শনিবার ১ অক্টোবর ২০২২ ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের বোঁচাগঞ্জ, বিরামপুর মুক্ত দিবসে ব্যাপক কর্মসূচী পালিত

MP-KBদিনাজপুর প্রতিনিধি: ৬ই ডিসেম্বর। দিনাজপুরের বোঁচাগঞ্জ,  বিরামপুর মুক্ত।

১৯৭১ সালের এই দিনে বোঁচাগঞ্জ উপজেলার ১১৬ জন মুক্তিযোদ্ধা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সম্মুখ যুদ্ধে অংশ নেয়। মুক্তিযোদ্ধারা বিভিন্ন দিক থেকে আক্রমন করে পাক-হানাদার বাহিনীকে। মুক্তিযোদ্ধাদের গেরিলা আক্রমনে দখলদার পাকহানাদার বাহিনী বোঁচাগঞ্জ ছেড়ে পালিয়ে নীলফামারী জেলার সৈয়দপুরে আশ্রয় নেয়। দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধের পর পাকহানাদার মুক্ত হয় দিনাজপুরের এই উপজেলা। এই যুদ্ধে পাকহানাদার বাহিনীর গুলিতে নিহত হন মুক্তিযোদ্ধা এমনামুল হক, আবুল হাসেম, চিনিরাম দেবশর্মাসহ অনেকে।

বোঁচাগঞ্জ মুক্ত দিবস উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন পালন করছে বিসত্মারিত কর্মসূচী। সকালে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি সৌধে পুস্পসত্মক অর্পন করে। এর আগে তিনি জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে। এরপর স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন সংগঠন স্মৃতি সৌধে পুষ্পসত্মবক অর্পন করে। এছাড়াও দিবসটি উপলক্ষে সেখানে পালিত হচ্ছে দিনব্যাপী কর্মসূচী।

বোঁচাগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মোঃ জাফরউল্লাহ জানিয়েছেন সেদিনের সেই বিজয়ের কাহিনী। তিনি জানান, ৪২ বছর আগের এই দিনে আমরা পাক হানাদার বাহিনীকে তাড়িয়েছি। এখন আমরা তাদের দোসর যুদ্ধাপরাধীমুক্ত বাংলাদেশ দেখতে চাই।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও স্থানীয় সাংসদ খালিদ মাহমুদ চৌধুরী জানিয়েছেন, এই দিনটি বোঁচাগঞ্জবাসীর জন্য একটি স্মরনীয় দিন। সেদিন মুক্তিযোদ্ধারা নিজেদের জীবনের বাজী রেখে পাক হানাদার বাহিনীর সাথে যুদ্ধ করে বোঁচাগঞ্জকে মুক্ত করেছিলেন। সেদিনের সেই যুদ্ধে যারা শহীদ হয়েছিলেন, তাদের অবদান এই এলাকার মানুষ কখনোই ভুলবে না। তিনি জানান, এই দিনটিকে আগামী প্রজন্মের কাছে স্মরনীয় করে রাখার জন্যই প্রতিবছর এখানে বিস্তারিত কর্মসূচী পালন করা হয়ে থাকে।

মুক্ত দিবস উপলক্ষে  বিরামপুরেও পালিত হয় বিভিন্ন কর্মসূচী।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email