উপজেলায় গান করি। এই গান করা আমাদের সখ। সরকার যদি আমাদের এই বানানী গানের দিকে একটু লক্ষ করে তাহলে এই সংস্কৃতিকে আজিবন টিকিয়ে রাখা সম্ভব হবে বলে জানান তারা।

Spread the love