বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের বিশাল জনসভায় প্রধানমন্ত্রী খালেদার প্রসত্মাব দেশকে পিছিয়ে নেয়ার

দিনাজপুর প্রতিনিধি:

নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার প্রসত্মাবের কঠোর সমালোচনা করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আমরা দেশকে এগিয়ে নিতে চাই আর উনি (খালেদা জিয়া) পেছনে হাটেন। উনি নির্বাচিত প্রতিনিধি চান না। উনি চলে গেলেন সেই ’৯৬ সালে। শেখ হাসিনা আবারো বলেছেন, দেশ চলবে সংবিধান অনুযায়ী। এর মধ্য দিয়ে গত সোমবার বিরোধী নেত্রীর দেয়া প্রসত্মাবকে কার্যত প্রত্যাখ্যান করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গতকাল মঙ্গলবার দিনাজপুরের বিশাল জনসভায় প্রধানমন্ত্রী অভিযোগ করেন, বিরোধী দলীয় নেতা নির্বাচিত প্রতিনিধি চান না। নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে আমি নির্বাচিত প্রতিনিধিদের নিয়ে সর্বদলীয় সরকারের প্রসত্মাব দিলাম। তা উনার পছন্দ হয়নি। উনি ফিরে গেলেন অনেক পেছনে। জনগণ আগে বাড়ে, এটা ২০১৩ সাল, আমরা জনগণকে নিয়ে উন্নয়ন করে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাব। আর উনি (খালেদা জিয়া) পেছনে হাটেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা চাই দেশকে কীভাবে সামনের দিকে এগিয়ে নেয়া যায়, আর উনি চান দেশকে পেছনে ঠেলে দিতে। আমি বিরোধী নেত্রীকে জিজ্ঞাসা করি, ’৯৬ সালে বিচারপতি হাবিবুর রহমানের বাড়িতে ছাত্রদলের সন্ত্রাসী পাঠিয়েছিলেন। উনাকে মারার জন্য। পরে তার বাসায় বিশেষ নিরাপত্তা বাহিনী (এসএসএফ) মোতায়েন করা হয়েছিল। যে উপদেষ্টাদের তিনি মারতে চেয়েছিলেন তাদের এখন উনি আবার তাদের সরকারে আনতে চান।

দিনাজপুর শহরের গোর-এ শহীদ ময়দানে জেলা আওয়ামী লীগ এ জনসভার আয়োজন করে। এর আগে প্রধানমন্ত্রী সুইচ চেপে ২৮টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ৯টি  প্রকল্পের ভিত্তি প্রসত্মর স্থাপন করেন।

দিনাজপুরে প্রধানমন্ত্রীর আগমন ও গোর এ শহীদ মাঠের এই জনসভাকে ঘিরে গোটা এলাকায় আনন্দমুখর পরিবেশের সূচনা ঘটেছিল। এ উপলক্ষে নগরীতে উৎসবের আমেজ বিরাজ করে। লাখো মানুষের উপস্থিতিতে জনসভাটিও ছিল স্মরণকালের অন্যতম। দুপুর ২টায় পূর্বঘোষিত সময় থাকলেও সকাল থেকেই দিনাজপুর জেলার বিভিন্ন উপজেলা এবং পার্শ্ববর্তী রংপুর, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, নীলফামারী, কুড়িগ্রাম, জয়পুরহাটসহ দূর-দূরামত্ম থেকে নেতাকর্মী ও সমর্থকরা জনসভায় আসতে শুরম্ন করে। তাদের সঙ্গে যোগ দেয় সর্বসত্মরের সাধারণ মানুষ। সমাবেশে বিপুল সংখ্যক নারীর উপস্থিতিও দেখা গেছে। বেলা ১টার মধ্যেই জনসভাস্থল হয়ে পড়ে লোকে লোকারণ্য। বিকেল নাগাদ মানুষের ভিড় ছাড়িয়ে আশপাশের কয়েক কিলোমিটার এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে জনসভা। গোর-এ শহীদ বড় ময়দানের পূর্ব পাশের জেলা প্রশাসকের অফিস ও জজকোর্ট এলাকা, পশ্চিমে সর্কিট হাউস, উত্তর পার্শে পৌর ভবন ও রেল স্টেশন এবং দক্ষিণে শিশু পার্ক এলাকা পরিণত হয় জনসমূদ্রে।

এদিকে জনসভাস্থলের কয়েক কিলোমিটার জুড়ে লাগানো প্রায় কয়েক শ’ মাইকে জনসভার কার্যক্রম প্রচারের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল। তবে সাউন্ড সিস্টেমের সমস্যার কারণে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের শুরম্নর দিকে শহরের বিভিন্ন স্থানে অনেকে বক্তব্য শুনতে পারেননি। প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে দিনাজপুরের প্রবেশমুখের জেলাগুলোতেও অসংখ্য তোরন, ব্যানার, ফেস্টুন ও পস্ন্যাকার্ডে সাজিয়ে তোলা হয়। এর পাশাপাশি গোটা এলাকায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও প্রধানমন্ত্রীপুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের প্রতিকৃতিও শোভা পেয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী মঙ্গলবার সকাল পৌনে ৩টায় হেলিকপ্টার যোগে দিনাজপুরে আসেন। সেখান থেকে তিনি সার্কিট হাউজে বিশ্রাম নেন। পরে উন্নয়ন প্রকল্প উদে^াধন করে সভামঞ্চে আসেন।

বক্তৃতার শুরম্নতেই প্রধানমন্ত্রী ২০০৮ সালের নির্বাচনে ভোট দিয়ে দিনাজপুরের সবগুলো আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে জয়ী করায় এলাকাবাসীকে অভিনন্দন জানান। এলাকার উন্নয়নে তার সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের বিবরণ তুলে ধরে আগামী নির্বাচনে দিনাজপুরবাসীর নিকট ভোট চান তিনি।

বিকাল সাড়ে ৪টায় প্রধানমমপী তার বক্তব্য শুরম্ন করেন। আধ ঘণ্টারও বেশি সময় বক্তব্য রাখেন তিনি। প্রধানমমপী বলেন, আমরা উন্নয়নে বিশ্বাস করি। আর বিএনপি দূর্নীতি ও সন্ত্রাসে বিশ্বাস করে। আমরা দেশের জন্য পুরস্কার নিয়ে আসি। তারা নিয়ে আসে তিরস্কার।

বিএনপি আমলের সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের কথা উলেস্নখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি আমলে কোন ধর্মের মানুষই শামিত্মতে বসবাস করতে পারেনি। দেশের মানুষ এখন শামিত্মতে বসবাস করছে। এটা বিরোধী নেত্রীর পছন্দ হয়না।

তিনি বলেন, যারা হাত কাটে, রগ কাটে, হাতুড়ি দিয়ে মানুষ হত্যা করে সেই শিবিরকেই উনি মদত দেন। যেমন মদত দিয়েছেন পঁচাত্তরের খুনীদের বাঁচাতে। বঙ্গবন্ধুর খুনীদের বাঁচাতে উনি রায়ের দিন হরতালও দিয়েছিলেন। কিন্তু জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে আমরা সে বিচার করেছি। এছাড়া বিরোধী নেত্রীর মদতে হেফাজত ইসলাম হাজার হাজার কোরআন পুড়িয়েছে, মসজিদে আগুন দিয়েছে। যারা কোরআন পুড়ায় ও মসজিদে আগুন দেয় তাদের দিয়ে ইসলাম হেফাজত হবে কীভাবে।

বিরোধী দল আইন, আদালত ও সংবিধান মানেনা মমত্মব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, উনি এতিমদের টাকা মেরে খেয়েছেন। এখন সাজার ভয়ে আদালতে যাননা।

শিক্ষা খাতে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের হাতে বছরের প্রথম দিনই বই তুলে দিচ্ছি। ১ লাখ ৩০ হাজার ছাত্রীকে ডিগ্রি পর্যমত্ম বৃত্তি দিচ্ছি। মাধ্যমিক পর্যায়ে আমরা কম্পিউটার শিক্ষা বাধ্যতামূলক করেছি। আগামীতে ক্ষমতায় আসলে প্রাথমিক পর্যায়েও কম্পিউটার শিক্ষা চালু করব।

শেখ হাসিনা বলেন, গত নির্বাচনে আমাদের দেয়া ইশতিহারের চেয়ে বেশি কাজ করেছি। ৯ হাজার ৯০০ মেগাওয়াট বিদ্যুত উৎপাদন করেছি। সারা দেশে কমিউনিটি হেলথ কেয়ার চালু করেছি। প্রতি ইউনিয়নে তথ্য সেবা কেন্দ্র চালু করেছি। তিনি বলেন, আমরা আসি উন্নয়ন করতে আর উনারা আসেন লুটপাট আর ধ্বংস করতে। আগামীতে ক্ষমতায় আসতে পারলে ঘরে ঘরে বিদ্যুত পৌঁছে দেব। এ সময় প্রধানমন্ত্রী দিনাজপুর সরকারি কলেজ ও সরকারি মহিলা কলেজে দু’টি করে বাস দেয়ারও প্রতিশ্রম্নতি ব্যক্ত করেন।

বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী পঁচাত্তরের কাল রাতের বর্ণনা দিতে গিয়ে আবেগাপস্নুত হয়ে যান। তিনি বলেন, যেদিন আমি শোকে কাতর হয়ে থাকি সেদিন বিরোধী নেত্রী কেক কেটে ভূয়ার জন্ম দিন পালন করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, সব হারিয়ে আমি আপনাদের সেবা করার জন্যই বেচেঁ আছি। মানুষ একটা শোক সহ্য করতে পারেনা। আমি এক সঙ্গে এতগুলো শোক সই কী করে। শেখ হাসিনা বলেন, ২০০৮ সালে আপনারা যেভাবে আমাকে আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছিলেন, আগামীতে সেভাবে নৌকায় ভোট দিবেন। তখন উপস্থিত লাখো জনতাকে হাত তুলে ওয়াদা করান। সবাই নৌকায় ভোট দেয়ার অঙ্গীকার করেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসত্মাফিজুর রহমান ফিজারের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আজিজুল ইমাম চৌধুরীর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, সভাপতিম-লীর সদস্য সতীশ চন্দ্র রায়, ত্রাণ ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, ইকবালুর রহিম এমপি, মনোরঞ্জনশীল গোপাল এমপি, সুলতানা বুলবুল এমপি, ড. আজিজুল হক এমপি, নূরম্নল ইসলাম সুজন এমপি, মাজাহারম্নল হক প্রধান এমপি প্রমুখ। এছাড়াও মঞ্চে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক ও প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোতাহার হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধন

প্রধানমন্ত্রী জনসভায় বক্তব্য দেয়ার আগে সুইচ চেপে জনসভাস্থলের পাশেই বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করেন। এর মধ্যে রয়েছে- ৫০০ শয্যা বিশিষ্ট দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বহুতল বিশিষ্ট ড. এম. এ. ওয়াজেদ ভবন, আত্রাই নদীতে মোহনপুর ব্রীজের নিকট ১৩৫ মিঃ দীর্ঘ রাবার ড্যাম নির্মাণ, দিনাজপুর জেলার বোচাগঞ্জ উপজেলাধীন রাণীরঘাট নামক স্থানে টাঙ্গন নদীর উপর নির্মিত ১০০ মিঃ রাবার ড্যাম বোচাগঞ্জ, বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্স ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ, বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্স ৩১ শয্যা থেকে ৫০শয্যায় উন্নীতকরণ, পাঁচবাড়ী হাটে আত্রাই নদীর উপর ১০০মিঃ দীর্ঘ আরসিসি ব্রীজ নির্মাণ, দিনাজপুর সরকারি কলেজের ৫ তলা ভিত বিশিষ্ট ৪ তলা একাডেমিক-কাম পরীক্ষা হল, বোচাগঞ্জ উপজেলায় আব্দুর রউফ চৌধুরী অডিটোরিয়াম, বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্স ৩০ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ, দিনাজপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপেস্নক্স ভবন,  সেতাবগঞ্জ মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪ তলা ভিত বিশিষ্ট ৩ তলা একাডেমিক ভবন, ‘‘স্বাধীনতা সত্মম্ভ’’ মুক্তিযুদ্ধে শহীদ ‘‘শহীদ আসাদুলস্নাহ স্কোয়ার’’, বিরল পৌরসভা, আটগাঁও দাখিল মাদ্রাসা (একাডেমিক ভবন), রাজুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয় নতুন একাডেমিক ভবন, পুলিশ তদমত্ম কেন্দ্র মঙ্গলপুর, হাকিমপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্স ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ, ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন-হাকিমপুর, কাঞ্চন হতে বিরল পর্যমত্ম (৬ কিঃমিঃ) মিটারগেজ রেললাইনকে ডুয়েলগেজ এবং বিরল হতে বিরল অর্ডার পর্যমত্ম    (৯ কিঃমিঃ) মিটারগেজকে ব্রডগেজ এ রূপামত্মর কাজ, ‘‘সম্মুখ সমরের’’ মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিসত্মম্ভ-হাকিমপুর, দিনাজপুর প্রেসক্লাব কমপেস্নক্স ভবন, বীরগঞ্জ উপজেলার সাতোর ইউনিয়নের গাঙর ব্রীজ, কাহারোল উপজেলা মৎস্য ভবন, বিরল উপজেলার হালজায় উচ্চ বিদ্যালয় এর একাডেমিক ভবন, বিরল উপজেলার ওকড়া দাখিল মাদ্রাসার একাডেমিক ভবন, সেতাবগঞ্জ পৌরসভা ‘খ’ শ্রেণী হতে ‘ক’ শ্রেণীতে উন্নীতকরণ, বোচাগঞ্জ উপজেলা ডাক বাংলো ভবন।

ভিত্তিপ্রসত্মর স্থাপনঃ

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড দিনাজপুর এর প্রশাসনিক ভবন, দিনাজপুর চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন, বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানী লিঃ ইনফ্লুয়েন্স জোনসহ মাইনিং এলাকার মধ্যে বসবাসকারী ভূমিহীন পরিবারের পুনর্বাসনের গৃহ নির্মাণ প্রকল্প, পাবর্তীপুর, দিনাজপুর ভিত্তি,  দিনাজপুর আঞ্চালিক পাসপোর্ট অফিস ভবন নির্মাণ কাজ, দিনাজপুর স্টেডিয়াম এর সম্প্রসারিত ভবন, ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন, বিরল, দিনাজপুর ভিত্তি, তিনতলা বিশিষ্ট উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপেস্নক্স ভবন-হাকিমপুর-দিনাজপুর, বীরগঞ্জ উপজেলার মোহনপুর ইউনিয়নের পাথরঘাটা নদীর উপর গাড়ীরঘাট ব্রীজ ভিত্তি প্রসত্মর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email