বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আখেরি মোনাজাতে শান্তি-সমৃদ্ধি কামনা

লাখো মুসল্লির ক্ষণে ক্ষণে ‘আমিন আমিন’ ‘আলাহুম্মা আমিন’ ধ্বনিতে প্রকম্পিত হয়ে ওঠে টঙ্গীর বাতাস। বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের দেশ-বিদেশের লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে আখেরি মোনাজাত শেষ হয়েছে। মোনাজাত পরিচালনা করেন তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরব্বি দিল্লির হজরত মাওলানা মুহাম্মদ সা’দ।

রোববার বেলা ১১টায় মোনাজাত শুরু হয় এবং বেলা ১২টায় মোনাজাত শেষ হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে ও বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে মোনাজাতে অংশ নেন।

ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা অশ্রুসিক্ত নয়নে দুই হাত তুলে মহান আল্লাহর দরবারে নিজেকে সমর্পণ করে নিজ নিজ গুনাহ মাফ কামনা করে আখেরি মোনাজাতে শরিক হন। এ সময় অনেকেই কান্নায় ভেঙে পড়েন।

 

আখেরি মোনাজাতে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, স্থানীয় সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেলসহ বিশ্বের ৯০টি দেশের প্রায় ১০ হাজার বিদেশি অতিথিসহ দেশ-বিদেশের প্রায় ৩০ লাখ ধর্মপ্রাণ মানুষ শরিক হন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

 

মূল ময়দানে স্থান সংকুলান না হওয়ায় অনেকেই আশপাশের এলাকা ও মহাসড়কে অবস্থান নেন। আশপাশের এলাকার ভবনগুলোর ছাদেও মানুষের ভিড় দেখা যায়। সেখান থেকেই মোনাজাতে শরিক হন অনেকে। এ সময় আমিন আমিন ধ্বনিতে মুখর হয়ে ওঠে গোটা এলাকা। মোনাজাত চলাকালে দক্ষিণে বিমানবন্দর, উত্তরে গাজীপুর বোডবাজার পূর্বে পূবাইলের মাঝুখান এবং পশ্চিমে আশুলিয়া পর্যন্ত প্রায় ১০ বর্গকিলোমিটার এলাকা বিশাল জনসমুদ্রে পরিণত হয়।

শুক্রবার বাদ ফজর পাকিস্তানের মাওলানা মো. এহসানের আম বয়ানের মাধ্যমে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শুরু হয়। বয়ান বাংলায় তরজমা করেন বাংলাদেশের মাওলানা মো. আবদুল মতিন। এরপর বাদ জুমা ভারতের মাওলানা শওকত এবং বাদ আসর বাংলাদেশের ঢাকার কাকরাইল মসজিদের হাফেজ মোহাম্মদ জুুবায়ের বয়েন করেন। আর মাগরিবের নামাজের পর থেকে বয়ান করেন দিল্লির মাওলানা মোহাম্মদ সাদদ। শনিবার বাদ ফজর থেকে বয়ান করেন ভারতের মাওলানা ইসমাইল হোসেন গোদরা, বাদ জোহর ভারতের হজরত মাওলানা শওকত আলী, বাদ আসর ভারতের হজরত মাওলানা মোহাম্মদ জোয়াহের, বাদ মাগরিব পাকিস্তানের হজরত মাওলানা আবদুল হক। রোববার বাদ ফজর থেকেই তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরব্বি দিল্লির হজরত মাওলানা মুহাম্মদ সা’দ বয়ান করেন। তার বয়নের বাংলায় অনুবাদ করেন বাংলাদেশের মাওলানা ওয়াসিফুল ইসলাম।

 

চার দিন বিরতির পর আগামী ১৬ জানুয়ারি থেকে ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু হবে। আগামী ১৮ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে এবারের বিশ্ব ইজতেমার সমাপ্তি ঘটবে।

Spread the love